• আজ বুধবার। গ্রীষ্মকাল, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১১:২৩মিঃ

প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটি: আবারো সাতজনকে রিমান্ডে পাঠালো আদালত

৪:১৯ অপরাহ্ন | শুক্রবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী বিমানে কারিগরি ত্রুটির ঘটনায় বিমানের সাত কর্মকর্তাকে আবার আট দিনের রিমান্ডে দিয়েছে আদালত। পুলিশ তাদেরকে সাত দিনের রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করে তাদেরকে আবার জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে।

শুক্রবার ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট ওয়েজ কুরুনী খান চৌধুনী এই আদেশ দেন। রিমান্ডে দেয়া এই কর্মকর্তারা হলেন বিমানের প্রধান প্রকৌশলী (প্রোডাকশন) দেবেশ চৌধুরী, প্রধান প্রকৌশলী (কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স) এস এ সিদ্দিক ও প্রিন্সিপাল ইঞ্জিনিয়ার (মেইনটেন্যান্স অ্যান্ডসিস্টেম কন্ট্রোল) বিল্লাল হোসেন, প্রকৌশল কর্মকর্তা সামিউল হক, লুৎফর রহমান, মিলন চন্দ্র বিশ্বাস ও জাকির হোসাইন।

গত ২৭ নভেম্বর হাঙ্গেরি সফরে যাওয়া প্রধানমন্ত্রীর বিমান তুর্কমেনিস্তানে জরুরি অবতরণে বাধ্য হয়। বিমানের তেলের প্রেসার কমে যাওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেন পাইলট। দেশে ফিরে ৩ ডিসেম্বরের সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী একে দুর্ঘটনা বলেছিলেন। পরে ৮ ডিসেম্বর সংসদে তিনি একে মনুষ্যসৃষ্ট হত্যাচেষ্টা আখ্যা দেন।

pm-biman

এই ঘটনায় গঠন করা তিনটি তদন্ত কমিটিই একে মানবিক অবহেলা হিসেবে চিহ্নিত করে। এসব কমিটির অনুসন্ধান বলছে, প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমানের বাম পাশের ইঞ্জিনের ওয়েল প্রেসারের বি-নাট ঢিলা ছিল। বিমানের নির্মতা প্রতিষ্ঠান বোয়িংএর সঙ্গেও এই ঘটনায় যোগাযোগ করে সরকার। বোয়িং জানায়, যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে এমনটি হওয়ার কোনো কারণ নেই।

গত সপ্তাহে মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়া প্রতিবেদনে ঘটনাটি এটি নাশকতা কি না তা যাচাইয়ের পরামর্শ দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের তদন্ত কমিটি। এরপরই মামলায় হয় এবং সাত কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গত ২১ ডিসেম্বর রাতে গ্রেপ্তারের গত ২২ ডিসেম্বর তাদের আদালতে হাজির করা হলে আদালত সবাইকে এক সপ্তাহের রিমান্ডে দেয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ইন্সপেক্টর মাহবুবুল আলম পুনরায় তাদের ১০ দিন করে এই রিমান্ড আবেদন করেন।

গত ২২ ডিসেম্বর আদালতে আত্মসমর্পণকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের প্রকৌশল বিভাগের কর্মকর্তা মোহাম্মদ রোকনুজ্জামান ও টেকনিশিয়ান সিদ্দিকুর রহমানকেও সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। গত ২৮ ডিসেম্বর আদালত এই আদেশ দেয়।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ প্রধানমন্ত্রীর বিমানে ত্রুটিকে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা হিসেবেই দেখছে। প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পর পরই রাতে গণভবনে গিয়ে এই ঘটনার তদন্ত করার দাবি জানান।