• আজ শুক্রবার। গ্রীষ্মকাল, ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ৪:৪৩মিঃ

কুড়িগ্রামে ব্রম্মপুত্র নদে পানি নাই তবুও চলছে সর্বনাশা ভাঙ্গন

⏱ | বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬ 📁 দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, নিজস্ব প্রতিবেদক: পৌষে ব্রম্মপুত্র নদে তেমন স্রোত নেই। পানিও তলানীতে। তার পরেও চলছে অবিরাম সর্বনাশা ভাঙ্গন। সরেজমিন গতকাল নাগেশ্বরী উপজেলার কালীগঞ্জ ইউনিয়ন ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে।

nodi

কালীগঞ্জ উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তবারক আলী জানান, গত এক মাসে কুমলিয়ারপাড়, ধনীরভিটা ও খেলারভিটা গ্রাম তিনটির প্রায় ১৫০ একর আবাদী জমি ও ২৭টি বসতভিটা ব্রম্মপুত্র নদের পেটে চলে গেছে। বসতভিটা হারা পরিবারগুলো এখন ওয়াপদা বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে।

খেলারভিটা গ্রামের আবু তালেব, হযরত আলী ও পনির উদ্দিন জানান, সাধারন ভাবে দেখলে মনে হয় ব্রম্মপুত্র নদে পানি কম। কিন্তু নদে নামলে বোঝা যায় ওর গভীরতা ও স্রোতের গতি কত তীব্র। আমাদের অনেক আবাদী জমি নদের গর্ভে বিলীন হয়ে আমরা অসহায় হয়ে গেছি।

কালীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান প্রধান জানান, ব্রম্মপুত্র নদের ভাঙ্গনে অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। সম্প্রতি যে ২৭টি পরিবার ভাঙ্গনে বাড়ীর ভিটাচালা হারিয়েছে তাদের জন্য জিআর চাউল ও নগদ টাকা এবং টিন বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। ব্রম্মপুত্র নদের ভাঙ্গন প্রতিরোধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডে লিখিত ভাবে প্রতিবেদন জানানো হয়েছে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, নদনদীর ভাঙ্গন এটা প্রকৃতিগত ভাবে হয় এটা কিভাবে রোধ করবেন। নদীর এপার ভাঙ্গে ওপার গড়ে এটাই নদীর ধর্ম। তবে প্রতিটি ভাঙ্গনের তথ্য আমরা উর্দ্ধতন কতৃপক্ষকে জানাই এবং প্রতিরোধের জন্য বরাদ্ধ চাই। তবে আপাতত আমার হাতে কোন বরাদ্ধ নাই।