• আজ বৃহস্পতিবার। গ্রীষ্মকাল, ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১০:৫৬মিঃ

‘তার সঙ্গে মতান্তর হতে পারে কিন্তু মনান্তর হবে না’

⏱ | সোমবার, অক্টোবর ২৪, ২০১৬ 📁 জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর- দলের বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে কোনো ধরনের বিভেদে জড়ানোর কারণ নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের নতুন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বলেছেন, আশরাফের অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চান তিনিও।

image-4552আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার পরে সোমবার দুপুর দুইটায় ধানমণ্ডির প্রিয়াঙ্কা কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত প্রথম আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এজন্য দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা ও সৈয়দ আশরাফের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, এ চমক শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ম্যাজিক পাওয়ার।

আওয়ামী লীগের সম্মেলনে পরদিন সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে দুই নেতার সঙ্গে দেখা হয়। এ সময় আশরাফকে জড়িয়ে ধরেন ওবায়দুল কাদের। নতুন সাধারণ সম্পাদককে অভিনন্দন জানান অন্য নেতারাও।

মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর ওবায়দুল কাদের যান ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে। এই সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় সম্মেলনের শৃঙ্খলা, আগামী জাতীয় নির্বাচনে দলের পরিকল্পনা, মন্ত্রিত্বে থেকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমার পূর্বসূরি, আমার অগ্রদূত সাধারণ সম্পাদক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী, আমার পার্টিও প্রেসিডিয়ার সদস্য সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাই। সাধারণ সম্পাদক হিসেবে তার সাত বছরের অভিজ্ঞতা সুচিন্তিত পরামর্শ আমার দায়িত্ব পালনে অনুপ্রেরণা যোগাবে।’

আশরাফের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে কাজ করার ঘোষণা দিয়ে কাদের বলেন, ‘আমরা পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করবো।’

মন্ত্রিসভায় সৈয়দ আশরাফের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর সেখানাকর ঘটনা বর্ণনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আজও কেবিনেটে তার সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। আমার কাছে অবাক লাগলো, তিনি সবকিছু ইজিলি নিয়েছেন। এতে তার মধ্যে বিচলিতভাব বা কোনো ধরনের হতাশা তার মুখম-লে আমি দেখিনি। … বরং আজ তাকে আরও বেশি প্রাণবন্ত বলে আমার মনে হয়েছে। এটাই আওয়ামী লীগ। এটাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির বিউটি। ’

আশরাফের সঙ্গে কোনো রকম দ্বন্দ্বে জড়ানোর কারণ নেই জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের মধ্যে কোনো কোনো বিষয়ে মতান্তর হতে পারে, কিন্তু মনন্তর হবে না।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়াকে নিজের রাজনৈতিক জীবনের সর্বোচ্চ স্বীকৃতি বলেও জানিয়েছেন সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সম্মেলনে দলের সভাপতি ও তৃণমূল থেকে আসা কাউন্সিলরদের অকুণ্ঠ ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। এর বিনিময়ে দলের জন্য নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভবিষ্যতে দলকে আরও শক্তিশালী করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন কাদের।

তিনি আরও বলেছেন, আগে দেশের বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে সড়ক ও সেতু দেখার পাশাপাশি তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের বিভিন্ন অভিযোগ শুনতাম কিন্তু কিছু করার ছিল না। এখন অথরিটি পেয়েছি। এখন সড়ক আর সেতুও দেখবো তাদের অভিযোগ শুনে সমস্যার সমাধানও করবো।