• আজ রবিবার। গ্রীষ্মকাল, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। বিকাল ৩:১২মিঃ

‘হত্যাকারীদের মধ্যে মাত্র একজনের মুখ সামান্য খোলা ছিল’

৩:১০ অপরাহ্ন | রবিবার, জানুয়ারী ১, ২০১৭ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ

গাইবান্ধা প্রতিনিধি – গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের বড় ভাই বলেছেন, হত্যাকারীরা যখন এসে এমপির খোঁজ করছিলেন তখন এমপি তাদের ভেতরে ডেকে নিয়েছিলেন এবং এমপি তাদের সঙ্গে কিছু সময় কথা বলেছিলেন।

তিনি আরো বলেন, তাকে খুব কাছ থেকে গুলি করা হয়েছিল। যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের সবারই মুখ মাফলার দিয়ে জড়ানো ছিল। মাত্র একজনের মুখ সামান্য খোলা ছিল, যা দেখে তার গায়ের রং ফর্সা মনে হয়েছিল।

liton-deathbodyএর আগে কখনো এমপিকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছিলো কিনা জানতে চাইলে এমপির বড় ভাই বলেছেন, এর আগে এমন কোনো হত্যার হুমকি আসেনি।

এই হত্যাকান্ডের তদন্তে পিবিআই’য়ের দুইটি দল পুলিশের অপরাধ তদন্ত শাখার কর্মকর্তা (সিআইডি) এবং র‌্যাবের একটি অংশসহ মোট ৫টি তদন্ত দল কাজ করছে। এই তদন্তে দলীয় কোন্দল, জামায়াত-শিবিরের সম্পৃক্ততা, জঙ্গিবাদসহ মোট তিনটি দিক গুরুত্ব পাচ্ছে বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ২ অক্টোবর এমপি লিটনের পিস্তলের গুলিতে আহত হয় গোপালচরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শাহাদত হোসেন সৌরভ (১২)। এ ঘটনায় সৌরভের বাবা সাজু মিয়া বাদী হয়ে ৩ অক্টোবর এমপি লিটনকে একমাত্র আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন।

গত ১৫ অক্টোবর গোয়েন্দা পুলিশ ঢাকার উত্তরা থেকে তাকে আটক করে। ২৪ দিন জেলহাজতে থাকার পর গাইবান্ধা জেলা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি।

অন্যদিকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ২৪ দিন চিকিৎসা নিয়ে গত ২৬ অক্টোবর সৌরভ বাড়ি ফেরে।

মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে এমপি নির্বাচিত হন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

এমপি লিটন হত্যাকাণ্ড: জড়িত সন্দেহে ১০ জন আটক

যেভাবে দুর্বৃত্তদের ছোঁড়া গুলিতে খুন হলেন সরকারদলীয় এমপি লিটন