• আজ রবিবার। গ্রীষ্মকাল, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। দুপুর ২:২৭মিঃ

শিবগঞ্জ সীমান্তে অবৈধভাবে গরু প্রবেশ : সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত

৬:১০ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী ৫, ২০১৭ দেশের খবর, রাজশাহী

মোঃ কামাল হোসেন, শিবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের কয়েকটি বৈধ বিট/খাটাল ছাড়ায় অবৈধভাবে গরু আসার ফলে সরকার বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এসব চোরাই গরু আনতে সহায়তা করছে কিছু দালাল।

cow

জানা গেছে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সীমান্তে ভারতীয় গরু আনা-নেয়া ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে বিট এবং ভারতীয় গরু করিডোরের মাধ্যমে ছাড়পত্র নিয়ে নির্বিঘ্নে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাবার অংশ হিসেবে বিট বা খাটাল প্রথা চালু করে। এর অংশ হিসেবে উপজেলার মনোহরপুর ও মাসুদপুর বিওপির অধীনে বিট বা খাটালের অনুমতি দেয়। কিন্তু কিছুদিন ধরে প্রতি রাতেই মনোহরপুর, মাসুদপুর, শিংনগর, আজমতপুর সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় প্যাড ছাড়ায় চিহ্নিত দালাল ডাকনিপাড়ার শফিকুল ইসলাম শফি ডিলার, মনোহরপুরের আকবর, মান্নান, বেনজির, শিংনগরের সেন্টু বিওপিকে ম্যানেজ করে চোরাইপথে প্রায় ৫’শ গরু প্রবেশ করাচ্ছে এবং দালালরা প্রশাসনকে ম্যানেজের নামে গরু জোড়া প্রতি ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। তারা এসব গরু বিট বা খাটালে নিচ্ছে না, এমনকি কাস্টমস করিডোরও করছে না।

এতে সরকার ও বিট মালিকরা লাখ লাখ টাকা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ভারতীয় প্যাডের মাধ্যমে গরু আসলে বিওপি যেমন জ্ঞাত থাকে, তেমনি বিট খাটালের মালিকরাও পরবর্তীতে অবগত হয়। এতে গরু প্রবেশের নিরাপত্তার পাশপাশি রাখালদের পুঁজি হারানোর ভয় থাকে না। তবে মাঝে মধ্যে সীমান্তে বিজিবির টহল দল অবৈধ পথে আসা গরু আটক করলেও বেশীর ভাগ সুকৌশলে দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যাচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক বিট/খাটালের এক প্রতিনিধি জানান, ভারতীয় প্যাডে গরু আনলে বেশী খরচ হবে মর্মে গরু ব্যবসায়ীদের ভুল বুঝিয়ে দালালরা অবৈধভাবে গরু আনতে উৎসাহিত করছে। এতে বিট মালিকরা যেমন ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে, তেমনি সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে ৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নে অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল এসএম আবুল এহসান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, সীমান্তে অবৈধভাবে গরু প্রবেশে কোন ধরণের সুযোগ নেই। তারপরও কেউ গরু ঢোকালে সেসব গরু আটক করে কাস্টমসে চালান দেয়া হবে।