সংবাদ শিরোনাম

বাংলাদেশকে তিস্তার পানি না দেয়ার সাফ ঘোষণা মমতারশ্বশুরবাড়ি যাওয়ার আগে কাঁদতে কাঁদতেই মারাই গেলেন কনে!এবার ‘টোকাই’ হয়ে আসছেন হিরো আলমহাসপাতালের ওষুধ পাচারের ছবি তোলায় ১০ সংবাদকর্মী তালাবদ্ধবঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ স্বাধীনতার প্রকৃত ঘোষণা: প্রধানমন্ত্রীনির্মাণকাজ শেষের আগেই ‘মডেল মসজিদের’ বিভিন্ন স্থানে ফাটলআহসানউল্লাহ মাস্টারসহ ১০ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান পাচ্ছেন স্বাধীনতা পুরস্কারঐতিহাসিক ৭ মার্চের সুবর্ণ জয়ন্তী: টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মানুষের ঢলচট্টগ্রাম কারাগারে হাজতি নিখোঁজ, জেলার-ডেপুটি জেলার প্রত্যাহারদেবীগঞ্জে ট্রাক্টরের চাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু

  • আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জেনে নিন গোসল ছাড়াই সুন্দরী হিম্বা উপজাতির রূপের রহস্য!

৬:৪৮ অপরাহ্ন | বুধবার, ফেব্রুয়ারী ১, ২০১৭ চিত্র বিচিত্র, লাইফস্টাইল

হিম্বা উপজাতি

ডাঃ মোঃ সাইফুল ইসলাম, লাইফস্টাইল কন্ট্রিবিউটর, সময়ের কণ্ঠস্বর। বিশ্বজুড়ে বসবাসরত উপজাতিদের ভাষা, সংস্কৃতি, আচার-আচরণে রয়েছে নানাবিধ বিচিত্ররা। এই বিচিত্ররা অধিকাংশ সময়েই আমাদের অবাক করে তোলে। অবাক করা বিচিত্র এমনই একটি উপজাতি হচ্ছে হিম্বা উপজাতি। আজ জানব তাদের বিস্ময়কর রূপচর্চা সম্পর্কে।

আফ্রিকার উত্তর নাবিবিয়ার কুনেইন প্রদেশে বাস করে হিম্বা উপজাতি। এই উপজাতির মহিলাদের গোসল করা নিষেধ! তথাপিও এই মহিলারাই আফ্রিকার সবথেকে বেশি সুন্দরী! চলুন জানা যাক, তাদের রূপের রহস্য।

পানিতে হাত ধোয়া নিষেধ

কুনেইন প্রদেশে বসবাসরত হিম্বা উপজাতিদের সংখ্যা ৫০ হাজারের মত। হিম্বা উপজাতির মহিলাদের আফ্রিকার সবথেকে সুন্দরী বলা হয়। কিন্তু আপনি অবাক হবেন জেনে যে, এই মহিলাদের গোসল করা নিষেধ। এমনকি পানি দিয়ে হাত ধোয়াও নিষেধ!

তবে নিজেদের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য তারা নিজস্ব পদ্ধতি ও উপকরণের মাধ্যমে প্রসাধনী সামগ্রী তৈরি করে।

নিজস্ব সৌন্দর্য উপকরণের ব্যবহার

হিম্বা উপজাতি মহিলারা প্রসাধনী সামগ্রী নিজস্ব কলা-কৌশল প্রয়োগ করে তৈরি করে। বিভিন্ন গাছপালা থেকে সংগৃহিত পাতা, ছোট ছোট শাখা-প্রশাখা ইত্যাদি পানিতে সিদ্ধ করে সেগুলো শরীর পরিষ্কার করার কাজে লাগায়। এর ফলে গোসল না করলেও শরীর থেকে কোন দূর্গন্ধ বের হয় না। হিম্বা পুরুষরা প্রয়োজন হলে গোসল করতে পারে।

রেড অকরি (Red Ochre)

হিম্বারা রেড অকরি (গিরিমাটি বিশেষ ও তার রং) নামক ক্রিম তৈরির করার জন্য বিখ্যাত। অকরি পাথর (হেমাটাইট) গুঁড়ো করে মাখনের সাথে মিশিয়ে হালকা গরম করে নেয়। যখন কিছু ধোঁয়া উঠতে থাকে তখন তা ত্বকে লাগায়। এজন্য এদের শরীর দেখতে লাল হয়।

এই ক্রিম শুধুমাত্র হিম্বা নারীরাই ব্যবহার করে। এটি সূর্যের রেডিয়েশন থেকে ত্বককে রক্ষা করে। পাশাপাশি পোকামাকড়ের কামড়ও প্রতিরোধ করে। ক্রিমটি ব্যবহারের ফলে শরীরে তেমন লোমও হয় না।

ছাগল অথবা গরুর চামড়া দিয়ে তৈরিকৃত মুকুট যা এরিম্বি নামে পরিচিত তা বয়ঃসন্ধিতে পৌঁছালে হিম্বা মেয়েদের পড়তে হয়।

ধোঁয়ায় গোসল

রেড অকরি ব্যবহার ছাড়াও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য হিম্বা নারীরা নিয়মিত ধোঁয়ায় গোসল করে নেয়। একটি পাত্রে ধোঁয়া উৎপন্নকারী কয়লা নিয়ে সেখানে Commiphora গাছের (এই গাছটি সুগন্ধ বের হয়) পাতা, ছোট ছোট শাখা-প্রশাখা যোগ করে।

ধোঁয়া উঠতে শুরু হলে এই ধোঁয়া শরীরে লাগায়। শরীরে ঘাম ছুটলে কম্বল দিয়ে ধোঁয়াসহ সমস্ত শরীর ঢেকে রাখে। এভাবেই তারা গোসলের কাজটি সম্পন্ন করে থাকে।