সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৭শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

প্রবাসীর সাথে বাল্য বিবাহের বলি হলো, মেধাবী ছাত্রী সুর্বনা!


ফরিদপুর প্রতিনিধি, সময়ের কণ্ঠস্বর: ফরিদপুর জেলার  সদরপুর উপজেলার চরবিষ্ণুপুর ইউনিয়নে নয়াডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্রী সুর্বনা আক্তার (১৪) মুঠোফোনে প্রবাসী স্বামীর সঙ্গে কথা কাটাকাটির জের ধরে গত  সোমবার সকালে গলায় রশি পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছে।সুর্বনা আক্তারের স্বজনেরা সকাল সাড়ে ৯টায় চরভদ্রাসন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনলে কর্তব্যরত ডাঃ সত্যব্রত ঘোষ অমিত সুর্বনাকে মৃত ঘোষণা করে।

গত বছর নবম শ্রেনীতে অধ্যায়নরত অবস্থায় পার্শ্ববতী মনিকোঠা গ্রামের জমির মোল্যার কুয়েত প্রবাসী ছেলে ফরিদ মোল্যা (৩০) এর সাথে ওই স্কুল ছাত্রীর বিয়ে হয়। সুর্বনা আক্তার সেক জাহিদের একমাত্র কন্যা। বিয়ের দু’মাস পর স্বামী বিদেশে থাকায় স্কুল ছাত্রী বাপের বাড়ীতে থেকেই পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছিল।

atmahotta-ballobie-2016

নয়াডাঙ্গী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ কামরুল হাসান জানান, মেয়েটি মেধাবী ছাত্রী ছিল। তাকে দিয়ে এ বছর এস.এস,সি পরীক্ষায় এ প্লাস পাওয়ার আশা করছিলাম।

গত বছর বিয়ের সময় আমরা বহুবার নিষেধ করেছি, কিন্তু আমাদের কথা কেউ শুনে নাই বরং আমরা বাল্যবিয়েতে বাঁধা হয়ে দাঁড়াই বলে স্থানীয় ছাত্রীর অভিভাবকরা আমাদের স্কুলে ছাত্রী ভর্তি ব্যাপারে অনাগ্রহ প্রকাশ করেছিল।

balikar-bie

সুবর্না আক্তারের মা পারভীন আক্তার (৩৮) আহাজারী কণ্ঠে জানায়, আর জানি কেউ বিদেশী পুলার সাথে মাইয়্যে না দেয়, কিছুদিন ধরে সুর্বনার স্বামীর সাথে ফোনে ঝগড়া ঝাটি চলছিল। সকালের নাস্তা খেয়ে বাড়ীর সবাই বাইরে কাজে ব্যস্ত ছিল। এই ফাঁকে সুর্বনা ঘর আটকিয়ে গলায় রশি দিয়েছে।

চরভদ্রাসন থানার সেকেন্ড অফিসার এস.আই. স্বপন কুমার জানান, লাশটি একটি জিডি মূলে ফরিদপুর মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত পরিবার সূত্রে জানা যায় যে, নিহত ছাত্রীর সুরতহালে গলায় রশি পেঁচানো কালো দাগ ও বাম নাকে রক্তে ঝড়ার চিহ্ন রয়েছে।