সংবাদ শিরোনাম

গাছে মোটরসাইকেলে ধাক্কা, ২ ক‌লেজ ছা‌ত্রের মৃত্যুহেফাজতিরা ধর্মকে ব্যবহার করে ক্ষমতায় আসতে চায়: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রীওবায়দুল কাদেরের বাড়িতে ককটেল হামলাশাহজাদপুরে থানা পুলিশের অভিযানে ইউপি সদস্যসহ ৯ জুয়াড়ি আটকখালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি কামনায় ফরিদপুরে দোয়াওবায়দুল কাদেরকে কোম্পানীগঞ্জে ঢুকতে না দেওয়ার ঘোষণা কাদের মির্জারকরোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন এমপি ফারুক চৌধুরীর মাফরিদপুরে পূর্ব শত্রুতার জেরে কলেজ শিক্ষার্থীর ওপর হামলামামুনুল হকের কথিত শ্বশুরকে নোটিশ দেওয়ায় আ.লীগ নেতাদের হত্যার হুমকির অভিযোগ!ভারতের পশ্চিমবঙ্গে পঞ্চম দফায় ৪৫ আসনে ভোটগ্রহন চলছে

  • আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

প্রকাশ্যে নিজের বিশেষঅঙ্গ নিয়ে মন্তব্য করে উপস্থিত সবাইকে চমকিয়েছেন টুইঙ্কাল খান্না!

৭:৪৫ পূর্বাহ্ন | সোমবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬ বিনোদন, স্পট লাইট

বিনোদন ডেস্ক – অনুষ্ঠানে সঞ্চালকের দায়িত্বে ছিলেন করণ জোহর। মঞ্চে তিনি আমন্ত্রণ জানালেন টুইঙ্কাল খান্নার গাইনোকলজিস্ট ডাক্তার শেহরিয়ারকে। তাঁর সামনেই আলোচনা শুরু হয় টুইঙ্কালের গর্ভাবস্থা নিয়ে। সেই সময়েই নিজের যোনি নিয়ে মন্তব্য করে সকলকে চমকে দেন টুইঙ্কাল। অক্ষয় কুমারের জীবনের অন্যতম অবলম্বন তিনি। ২০০১ সালে তাঁর সঙ্গে বিয়ে হয় অক্ষয়ের। তার পর ১৫ বছরের দাম্পত্য কাটিয়ে ফেললেন অক্ষয় কুমার-টুইঙ্কাল খান্না। ইতিমধ্যে দুই সন্তানের জনক-জননী হয়েছেন তাঁরা। ভেতরকার খবর যতটুকু জানা যায়, সুখেই রয়েছেন দু’জনে।

১৯৯০-এর দশকে টুইঙ্কালও বেশ কিছু বলিউড ছবিতে নায়িকা হওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। কিন্তু সাফল্য তাঁর অধরাই থেকে যায়। তবে অভিনয়ের দুনিয়ায় ব্যর্থ হলেও হোমমেকার হিসেবে তিনি পুরোদস্তুর সফল। অক্ষয়ের সঙ্গে চুটিয়ে সংসার করছেন তিনি। দু’জনের মধ্যে কোথাও কোনও অভিযোগ-অভিমান এখনও দানা বাধেনি বলেই শোনা যায়।

কিন্তু এই টুইঙ্কালই বছর খানেক আগে তীব্র বিতর্ক তৈরি করেছিলেন নিজের গোপনাঙ্গ নিয়ে প্রকাশ্যে মন্তব্য করে। এবং গোপনাঙ্গ মানে যে কোনও গোপনাঙ্গ নয়, একেবারে নিজের যোনি নিয়ে প্রকাশ্যে মন্তব্য করে বসেছিলেন টুইঙ্কাল।

akshay-kumar-twinkle-khanna

সেদিন ঠিক কী হয়েছিল? আসলে ১৮ আগস্ট ২০১৫ তারিখে প্রকাশিত হয় টুইঙ্কালের লেখা বই ‘মিসেস ফানি বোনস’। বই প্রকাশ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অক্ষয় কুমার, আমির খান, এবং করণ জোহর। বই প্রকাশের কিছুদিন আগেই মা হয়েছিলেন টুইঙ্কাল। সেই সূত্রেই অনুষ্ঠানের সঞ্চালক করণ জোহর মঞ্চে আমন্ত্রণ করেন টুইঙ্কালের গাইনোকলজিস্ট ডাক্তার শেহরিয়ারকে। তাঁর সামনেই আলোচনা শুরু হয় টুইঙ্কালের গর্ভাবস্থা নিয়ে। সেই সময়েই নিজের যোনি নিয়ে মন্তব্য করে সকলকে চমকে দেন টুইঙ্কাল।

টুইঙ্কাল কথা বলছিলেন সন্তান প্রসবের আগে নিজের ফলস লেবার পেন নিয়ে। তিনি জানান, হঠাৎ করে একদিন ব্যথা ওঠায় তিনি ভেবেছিলেন, সন্তান প্রসবের সময় হয়ে গেছে। ঘটনাচক্রে ডাক্তার শেহরিয়ার আবার সেই সময়ে নিজের স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে বাইরে ছুটি কাটাতে গেছেন। আতঙ্কিত টুইঙ্কাল ডাক্তারের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। ডাক্তার প্রথমে ফোন ধরতে পারেননি। পরে ফ্রি হয়ে তিনি নিজেই বার বার ফোন করতে থাকেন টুইঙ্কালকে। ততক্ষণে টুইঙ্কালের আতঙ্ক কেটে গেছে, তিনি বুঝে গেছেন, ব্যথাটা ছিল নিছকই ফলস লেবার পেন। সেই সময়ে বার বার ফোনে বিরক্ত হয়ে টুইঙ্কাল নাকি তাঁর জাক্তারকে বলেন, ‘আমার যোনি নিয়ে ভাবনা ছাড়ুন, নিজের হাতের কাছে যে যোনি রয়েছে, সে দিকে মন দিন। ’ অর্থাৎ ইঙ্গিতে টুইঙ্কাল নিজের স্ত্রীর প্রতি ডাক্তারকে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দেন।

প্রকাশ্যে নিজের গোপনাঙ্গ নিয়ে মন্তব্য করে সেই সময়ে উপস্থিত জনতাকে বেশ খানিকটা চমকেই দিয়েছিলেন টুইঙ্কাল।