সংবাদ শিরোনাম

‘লঘু পাপে গুরু দণ্ড’; তিনটি মুরগি চুরির দায়ে দেড়লাখ টাকার জরিমানা চার তরুণের!কুড়িগ্রামের সবগুলো নদ-নদী শুকিয়ে গেছে, হুমকীতে জীব-বৈচিত্রহেফাজতের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেপ্তারমধুখালীতে বান্ধবীর সহায়তায় অচেতন করে দফায় দফায় ধর্ষণের শিকার নারী!বাসস্ট্যান্ডে প্রকাশ্যে চায়ের স্টলে ইতালি প্রবাসীকে কুপিয়ে হত্যাগোবিন্দগঞ্জে মর্মান্তিক সড়ক দূঘর্টনায় স্কুল শিক্ষকসহ একই পরিবারের ৪ জন নিহতময়মনসিংহে ব্রহ্মপুত্র নদের পানিতে ডুবে মারা গেলো ৩ শিশুমুহুর্তেই ভয়াবহ আগুন! স্কুলেই পুড়ে মরলো ২০ শিশু শিক্ষার্থী!সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু আর নেইসব রেকর্ড ভেঙে চুরমার, একদিনেই ৯৬ জনের মৃত্যু

  • আজ ১লা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ হলো ধর্ষণ অপরাধে বিশ্বের শীর্ষ দশ দেশের তালিকা, শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র

১:২৫ অপরাহ্ন | বুধবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৬ আন্তর্জাতিক

92আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ- এবার প্রকাশ করা হলো ধর্ষণের মতো জঘন্নতম অপরাধে  বিশ্বের শীর্ষ দশ দেশের  তালিকা । এই তালিকায়  ফ্রান্স, ব্রিটেন জার্মানির মত দেশের নামও রয়েছে।কিন্তু সর্ব প্রথমে আছে যুক্তরাষ্ট্রের নাম। ধর্ষণে বিশ্বের শীর্ষ ১০ দেশ হচ্ছে-

১. ধর্ষণের তালিকায় একেবারে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাষ্ট্রের ব্যুরো অব জাসটিস স্ট্যাটিস্টিকস অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রে ধর্ষণের শিকার নারীর সংখ্যা ৯১ ভাগ। সেখানে ৮ ভাগ পুরুষও ধর্ষণের শিকার হয়ে থাকে। ন্যাশনাল ভায়োলেন্স এগেইনস্ট উইম্যানের সার্ভে অনুযায়ী আমেরিকার প্রতি ৬ জন মহিলার মধ্যে ১ জন ধর্ষণের শিকার। পুরুষদের ক্ষেত্রে প্রতি ৩৩ জনে ১ জন ধর্ষণের শিকার হয়ে থাকে। এই দেশে ১৪ বছর বয়স থেকেই ধর্ষণের মত অপরাধের প্রবণতা তৈরি হয় শিশু মননে।

২. যুক্তরাষ্ট্রের পরেই আছে দক্ষিণ আফ্রিকার নাম। সন্তান এবং শিশুদের ওপর যৌন নির্যাতনের বিষয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা গোটা পৃথিবীর মধ্যে দ্বিতীয়। এই দেশে একজন ধর্ষকের শাস্তি মাত্র ২ বছরের কারাবাস। দক্ষিণ আফ্রিকাকে বলা হয় রেপ ক্যাপিটাল অব দ্য ওয়ার্ল্ড।

৩. ইউরোপ মহাদেশের মধ্যে সুইডেনেই সব থেকে বেশি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। সুইডেনে যৌন নির্যাতনের ঘটনা আগের চেয়ে প্রায় ৫৮ ভাগ বেড়েছে।

৪. ন্যাশনাল ক্রাইম রেকর্ড ব্যুরো অনুযায়ী ২০১২ সালে ভারতের মত উন্নতশীল দেশে ধর্ষণের অভিযোগ জমা হয়েছে ২৪ হাজার ৯২৩টি। ভারতে ধর্ষণের শিকার হওয়া ১শ’ নারীর মধ্যে ৯৮ জনই আত্মহত্যা করেন। প্রতি ২২ মিনিটে ভারতে একটি করে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করা হয়। এই হিসাবে ধর্ষণে ভারতের অবস্থান চতুর্থ।

৫. ব্রিটেনে ৪ লাখ নারী প্রতিবছর ধর্ষণের শিকার হন। ১৬-৫৯ বছর বয়সী প্রতি ৫ জন নারীর মধ্যে একজন ধর্ষণের শিকার হন।

৬. এখনও পর্যন্ত ধর্ষণের শিকার হয়ে ২ লাখ ৪০ হাজার নারীর মৃত্যু হয়েছে জার্মানিতে। জার্মানিতে প্রতি বছর গড়ে ৬৫ লাখ ৭ হাজার ৩৯৪টি ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করা হয় ।

৭. ১৯৮০ সাল পর্যন্ত ধর্ষণের মত ঘটনাকে ফ্রান্সে অপরাধ বলে ভাবাই হত না। ফ্রান্সের সরকারি গবেষোণায় দেখা গেছে, প্রতি বছরে এই দেশে ধর্ষণের শিকার হন অন্তত ৭৫ হাজার নারী।

৮. কানাডায় এখন পর্যন্ত ধর্ষণের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগের সংখ্যা ২৫ লাখ ১৬ হাজার ৯১৮টি। প্রতি ১৭ জন নারীর মধ্যে ১ জন সেখানে ধর্ষিতা হন। এদের মধ্যে ৬২ ভাগ নারীই শারীরিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হন।

৯. শ্রীলঙ্কার অপরাধের মধ্যে ১৪ দশমিক ৫ শতাংশ অপরাধই সংগঠিত হয় ধর্ষণে। ধর্ষণে অভিযুক্তদের ৬৫ দশমিক ৮ ভাগ ধর্ষণের মত নরকীয় কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থেকেও কোনও প্রকার অনুশোচনায় ভোগেন না।

১০. ধর্ষণে শীর্ষ দেশের তালিকায় দশম অবস্থানে আছে ইথিওপিয়া। সেখানে ৬০ ভাগ নারীই ধর্ষণের শিকার।