সংবাদ শিরোনাম

কোরআন তেলাওয়াত, ইবাদতে প্রথম রোজা কেটেছে খালেদারভাঙ্গায় রাতের আঁধারে দফায় দফায় সংঘর্ষ, ভাঙচুর-লুটপাট : আহত-১৫বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে তরুণীর সর্বস্ব কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধেমহাসড়ক যানশূন্য, শিমুলিয়ায় ফেরি পারাপার বন্ধ‘তালা ভেঙ্গে মসজিদে তারাবি পড়ার চেষ্টা্’‌, পুলিশের বাধায় সংঘর্ষে মুসল্লিরা‘লঘু পাপে গুরু দণ্ড’; তিনটি মুরগি চুরির দায়ে দেড়লাখ টাকার জরিমানা চার তরুণের!কুড়িগ্রামের সবগুলো নদ-নদী শুকিয়ে গেছে, হুমকীতে জীব-বৈচিত্রহেফাজতের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেপ্তারমধুখালীতে বান্ধবীর সহায়তায় অচেতন করে দফায় দফায় ধর্ষণের শিকার নারী!বাসস্ট্যান্ডে প্রকাশ্যে চায়ের স্টলে ইতালি প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যা

  • আজ ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

‘ভারতে ক্রমাগত কমছে হিন্দু জনসংখ্যা, বাড়ছে মুসলমান’ হিন্দুদের জনসংখ্যা বৃদ্ধিতে পরামর্শ দিলেন মন্ত্রী

৫:৩৯ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, অক্টোবর ২৫, ২০১৬ আন্তর্জাতিক, স্পট লাইট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক – ভারতে হিন্দু জনসংখ্যা ক্রমাগতভাবে কমে যাচ্ছে বলে দাবি করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতের ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা গিরিরাজ সিং। এ ব্যাপারে হিন্দুদের আরো বেশি করে সন্তান জন্ম দেয়ার কথা বললেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে হিন্দুদের গভীরভাবে ভাবনাচিন্তা করারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সোমবার বিহারের রাজধানী পাটনায় এক অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বলেন দেশে হিন্দুদের জনসংখ্যা বাড়ানোটা অত্যন্ত জরুরি। আটটি রাজ্যে ক্রমাগত হিন্দুদের জনসংখ্যা কমে গেছে, তাই বিষয়টি নিয়ে হিন্দুদের চিন্তাভাবনা করা দরকার।

তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘এ দেশের মানুষ রাম মন্দির চাচ্ছেন। কিন্তু দেশে কোনো রামভক্ত না থাকলে রাম মন্দির কীভাবে তৈরি হবে?’

তার দাবি, ১৯৪৭ সালে যখন দেশ ভাগ হয়েছিল সে সময় পাকিস্তানে ২২ শতাংশ হিন্দু জনসংখ্যা ছিল। কিন্তু এখন তা কমে এক শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। একইভাবে ভারতে ৯০ শতাংশ হিন্দু এবং ১০ শতাংশ মুসলিম ছিল। কিন্তু এখন হিন্দু কমে ৭৬ শতাংশ এবং মুসলিম বেড়ে ২৪ শতাংশ হয়েছে।

giribaj-sing

গিরিরাজ সিং ‘সংখ্যালঘু’ শব্দ পরিবর্তনের দাবি করেছেন। এক বেসরকারি টিভি চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘দেশে মুসলিমদের জনসংখ্যা ২০ কোটি হলে তারা সংখ্যালঘু কী করে হয়? দেশের ২০ টি জেলা এমন যেখানে মুসলিমদের সংখ্যা ৫০ শতাংশ অথবা তার বেশি কিন্তু তা সত্ত্বেও তারা সংখ্যালঘু।’

তিনি বলেন, ‘এক এজেন্সির মতে বিহারের কিশানগঞ্জে মুসলিমদের জনসংখ্যা ৭০ শতাংশ এবং হিন্দুদের জনসংখ্যা ২০ শতাংশের আশেপাশে। তা সত্ত্বেও সেখানে হিন্দুরা সংখ্যাগুরু এবং মুসলিমরা সংখ্যালঘু।’ দেশের সংসদের ভেতরে এবং বাইরে সংখ্যালঘু সংজ্ঞা নিয়ে আলোচনা হওয়া প্রয়োজন বলেও গিরিরাজ সিং মন্তব্য করেন।