• আজ ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ত্বকের পরিচর্যায় কাঁচা হলুদের ব্যবহার

২:১২ অপরাহ্ন | শনিবার, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৬ লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক: রূপচর্চার ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক ভালো একটি উপাদান হচ্ছে হলুদ। রান্নার পাশাপাশি রূপচর্চায়ও এর ভূমিকা অনেক। সৌন্দর্য চর্চায় এটি প্রাচীনকাল থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। চলুন জেনে নেই এর গুনাগুণ সম্পর্কে।

holud

হলুদ ও লেবুর রস: লেবুর রসে আছে ব্লিচিং উপাদান এবং হলুদে আছে ত্বক উজ্জ্বল করার উপাদান। তাই এই দুই উপাদান ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। হলুদের গুঁড়া ও লেবুর রস মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে ব্যবহার করুন। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

হলুদ ও মধু: ত্বকের ভেতরের আর্দ্রতা রক্ষা করে ত্বককে ফুটিয়ে তুলতে হলুদ ও মধুর মিশ্রণ সাহায্য করে। এছাড়া মধু ও হলুদের তৈরি প্যাক ত্বক স্বাভাবিকভাবে চকচকে ও সুন্দর করে তোলে।

হলুদ-ময়দা: যেকোনো ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক স্ক্রাব তৈরি করতে হলুদ ও ময়দা মিশিয়ে নিতে পারেন। এটি ত্বক থেকে অতিরিক্ত তেল কমায়।

হলুদ ও নারিকেল তেল: হলুদ ও নারিকেল তেলে আছে অ্যান্টিফাঙ্গাল উপাদান। নারিকেলের তেল ভালো ময়েশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করে। খাঁটি নারিকেল তেলের সঙ্গে হলুদের গুঁড়া মিশিয়ে নিন। এটি ত্বকে লালচেভাব, সংক্রমণ ও শুষ্কতা কমাতে সাহায্য করে।

হলুদ-পানি: ত্বকের অবাঞ্ছিত লোমের বৃদ্ধি কমাতে হলুদ ও পানির মিশ্রণ তৈরি করে ব্যবহার করতে পারেন। যে স্থানে অবাঞ্ছিত লোমের বৃদ্ধি কমাতে চান সেখানে হলুদ ও পানির তৈরি মিশ্রণটি একটি অসমতল ও পরিষ্কার বস্তুর সাহায্যে ঘষতে হবে। শুকিয়ে এলে তা ধুয়ে ফেলতে হবে।