• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সন্ধ্যা ৬:৩৭মিঃ

“সেই চাকুতেই যে স্ত্রীর মৃত্যু হবে বুঝতে পারিনি” মঠবাড়িয়ায় ঘাতক স্বামীর স্বীকারোক্তি

৬:১৫ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩, ২০১৭ দেশের খবর, বরিশাল

dfv


এস.এম. আকাশ, মঠবাড়িয়া থেকেঃ

“ভালবেসে বিয়ে করেছিলাম। নিজের জীবনের চেয়ে বেশি ভালবাসতাম আমার স্ত্রীকে। একটু না হয় নেশা করতাম, কিন্তু ভালবেসে ওকে ফিরে পেতে নিজের বুক ব্লেড দিয়ে ক্ষত-বিক্ষত করে ভালবাসার প্রমান দিয়েছি। তবুও আমাকে বুঝলো না। স্ত্রীকে ফিরে পেতে ভয় দেখানোর জন্য ৬০ টাকা দিয়ে বাজার থেকে একটা চাকু কিনি। কিন্তু সেই চাকুতেই যে স্ত্রী রাবেয়ার(৩২) মৃত্যু হবে বুঝতে পারিনি।” এভাবেই ঘাতক স্বামী সাগর সর্দার ওরফে মিন্টু সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১৪৪ ধারায় খুনের কথা অপকটে স্বীকার করলেন।

থানা ও পারিবারিক সূত্রে জানাযায়, এক সন্তানের জননী রাবেয়াকে গত সাত বছর আগে মুন্সিগঞ্জ জেলার ইসলামপুর গ্রামের নাদের সর্দারের ছেলে অটো চালক সাগর বিয়ে করে। বিয়ের পর থেকেই সাগর নেশার টাকার জন্য রাবেয়ার ওপর শারীরীক ও মানষিক ভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। এক পর্যায় গত ৬মাস আগে স্ত্রী রাবেয়া অতিষ্ট হয়ে ঢাকার বাসা থেকে পালিয়ে বাবার বাড়িতে এসে স্বামীকে তালাক দেয়। তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীকে ফিরে পেতে গত ৫ মাস আগে সাগর মঠবাড়িয়া রাবেয়ার বাবার বাড়িতে গিয়ে ব্লেড দিয়ে নিজের শরীর কেটে ক্ষত-বিক্ষত করে।

গত বুধবার রাতে রাবেয়া প্রকৃতির ডাকে ঘরের বাইরে গেলে ওঁৎ পেতে থাকা সাগর স্ত্রী রাবেয়াকে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য বুঝানোর চেষ্টা করে। রাবেয়া তালাক দেয়ার কথা বলে ফিরে যেতে অস্বীকার করলে ক্ষুব্ধ হয়ে সাগর হাতে থাকা ছুড়ি দিয়ে বুকে আঘাত করলে স্ত্রী রাবেয়ার মৃত্যু হয়। এলাকাবাসী রাতেই ঘাতক সাগরকে আটক করে থানা পুলিশে সোপর্দ করে।

মঠবাড়িয়া থানা অফিসার ইনচার্জ খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ঘাতক স্বামী সাগর তালাকপ্রাপ্ত স্ত্রীকে খুন করার পুলিশ ও ম্যাজিষ্ট্রেটের কাছে খুনের কথা অপকটে স্বীকার করে। এ মামলার অভিযোগপত্র শিঘ্রই আদালতে দাখিল করা হবে।