• আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী সভানেত্রীর বক্তব্য গণতন্ত্রের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক : মির্জা আলমগীর

৫:১১ পূর্বাহ্ন | মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৫, ২০১৬ জাতীয়, ঢাকা, দেশের খবর

নিউজ ডেস্ক, সময়ের কণ্ঠস্বরঃ আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনে নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী সভানেত্রীর বক্তব্যকে গণতন্ত্রের জন্য বিপজ্জনক বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা আলমগীর।  তিনি আরও বলেন যে, আওয়ামী সভানেত্রী শেখ হাসিনা পরিষ্কার ভাষায় তাদের কাউন্সিল সম্মেলনে বলেছেন”বিএনপিকে ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না”।

 

গতকাল সোমবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে বিএনপির প্রয়াত ভাইস চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য আফসার আহমেদ সিদ্দিকীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত স্মরণসভায় মির্জা আলমগীর এ মন্তব্য করেন।মির্জা আলমগীর বলেন,আওয়ামী ‘সভানেত্রী’ যে কথাগুলো বলেছেন, এটা গণতন্ত্রের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক।

মির্জা আলমগীর বলেন যে, আওয়ামী সভানেত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশনে বলেছেন ‘যেকোনো মূল্যে আগামীবার আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতেই হবে’ । একই সঙ্গে তিনি এটাও বলেছেন,বিএনপিকে ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না। এই কথাগুলো থেকে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে তাঁদের লক্ষ্য কী এবং তাঁরা কী করতে চান। ভোটেরই বা দরকার কী? ঘোষণা করে দিলেই হয় যে আমরা আবার পাঁচ বছরের জন্য ক্ষমতায় চলে গেলাম। তাহলেই তো হয়ে যায়। এই যে একটা নাটক, এই নাটকের প্রয়োজনীয়তা নেই।’

mirza-alomgir

বিএনপি মহাসচিব মির্জা আলমগীর দাবি জানান সব রাজনৈতিক দলের কাছ থেকে মতামত নিয়ে নির্বাচন কমিশন গঠন করতে হবে  । তা না হলে দেশের মানুষ মেরুদণ্ডহীন নির্বাচন কমিশনকে মেনে নেবে না বলেও তিনি উল্লেখ করেন ।

আবারও দলীয় আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন হতে পারে বলেও এ সময় আশঙ্কা প্রকাশ করে সরকারকে হুঁশিয়ার করে দেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। তিনি বলেন, ‘আজকে আমরা সার্চ কমিটির কথা শুনছি। আমরা একবার দেখেছি সার্চ কমিটির নামে সার্চ করা হয়েছে, সন্ধান করা হয়েছে, খুঁজে বের করা হয়েছে এমন কয়েকজন ব্যক্তিকে, যাদের মেরুদণ্ডে কোনো হাড় নাই। যারা দেশ, দেশের শাসনতন্ত্র এবং প্রচলিত আইন উপেক্ষা করে সরকারের হুকুমমতো চলে।’

 “উন্নয়নের নামে গণতন্ত্র হত্যাকারী এই সরকারকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না জনগণ” বলে বিএনপির এ দু নেতা মন্তব্য করেছেন। তাই তাঁরা মনে করেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি আদায় হলেই বিদায় হবে আওয়ামী লীগ।