• আজ শুক্রবার। গ্রীষ্মকাল, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। দুপুর ২:৩৭মিঃ

বৃষ্টির হানায় ঢাকা টেস্টের প্রথম দিনের খেলা শেষ

⏱ | শুক্রবার, অক্টোবর ২৮, ২০১৬ 📁 খেলা, স্পট লাইট

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক – ইংলিশদের তৃতীয় ও মিরাজের দ্বিতীয় উইকেট হিসেবে ফিরে গেছেন গ্যারি ব্যালেন্স। ডাকেটের মতো তিনিও মুশফিকের ক্যাচে পরিণত হয়েছেন। স্কোরবোর্ডে ইংলিশদের তখন ৪২ রান। এর সঙ্গে আর ৮ রান যোগ করার পর মিরপুরে হানা দেয় বৃষ্টি। এখানেই দিনের খেলা শেষ ঘোষণা করা হয়েছে। এর অর্থ দ্বিতীয় সেশনে ৫ উইকেট পড়ার পর দিনের শেষ সেশনেও উইকেট পড়লো ৭টি।

মিরপুরে মাঠ ঢেকে দেয়া হয়েছে। ৩ উইকেটে ৫০ রান করা ইংল্যান্ড বাংলাদেশের চেয়ে এখনো ১৭০ রান পিছিয়ে। জো রুট ১৫ ও মঈন আলি ২ রানে অপরাজিত আছেন।

এর আগে দ্বিতীয় উইকেটে তামিম-মমিনুলের ১৭০ রানের জুটি স্বত্ত্বেও প্রথম ইনিংসে মাত্র ২২০ রানেই গুটিয়ে যায় টাইগাররা। দলীয় ১ রানে ইমরুল আউট হওয়ার পর এ লম্বা জুটি গড়েন দুজন। তামিম তুলে নেন ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি। আউট হন ১০৪ রানে। মমিনুল ফেরেন ৬৬ রানে। ইংল্যান্ডের এ সফরে স্বাগতিকদের হয়ে প্রথমবারের মতো টস জেতেন টাইগার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম।

১৯০ রানে মমিনুল আউট হওয়ার মাত্র ৩০ রানের মধ্যে গুটিয়ে যায় টাইগারদের ইনিংস। মাহমুদুল্লাহ (১৩) ও সাকিব (১০) ছাড়া আর কেউই দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছাতে পারেননি।

ban-test

ইংল্যান্ডের বোলিং আক্রমণে নেতৃত্ব দেন মঈন আলি। তিনি একাই শিকার করেছেন ৫ উইকেট। ইংল্যান্ডের বাইরে এবারই প্রথম পাঁচ উইকেট পেলেন এ অলরাউন্ডার। বাকিগুলোর মধ্যে ক্রিস ওকস ৩টি ও বেন স্টোকস নিয়েছেন ২টি উইকেট।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় ওভারে দলীয় ১০ রানে বেন ডাকেটকে ফেরান সাকিব আল হাসান। ৫ বলে ৭ রান করে আউট হন ডাকেট। উইকেটের পেছনে মুশফিকের গ্লাভসবন্দি হন তিনি। এর পর দৃশ্যপটে আসেন মেহেদী হাসান মিরাজ। দলীয় ২৪ রানে মিরাজ ফেরান অ্যালিস্টার কুককে। টাইগারদের লেগ বিফোরের আবেদনে আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা সাড়া না দেয়ায় মুশফিক রিভিউ নেন। তাতেই রায় আসে বাংলাদেশের পক্ষে। কুক করেন ১৪ রান।

ইনিংসের ১১তম ওভারে ৯ রান করা গ্যারি ব্যালেন্সকে নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন মিরাজ। ব্যালেন্সও ফিরে যান মুশফিককে ক্যাচ দিয়ে।

এদিন ১ উইকেটে ১১৮ রান নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে যায় টাইগাররা। তখন বোঝায় যায়নি মিরপুরের উইকেট এমন আচরণ করবে!

দ্বিতীয় সেশনে রান আসে ৮৭। বিনিময়ে উইকেট পড়ে ৫টি। শেষ সেশনে মোট উইকেট পড়েছে ৭টি। এ সময় দুদল মিলে করেছে ৬৫ রান। অবশ্য শেষ সেশনে খেলা হয়েছে ২০.২ ওভার।