• আজ ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সেই ধর্ষণ চেষ্টাকারীর কাছে এবার আবেগঘন চিঠি লিখলেন এই তরুণী!

২:৫৪ অপরাহ্ন | সোমবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬ Breaking News, অপরাধ, চিত্র বিচিত্র, স্পট লাইট

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক – যুক্তরাজ্যের আর দশটা সাধারণ নারীর মতই একজন সারা রিওবাক। গত বছর তিনি যুক্তরাজ্য থেকে ফ্রান্সে আসেন একটি ইন্টার্নশিপের জন্য।

গত বছর একটি নাইটক্লাবের ভেতরে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়। একটি বদ্ধ ঘরে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছিলেন এক ব্যক্তি। প্রায় এক বছর পর তাকে যে ব্যক্তি ধর্ষণ করার চেষ্টা করেছিলেন সেই ব্যক্তিকেই আবেগঘন চিঠি লিখেছেন তিনি। খবর ডেইলি মেইল এর।

নিজের সেই খোলা চিঠি সম্পর্কে সারা রিওবাক বলেন, নিজেকে ধর্ষণের বিষাক্ত ও সহিংস বাস্তবতা থেকে পরিত্রাণের উপায় হিসেবে তিনি এটি লিখেছেন। তিনি লিখেছেন কীভাবে আদালত কক্ষে নিজের হামলাকারীর মুখোমুখি হয়েছিলেন সে সম্পর্কেও।

ঐ তরুণীর লিখা চিঠিটি পড়ে যে কেউ শিউর উঠতে পারেন। এর কারণ যেভাবে তিনি তার অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়েছেন তা সত্যিই ভয়ানক!

rape-later

চিঠিতে সারা বলেন, ‘প্রিয় ব্যক্তি, আমি আপনাকে এই ডিসেম্বরের ঠান্ডা বিকেলে লিখছি, আমাকে ধর্ষণচেষ্টার প্রায় এক বছর পর। কারণ এত দিনে প্রথমবারের মতো কাগজ-কলম নিয়ে বসার মতো যথেষ্ট শক্তি অর্জন করেছি আমি। আমি আপনাকে লিখছি কারণ আজ বিকেলে আমাদের আবার দেখা হলো। তবে আশপাশের পরিবেশ আগের মতো ছিল না। আপনার হাত পিছমোড়া করে বাঁধা ছিল, সে দুটি আমার শরীরকে আঁকড়ে ধরার মতো অবস্থায় ছিল না। ’

সারার চিঠিটি হুবহু বাংলায় তুলে ধরা হলো-

সুপ্রিয়,
আমি আপনাকে ডিসেম্বরের ঠান্ডা বিকেলে লিখছি, আমাকে ধর্ষণচেষ্টার প্রায় এক বছর পর। কারণ এতোদিনে প্রথমবার কাগজ-কলম নিয়ে বসার মতো যথেষ্ট শক্তি অর্জন করেছি। আমি আপনাকে লিখছি কারণ, আজ বিকেলে আমাদের আবার দেখা হলো। তবে আশপাশের পরিবেশ আগের মতো ছিল না। আপনার হাত পিছমোড়া করে বাঁধা ছিল, যেগুলো আমার শরীরকে আঁকড়ে ধরার মতো অবস্থায় ছিল না।

আপনি বলেছেন যে, আপনি যা করেছেন তা খুব অল্প সময়ের জন্য ছিল। আপনি আমাকে ২০ মিনিটের জন্য একটি ঘরে বন্দী করেননি, আমার পোশাক খুলে ফেলার চেষ্টা করেননি। আপনি আমাকে ধর্ষণের চেষ্টা করেননি। আপনি বলেছেন, মেঝেতে আমার শরীরের ওপর আপনার শরীর ছিল কারণ অতিরিক্ত মদ্যপানের জন্য পা হড়কে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলাম আমি। আপনি আমাকে জোর করে মাটিতে ফেলে আমার ওপর চেপে বসেছিলেন। এরপর আমি আপনাকে আমার দু’পায়ের মাঝখান থেকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে ফেলতে পেরেছিলাম। কারণ আপনি সিদ্ধান্ত নেননি যে, আপনি থেমে যাবেন।

আমি আপনাকে থামতে বাধ্য করেছিলাম। আপনার চোখগুলো ছিল কালো এবং আপনি সরাসরি আমার আত্মার ভেতর তাকিয়ে ছিলেন। এ সময় আপনি বললেন, আপনি আমাকে ছাড়তে চান না। আমি না বলেছিলাম, জানিয়েছিলাম যে, আমি ট্যাম্পুন পরে আছি। এরপর আমি আপনাকে লাথি মারলাম, ভয়ে চিৎকার করলাম এবং কাঁদতে শুরু করলাম। আপনি আমাকে ধরে শরীরজুড়ে ব্যথা দিতে লাগলেন। অথচ আপনাকে আমি আমাকে ছোঁয়ার অধিকার দেইনি।

আমার মতো যে নারী আপনার মতো পুরুষদের হাতে নির্যাতিত হয়েছেন, আদালতে আমি তাদের পক্ষে কথা বলবো। প্রতিটি ধর্ষিত, নির্যাতিত, আক্রান্ত, ইচ্ছের বিরুদ্ধে স্পর্শ হওয়া নারীর পক্ষে কথা বলবো।

আমি বুঝতে পারছিলাম না যে, আমার সঙ্গে কী হচ্ছে। ঠিক সেই সময়ে আদালত থেকে আমার কাছে চিঠি আসে। এরপরই আমি বুঝতে পারি, যে বিষয়টি সারা বছর এড়ানোর চেষ্টা করেছি তার মুখোমুখি হতে হবে। যাতে আমার অবস্থান অন্যকেও অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়তে উৎসাহিত করে।

আমি চাই এটা পুরুষরাও পড়ুক। যাতে একজন আক্রান্ত নারীর মতো তারাও অনুভূতিটা বুঝতে পারে। আমি চাই এসবের পরিবর্তন হোক।

ইতি
সারা রিওবাক