• আজ বুধবার। গ্রীষ্মকাল, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। রাত ১০:৪৪মিঃ

সৌদি আরবের মক্কায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত হতভাগ্যদের সবাই বাংলাদেশি

৯:৩৩ অপরাহ্ন | বুধবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৭ Breaking News, প্রবাসের কথা, ফিচার, স্পট লাইট

প্রবাসের কথা ডেস্ক, সময়ের কণ্ঠস্বর – সৌদি আরবের মক্কায় সিডর কোম্পানীর শ্রমিক ক্যাম্পে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত হতভাগ্য ৫ জনের পরিচয় মিলেছে। তারা সবাই বাংলাদেশি নাগরিক।

আজ বুধবার সন্ধ্যায় জেদ্দা কনস্যুলেটের প্রথম সচিব (শ্রম) আলতাফ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন শরিফুল ইসলাম, পিতা- আব্দুর সবুর গ্রাম- আলোকদিয়া, ডাকঘর- চৌবাড়িয়া, থানা- টাঙ্গাইল সদর, টাঙ্গাইল। শহিদুল ইসলাম, পিতা- হানিফ, গ্রাম সিকদার পাতা, ডাকঘর- দেওয়পাড়া, থানা টাঙ্গাইল সদর, টাঙ্গাইল। মোহাম্মদ আরিফ হোসেন, পিতা- মোহাম্মদ চান মাসুদ, গ্রাম- মাটিয়াটা, ডাকঘর- পেচারআটা, থানা- ঘাটাইল, জেলা টাঙ্গাইল। সোহেল রানা, পিতা- আব্দুল ভূঁইয়া, গ্রাম ও ডাকঘর কুঠিরবাজার, থানা- কসবা, জেলা- বি, বাড়িয়া।

অপর আর এক জন হল আরিফ হোসেন, পিতা- নান্নু মিয়া, গ্রাম- মহাবর, ডাকঘর- পেচারআটা, থানা- ঘাটাইল, জেলা- টাঙ্গাইল। তিনি গুরুতর আহত হয়ে চারদিন আইসিউতে চিকিৎসাধীন থাকার পর অবশেষে মারা গেছেন। বুধবার সকালে আল-নূর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

mecca-gas-cylinder-explosion-victims-in-bangladesh

আলতাফ হোসেন জানান, মক্কা সিডর কোম্পানিতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে কথা আমারা শুনার সাথে সাথে কনস্যুলেটের একজন কর্ম কর্তাকে ঘটনাস্থলেই পাঠিয়েছি এবং বাংলাদেশী যারা আহত হয়েছেন তাদের চিকিৎসার ব্যাপারে কোম্পানির সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি আর যারা নিহত হয়েছেন তাদের স্থায়ীভাবে দাফন/বাংলাদেশে প্রেরণের বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ পরামর্শ ও এই সংক্রান্ত কাগজপত্র কোম্পানীর প্রতিনিধির কাছে হস্তান্তর করেছি। আর যারা আহত আছেন তাদের দেখভাল করার জন্য কনস্যুলেটের একজন কর্মকর্তা নিয়োগ দেন বলেও জানান তিনি।

জানা গেছে, গত ২৯ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার ৫টার দিকে সৌদি আরবের মক্কা শহর হতে ৩৫ কি: মি: দূরবর্তী তায়েফ জেদ্দা বাইপাস সড়কের কাছে তরিক আল-খাওয়াজাত নামাক স্থানে সিডর কোম্পানির শ্রমিক ভিলায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই ৪জন নিহত হন এবং ৫ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে মক্কা আল-নূর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের মধ্যে দুইজনে অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন ডাক্তার।

আহতরা হলেন, ময়মনসিংহ জেলার গরগাও উপজেলার নওটানা গ্রামের মোহাম্মদ ইসমাইলের ছেলে খায়রুল,চরকামারী গ্রামের মকবুল মিয়ার ছেলে রুবেল, নয়াপাড়া গ্রামের সূলতান মিয়া। এর মধ্যে খাইরুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে আইসিউতে রাখা হয়েছে।

এদিকে নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, জীবন-জীবিকার তাড়নায় ২০০৬ সালে সৌদি আরব পাড়ি জমায় আরিফুল। নানা টানাপোড়েন থাকার পরও পিতা-মাতাসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কোনো মতে দিনাতিপাত করছে তার পরিবার। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস দেখুন গত ২৯ ডিসেম্বর সৌদি আরবের মক্কায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে গুরুতর আহত হন আরিফসহ ৫ বাংলাদেশি।