সংবাদ শিরোনাম

ছাত্রলীগ নেতার প্যান্ট চুরির ভিডিও ভাইরাল!পাটগ্রামে ইউএনও’র উপর হামলা, আটক ৬আগের সব রেকর্ড ভেঙ্গে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ৮৩ জনেরশফী হত্যা মামলা: মামুনুল-বাবুনগরীসহ ৪৩ জনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদনখালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় সারাদেশে দোয়া কর্মসূচিরোহিঙ্গা শিবিরে ফের অগ্নিকান্ডসালথায় তান্ডব: এসিল্যান্ডের বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগের সত্যতা মিলেনিশাহজাদপুরে কৃষকদের মাঝে হারভেস্টার মেশিন বিতরণচাঁদপুরে গণমাধ্যম সপ্তাহের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপিশ্রমিকদের যাতায়াতের ব্যবস্থা না করলে আইনি পদক্ষেপ : শ্রম প্রতিমন্ত্রী

  • আজ ৩০শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

আশ্চর্যজনক ঘটনা: ১৮ বছর ধরে পেটের ভিতরে থাকা কাঁচি নিয়েই জীবন যাপন, অবশেষে উদ্ধার!

২:৫১ অপরাহ্ন | বুধবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৭ চিত্র বিচিত্র, স্পট লাইট

চিত্র বিচিত্র ডেস্ক, সময়ের কণ্ঠস্বর – অপারেশন করার সময় পেটের ভিতর ছুরি ও কাঁচি রেখে সেলাই করে দেওয়ার ঘটনা নতুন কিছু নয়। কখনও অপারেশনের পরই ডাক্তারদের বিষয়টি মনে পড়ে, কখনও আবার পেটের ব্যথার তীব্রতায় রোগীই ডাক্তারের কাছে হাজির হন।

ফলে দ্বিতীয়বারের মতো অপারেশন থিয়েটারে ঢুকতে হয় রোগীকে। কিন্তু এবারে যা ঘটেছে এই ঘটনাটি আরও আশ্চর্যজনক।

ঘটনাটি ভিয়েতনামের। ১৯৯৮ সালে এক সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন ভিয়েতনামের নাগরিক মা ভ্যান নিয়াহ। নিয়াহকে যেতে হয় চিকিৎসকের ছুরি-কাঁচির নিচে। তখন সফল অস্ত্রোপচারের পর সুস্থ হয়ে ওঠেন তিনি। অন্য স্বাভাবিক মানুষগুলোর মতই জীবন যাপন করতে থাকেন। সেই অস্ত্রোপচারের পর প্রায় ১৮ বছর কেটে যায়!

pete-kachi

সম্রতি ১৮ বছর আগে অপারেশনের সময় পেটের ভেতরে রেখে দেয়া সেই এক জোড়া কাঁচি বের করা হয়েছে।

বিবিসির খবরে জানা যায়, ভুক্তভোগীর নাম মা ভান নাত। বয়স ৫৪। গেল মাসে এক সড়ক দুর্ঘটনায় তিনি আহত হন। তারপর তার শরীরে আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান করলে ডাক্তাররা দেখতে পান মলাশয়ের কাছে ঝকঝকে কাঁচি। একটি নয়, দুটি। লম্বায় প্রায় ১৫ সেন্টিমিটার বা ৬ ইঞ্চির মতো।

চিকিৎসকরা জানান, ১৯৯৮ সালে মা ভান নাতের শরীরে অপারেশনের সময় ভুলে তার পেটের ভেতর এ কাঁচি দুটি রেখে দেয়া হয়। তখনও সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার পর তাকে অপারেশন করা হয়।

ভান জানান, মাঝে মধ্যে তার পেটে ব্যথা হতো। এর বাইরে তিনি আর কিছু বুঝতে পারেননি। কাঁচি বের করার পর তিনি এখন সুস্থ হয়ে উঠছেন। ভিয়েতনামের দক্ষিণাঞ্চলীয় একটি প্রদেশে এ ঘটনা ঘটে। নিয়াহ এখন সুস্থ হয়ে উঠছেন।