• আজ বৃহস্পতিবার। গ্রীষ্মকাল, ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১১:৪১মিঃ

নরসিংদীতে অস্বাভাবিক হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধিতে পৌরবাসীর চাপা ক্ষোভ

⏱ | বুধবার, অক্টোবর ২৬, ২০১৬ 📁 ঢাকা, দেশের খবর

মো: শফিকুল ইসলাম মতি (নরসিংদী):

নরসিংদী পৌর নাগরিকদের গৃহকর নজিরবিহীন ভাবে বৃদ্ধিতে শহর বাসীর মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। শহর বাসী তা সইতে না পেরে ঘরে বসে বুক চাপড়াচ্ছে। কর বৃদ্ধি নিয়ে শহরে চলছে আলোচনা ও সমালোচনার ঝড়। সচেতন নাগরিকরা পৌরসভার রাজস্ব্য বিভাগকে এখন অত্যাচারী জমিদারদের খারাসি খান বলে অবহিত করছে।অত্যাচারী জমিদারের নায়েবরা যেমন নিরিহ চাষিদের ওপর খাজনার বোঝা চাপিয়ে লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে খাজনা আদায় করত খাজনা দিতে না পারলে গবাদি পশু নিয়ে যেত।তেমনি ভাবে নরসিংদী পৌরসভা কর্তৃপক্ষের নামে পৌর নাগরিকদের গৃহকর অস্বাভিকভাবে বাড়ীয়ে দেয়া হয়েছে যুক্তিহীন ভাবে।

বর্ধিত করের হার ৫শ’ থেকে দেড় হাজারের বেশি বৃদ্ধি করেছে। উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়, ৬ টি রুম বিশিষ্ট একটি টিনের বাড়িতে বসবাসকারী পরিবারটির পূর্বে কর ছিল ৩শ’ টাকা। এখন সেখানে ১১ হাজার ৫ শত টাকা করের নোটিশ দিয়েছে পৌরসভা।narsingdi-1

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক পৌর নাগরিকরা জানান, করের জন্য আদায় কারী মামুন ও সহকারী কর আদায় কারী নাসির আহম্মেদের এলাকা ভেলানগর, পশ্চিম ব্রাম্মন্দী মহল্লা, আতার উর রহমানের বৌয়াকুর, বানিয়াছল,তরোয়া মহল্লা, এনতাজ মিয়ার বিলাসদী,পশ্চিম কান্দা পাড়া, ভাগদী মহল্লা, বাবুল আহম্মেদ-বাজার ,দত্তপাড়া মহল্লা,দিরেন্দ, সাটির পাড়া,শালিধা,চৌওহলা মহল্লা দিলীপ মদক, কাউরিয়া পাড়া,ব্রাম্মন পাড়া,নাগরিয়া কান্দী,খাটেহাড়া মহল্লা,শিতল, বাসাইল, পূর্ব ব্রাম্মন্দী, বিরপুর,দক্ষিন কান্দা পাড়া মহল্লার হোলডিং কর আদায় করে থাকে।

পৌর নাগরিকদের সবচেয়ে বেশি অভিযোগ সহকারি কর আদায়কারী আতাউরের দিকে পৌর কর কমানোর কথা বলে নাগরিকদে নিকট থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে মর্মে গুরুতরো অভিযোগ উঠেছে।এসব বিষয়ে কর আদায় কারী কর্মকর্তা মো: আকরাম হোসেনের কাছে মৌখিক অভিযোগ দিলেও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা।নিরুপায় হয়ে নাগরিকদের গৃহ কর কমানোর জন্য মেয়রের নিকট দরখাস্ত করলে সকালে বিলাসদী মহল্লার নাগরিকদের নিয়ে পৌর হল রোমে এক আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় এডভোকেট এম এ হান্নন ভূইয়া বলেন, যেভাবে পৌরকর বাড়ানো হয়েছে তাতে মনে হয়েছে নাগরিকরা একটি দল ও পৌর মেয়র আর একটি দল। এটা হওয়া উচিত নয় ।ফলে নাগরিকদের চাপের মূখে ৪৫% কর কমানোর ঘোষনা করেন পৌর মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল। তাতেও খুশি হতে পারছেন না পৌর নাগরিকরা।কেননা দূর্নীতিবাজ পৌরকর আদায়কারীরা টাকার বিনিময়ে যার ১০ হাজার টাকা কর হওয়ার কথা তাকে ১ হাজার টাকা যার ২ হাজার টাকা কর হওয়ার কথা তাকে ২০ হাজার টাকা করের নোটিশ দিয়েছে। যার ফলে পৌর নাগরিকরা নতুন করের বিষয়েও ক্ষুব্ধ। এসব বিষয়ে পৌর মেয়রের নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন কেউ এমনটা করে থাকলে তদন্ত করে জড়িত ব্যাক্তিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ।

নরসিংদী পৌরসভার প্রয়াত মেয়র জনবন্ধু লোকমান হোসেন পৌর মেয়র থাকাকালিন সময়ে পৌরবাসীর সুবিধার্থে সহনশীল পর্যায়ে পৌর কর আদায় করতেন। তিনি সবসময় পৌর নাগরিকদের সুখ দুখের কথা চিন্তা করে পৌরসভার সকল কার্য্যক্রম পরিচালনা করতেন। তাই বর্তমান পৌর মেয়রের কর্মকান্ডে পৌর নাগরিকদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। পৌরবাসির আশা আকাংখ্যা বর্তমান পৌর মেয়র জনবন্ধু লোকমান হোসেনের চিন্তাচেতনা ও স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষে নাগরিক বান্ধব ও স্বার্থ সংশ্লিষ্ট সকল কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। পৌরবাসী গৃহ করের বিষয়ে সুষ্ট সমাধানের জন্য পৌর মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করছে।