শপথের পর ট্রাম্পের প্রথম অভিযানে আল কায়েদের শীর্ষ তিন নেতাসহ ইয়েমেনে ৭০ জন নিহত

৭:৩৬ পূর্বাহ্ন | সোমবার, জানুয়ারী ৩০, ২০১৭ Breaking News, আন্তর্জাতিক, স্পট লাইট

আন্তর্জাতিক আপডেট-

ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবার তার প্রশাসনের অধীনে প্রথম অভিযানে আল-কায়েদার তিন শীর্ষ পর্যায়ের নেতা,  ৪১ আল-কায়েদা সদস্য ও বেসামরিক নারী শিশু নিহত হয়েছে।

৯ দিন আগে ক্ষমতা গ্রহণের পর ইয়েমেনে এটাই ট্রাম্পের প্রথম ‘সন্ত্রাস দমন’ অভিযান। বায়দা প্রদেশে ভূমিতে এক ঘন্টারও কম সময়ের এ অভিযান চালায় নেভি সিলের ৬নং টিমের কমান্ডোরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানান, বিমান হামলার চেয়ে স্থল হামলা যথেষ্ট ফলদায়ক বিবেচনায় আল-কায়েদার একটি শাখার প্রধান সদর দফতর লক্ষ্য করে এ হামলা পরিচালনা করা হয়।

trump attack

আন্তর্জাতিক গনমাধ্যমের খবর মতে, ইয়েমেনের বাইদা প্রদেশে মার্কিন সামরিক বাহিনীর স্থল ও বিমান হামলায় অন্তত ৭০  জন নিহত হয়েছে । নিহতদের মধ্যে ৪১ আল-কায়েদা সদস্য রয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস এর খবরে বলা হয়েছে, অ্যাপাচি হেলিকপ্টার থেকে মার্কিন প্যারাট্রুপাররা ইয়েমেনের বাইদা প্রদেশের কিফা জেলার ইয়ালকা গ্রামে অবতরণ করে ব্যাপক অভিযান চালায়। এতে ৩০টি অ্যাপচি হেলিকপ্টার ও ড্রোন অংশ নেয়। মার্কিন অভিযানে নিহত ৪১ আল-কায়েদা সদস্য ছাড়াও বেসামরিক নাগরিকের মধ্যে কয়েকজন নারী ও শিশু রয়েছে। অভিযানের সময় সংঘর্ষে একজন মার্কিন সেনা নিহত হয়েছে।

ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানিয়েছেন, খুব ভোরে আল-কায়েদা নেতা আবদুর রাউফ আদ-দাহাবের বাড়িতে ড্রোন থেকে বোমা হামলার মাধ্যমে এ অভিযান শুরু হয় এবং এর কিছুক্ষণ পরই হেলিকপ্টার থেকে প্যারাট্রুপার নামানো হয়। আল-কায়েদা এ নেতার বাড়ির সবাই বোমা হামলায় নিহত হয়েছে।

trump-attack-yemen-

পেন্টাগনের সেন্ট্রাল কমান্ডার জেনারেল জোসেফ ভোটাল এক বিবৃতিতে বলেন, ‘আমাদের একজন এলিট সদস্যের মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত। বিশ্বব্যাপী নিরীহ লোকদের যারা হত্যা করছে তাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এ আত্মত্যাগের মূল্য অত্যন্ত মূল্যবান’। বিবৃতিতে বলা হয়, সামরিক অভিযান পরিচালনায় সহায়তার জন্য ক্র্যাশ-ল্যান্ডিংয়ের সময় আরো দু’জন সেনা সদস্য আহত হয়েছে।

ইয়েমেনে  সরকারি  বাহিনীর সঙ্গে জঙ্গিদের সংঘর্ষে হত শতাধিক

ইয়েমেনে সরকারিবাহিনীর সঙ্গে শিয়া জঙ্গিদের সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে শতাধিক মানুষের। সেনাবাহিনী ও হাসপাতাল সূত্রে গতকাল জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সংঘর্ষে জঙ্গি ও সেনা মিলিয়ে ১০০ জনেরও বেশি মানুষ মারা গেছেন। লোহিত সাগর তীরবর্তী হোদেইদা শহরের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ৯০ জন হুথি জঙ্গির লাশ। এছাড়াও এডেনের সাদার্ন পোর্ট সিটিতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে ১৯ সৈনিকের লাশ। ইরানের মদতপুষ্ট হুথি জঙ্গিদের উৎখাত করতে চলতি বছরের শুরু থেকেই তুমুল সংঘর্ষ শুরু হয়েছে ইয়েমেনের মোখার শহরে।