সাভারে প্রশাসনের নাকের ডগায় নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে শিশু খাদ্য

১:৪১ অপরাহ্ন | সোমবার, জানুয়ারী ৩০, ২০১৭ ঢাকা, দেশের খবর, স্পট লাইট

আনোয়ার হোসেন রানা, স্টাফ রিপোর্টার: সাভারে প্রশাসনের নাকের ডগায় বসে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিত্যদিন তৈরি হচ্ছে অনুমোদনবিহীন শিশুখাদ্য ‘সন্দেশ’। প্রশাসনের নীরব ভুমিকার কারনে কারখানাগুলোর অসাধু ব্যবসায়ীরা নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে সন্দেশ তৈরি করে যাচ্ছেন।

অভিযোগ আছে, এসব অসাধু ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে পৃষ্ঠপোষকতা করছেন স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি। প্রশাসনের এ নিরব ভূমিকা জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। শিশুদের জন্য তৈরি এ সব সন্দেশে ব্যবহার করা হচ্ছে বিষাক্ত রং ও কেমিক্যাল।

unnamedএছাড়াও মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বিভিন্ন উপাদানও ব্যবহার করা হচ্ছে এসব কারখানায়। যা খেয়ে শিশুরা ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হতে পারে।

এলাকাবাসী জানায়, সাভারের বাড্ডা ভাটপাড়া এলাকায় আফজাল মিয়া, লুৎফর রহমান, সুমন আলী ও মমিন মিয়া পৃথক স্থানে গড়ে তুলেছেন অনুমোদনবিহীন শিশু খাদ্য ‘সন্দেশ’ তৈরির কারখানা। সন্দেশ তৈরিতে যে ময়দা ও রং মেশানো হচ্ছে সেগুলোর সব কিছুতেই বিষাক্ত উপাদান রয়েছে। ময়দা মাখানোর কাজ চলছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে। অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে চলছে সন্দেশ তৈরির কাজ। কর্মচারীরা সন্দেশ তৈরির কাজ করছেন। সন্দেশ বানিয়ে বস্তায় করে শুকিয়ে তা প্যাকেট করছেন নোংরা পরিবেশে।

শ্রমিকরা দিন রাত বড় বড় চুলায় ভেজাল গুড় জাল দিয়ে সন্দেশ তৈরি করেন। খালি গায়ে নোংরা পায়ে হাটা চলা আর শ্রমিকদের শরীর থেকে ঘাম যা খাবারের সাথে মিশছে। প্রত্যেকদিন প্রায় বিভিন্ন দোকানে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকার সন্দেশ বিক্রি করছেন মালিকরা।

এবিষয়ে সন্দেশ কারখানার মালিক সুমন আলী নোংরা পরিবেশে সন্দেশ তৈরির কথা স্বীকার করে বলেন, একটু একটু নোংরা পরিবেশে আমরা সন্দেশ বানাই। আগুন পানি যেখানে থাকবে সেখানে একটু নোংরা হবেই। এলাকাবাসী অবিলম্বে অবৈধ এসব নোংরা সন্দেশ তৈরির কারখানার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

এবিষয়ে সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ আবু নাসের বেগ জানান, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে এসব নোংরা সন্দেশ মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। অবিলম্বে এসব অবৈধ নোংরা সন্দেশ তৈরির কারখানাগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।