সংবাদ শিরোনাম

খালেদা জিয়ার সিটি স্ক্যানের রিপোর্ট নিয়ে যা বললেন চিকিৎসক২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিলেন কাদের মির্জাটাঙ্গাইলে ভন্ড পুরুষ কবিরাজ নারী সেজে যুবককে বিয়ে! অতঃপর…ব্যক্তিগত কাজে সরকারি গাড়ি নিয়ে স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ঢাকা ভ্রমণ!শেরপুরের সেই শিশু রোকনের পরিবারের পাশে ইউএনও!কক্সবাজারে অস্ত্রসহ ডাকাতি মামলার আসামি গ্রেফতারকক্সবাজারে অনুপ্রবেশকারীর পক্ষ না নেয়ায়, আ’লীগ সভাপতিকে অব্যাহতি!শাহজাদপুরে ট্যাংকলরি সিএনজি’র মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ১রমজান মাসে আলেমদের হয়রানি মেনে নেয়া যায় না: নুরুল ইসলাম জিহাদীখালেদা জিয়াকে পাকিস্তান-জাপান দূতের চিঠি

  • আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ফুলবাড়ীতে আমন ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনায় কৃষকদের মাঝে আনন্দ

৩:৪৫ অপরাহ্ন | বুধবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৬ দেশের খবর, রংপুর

অনীল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী প্রতিনিধি: বাংলা সন ১৪২৩ কার্ত্তিক মাসের ১২ তারিখ আজ। কার্তিক মাসে আগাম মৃদু শীতের শুরুতেই আমন মৌসুমে ধানের গাছে গাছে শিশির ভেজা বাতাসে স্বুবাস ছড়াচ্ছে চারিদিকে। মাঠের চারিদিকে সবুজের সমারোহ। গত বছরের চেয়ে এ বছর ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে মাঠ জুড়ে।

fosol

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে চলতি আমন মৌসুমে মাঠ জুড়ে সবুজে সবুজে সমারোহ আমন ধানের ক্ষেত। আবহাওয়া অনুকুল থাকায় এ বছর অনেক কৃষক বুকে আশা বেঁধেছে আমন ধানের ফলন দেখে। তারা অনেকে বলছেন আমন ধান এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। আমন ক্ষেতের যেদিকে তাকাই শুধুই মাঠ জুড়ে দেখি ধান আর ধান এ যেন দেখেই বুক ভড়িয়ে যায়। এ বছর রোগবালাই ও প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ না হওয়ার কারনে আমন ফলন ভাল হয়েছে বলে আশা প্রকাশ করেন কৃষকরা। এখন আমন ক্ষেত জুড়ে শীর্ষ বেড়াচ্ছে। কয়েক সপ্তাহে মধ্যে আমন ক্ষেতের সমস্ত ধানের থোঁকায় থোঁকায় শীর্ষ বেড়ানো শেষ হবে। কিছু মধ্যবিত্ত পরিবারের কৃষকরা আগাম জাতের ধান লাগিয়েছে। সে গুলো আবার অধিকাংশ কৃষক সেই আগাম জাতের হাইব্রীড ধান ঘরে তুলছে।

কৃষক আব্দুল সাত্তার জানান, আগাম জাতের হাইব্রীড ধান আমাদের সকলের কাজে লাগে। খাওয়ার ধান সট পড়লে তা পুরন করে। সবচেয়ে বেশি কাজে লাগে গৃহপালিত পশু গরুর খাদ্য হিসাবে। ঠিক আমনের ভরা মৌসুমে গরু খাদ্য অনেক পরিবারের মধ্যে সংকট হয়ে থাকে। তাই ধানের খর বিঘা প্রতি ২ থেকে ৩ হাজার টাকা বিক্রি করে বলে কৃষকরা জানান। নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের কৃষক মতিয়ার রহমান জুয়েল জানান, বি আর ১১, গুটি স্বরর্না, খাঁটো স্বরর্না, চলতি আমন মৌসুমে বেশি করে আবাদ করা করা হয়। হাইব্রীড ধানের পরিমানটা খুব কম। তিনি সাড়ে তিন বিঘা জমিতে গুটি স্বরর্না করেছে। গত বারের চেয়ে এ বছর ফলন ভাল হয়েছে। তিনি আশা করছেন বিঘা প্রতি ১৫ থেকে ১৭ মন গুটি স্বরর্না ধান উৎপাদন হবে এবং বর্তমান ধানের যে দাম খোলা বাজারে ৮শ ৫০ টাকা থেকে ৯শ টাকা মন গুটি স্বরর্নার এ দাম চলমান থাকলে কৃষকরা লাভবান হবে।

এ সময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, সরকার কৃষকদের কাজ থেকে যে ৯শ ২০ টাকা করে ধান ক্রয় করেছে এটা সরকারের খুবেই ভাল উদ্যোগ। এতে কৃষকরা লাভবান হবে এবং ধান ফলনের দিকে বেশি করে ঝুঁকবে কিন্তু নামে মাত্র কৃষকের কাছে ধান ক্রয় করা। এখানে গুটি কয়ে কৃষক এ সুবিধা পায় আর বেশির ভাগ কৃষকরাই এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে অনেক কৃষকের মুখে শোনা যাচ্ছে। কৃষকরা দাবী করেন সরকার যদি গ্রাম পর্যায়ে কৃষকের মাঝে এসে মনিটরিং করে তাহলে যারা খোঁদ কৃষক তারাই সরকারের ধান ক্রয়ের সুযোগ-সুবিধা।

কুরুষাফেরুষা গ্রামের কৃষক শৈলান চন্দ্র রায়, কাসেম আলী, হাসেব আলী নির্মল চন্দ্র রায় জানান, এ বছর সময় মত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় জমিতে আমন ধান রোপন করতে শ্যালো মেশিনের পানি দিয়ে করতে হত। তাই কিছুটা দেড়ি হয়েছে বলে জানান। তারপরেও এ বছরে আমনের বাম্পার ফলনের আশা করছি। তবে ধানের ভাল ফলনেই কৃষকের কোন লাভ নেই লাভ শুধু বড় বড় ধান ব্যবসায়ীদের। তাদের কাজ থেকে ধান সংগ্রহ করে রাখছে গুদামে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মাহবুবুর রহমান জানান, ১১ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। চলতি আমন মৌসুমে বি আর ১১, গুটি স্বরর্ণা, খাঁটো স্বরর্না, বীণাসাপ ৪৯, ৫১, ৫২ হাইব্রীড এ উপজেলায় বেশি উৎপাদন হয়ে থাকে। তবে এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আশানুরুপ ভাবে ভাল ফলন হয়েছে। অন্য বারের চেয়ে এবারে আমন ধানের দাম ভাল ভালই পাবে। বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব। তাই সরকার গত বোরো মৌসুমে ধানের মন প্রতি ৯শ ২০ টাকা দরে কৃষকের কাছে সরাসরি ক্রয় করছে এবং সরকার সরাসরি কৃষকের কাছে ধান ক্রয় বিষয়টি অব্যাহত থাকবে কৃষকরা লাভবান হবে বলে মনে আশা করছি।