কুড়িগ্রামে আলু ক্ষেতে ‘নাভিধ্বসা’ রোগের আক্রমন : কৃষকের মাথায় হাত

১২:৪৭ অপরাহ্ন | রবিবার, ফেব্রুয়ারী ৫, ২০১৭ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, নিজস্ব প্রতিবেদক: কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলায় আলু ক্ষেতে ‘নাভিধ্বসা’ (লেট ব্লাইট) ও ছত্রাক রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। ঘন কুয়াশা ও কনকনে ঠান্ডায় আলু ক্ষেত গুলোতে বেড়েই চলেছে এ রোগের প্রকোপ। আলু ক্ষেতে ঔষধ ব্যবহার করেও কোন প্রতিকার না হওয়ায় দুঃচিন্তায় মাথায় হাত পরেছে কৃষকের।

alu-khate

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাজারহাট উপজেলার দূর্গারাম, হাড়িডাঙ্গা, উপনচৌকি, মেকুরটারী সহ শতাধিক আলু ক্ষেতের অধিকাংশ আলু ক্ষেত নাভিধ্বসা ও ছত্রাক জনিত রোগ আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। উপজেলার দূর্গারাম গ্রামের দবির উদ্দিন ও শমসের আলী জানান, তারা দুই জনে ৬ একর জমিতে ডায়মন্ড জাতের আলু চাষ করেছে। ফলন ভালোই হয়েছিল কিন্তু হঠাৎ নাভিধ্বসা রোগে আলু গাছের মরক শুরু হওয়ায় দুঃচিন্তা হচ্ছে। নাভিধ্বসা রোগে আক্রান্ত আলু ক্ষেতে প্রতিদিন স্প্রে করেও কাজ হচ্ছে না।

সরেজমিন হাড়িডাঙ্গা গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, অনেক কৃষকের ক্ষেতের আলু গাছ মরে গেছে। এখন আলু চাষের ক্ষতি কিভাবে পুষিয়ে নিবেন এই নিয়ে দুঃশ্চিন্তাগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকরা জানান, আবহাওয়ার উন্নতি ও দ্রুত এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব না হলে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়বেন। এই অঞ্চলে তাপমাত্রা নিম্নগামী হওয়ায় এবং নিয়মিত সূর্য্য তাপ বিকরন না করায় শত শত একর জমির আলু ক্ষেতে ব্যাপক নাভিধ্বসা ও ছত্রাক জনিত রোগ বিস্তার লাভ করেছে।

গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে রাজারহাট উপজেলার ছিনাই, ঘড়িয়ালডাঙ্গা, উমরমজিদ, নাজিমখা, বিদ্যানন্দ, চাকিরপশা ও রাজারহাট ইউনিয়নের শত শত একর আলু ক্ষেতে নাভিধ্বসা রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে রাজারহাট উপজেলায় ১ হাজার ৮৫০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হলে আলু চাষ হয়েছে ২ হাজার ২শ হেক্টর জমিতে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় আলু ক্ষেতে নাভিধ্বসা রোগে আক্রান্ত হওয়ার কথা স্বীকার করে রাজারহাট উপজেলা কৃষি অফিসার ষষ্টিচন্দ্র রায় সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আলু ক্ষেত রক্ষায় আমরা প্রতিদিন কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছি। ঠান্ডার প্রকোপ কমে গেলে এবং নিয়মিত আলু ক্ষেতে স্প্রে করলে এই রোগ সেরে যাবে।

কুড়িগ্রাম কৃষি বিভাগের উপ-পরিচালক মকবুল হোসেন সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, জেলায় এবার ৭,৪৭৭ হেক্টর জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে। আলু ক্ষেতে লেট ব্লাইট একটা অতিঠান্ডা জনিত রোগ। জেলার সব উপজেলাই এ রোগ কম বেশি আছে। তবে যে হারে সূর্যের তাপ পরছে তাতে সেরে যাবে। ভয়ের কোন কারন নাই।