সংবাদ শিরোনাম

ফতুল্লায় গ্যাসের সিলিন্ডার থেকে আগুন, একই পরিবারের ৬ জন দগ্ধগাজীপুর পিরুজালী থেকে কিশোরের লাশ উদ্ধারদেশেই টিকা উৎপাদনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রীকক্সবাজারে ইয়াবা সম্রাটের সহযোগীর বাড়ি থেকে ১ লাখ ২০ হাজার ইয়াবা উদ্ধারসিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ সস্ত্রীক করোনায় আক্রান্তরোহিঙ্গা শিশু অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় নারীসহ দু’জন গ্রেপ্তারবেলকুচিতে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে গেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান !জামালপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে রাতভর ধর্ষণ, গ্রেফতার মাদ্রাসার শিক্ষক‘করোনাকালের নারী নেতৃত্ব: গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’বগুড়ায় শিক্ষা প্রনোদনা পেতে প্রত্যয়নের নামে টাকা নেয়ার অভিযোগ

  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ভুল ট্রেনে ওঠার মাশুল,নানা হাত ঘুরে একের পর এক ধর্ষণের শিকার হতে হয় কিশোরীকে

৪:২৮ পূর্বাহ্ন | সোমবার, ফেব্রুয়ারী ৬, ২০১৭ প্রবাসের কথা, স্পট লাইট

নিউজ ডেস্ক,সময়ের কণ্ঠস্বর ~কিশোরীর যাওয়ার কথা ছিল ছত্তিশগড়। কিন্তু ভুল ট্রেনে উঠে পৌঁছে যায় দিল্লি। পড়ে যায় পাচারকারীদের নজরে। তারপরের তিন মাসে জীবনটাই বদলে গিয়েছিল ১৫ বছরের ওই কিশোরীর। নানা হাত ঘুরে একের পর এক ধর্ষণের শিকার হতে হয়। দিন কয়েক আগে ফাঁক বুঝে পালিয়ে আসতে পারে। ঘুরে বেড়াচ্ছিল দিল্লির হুমায়ুনের স্মৃতিসৌধের কাছে। খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করেছে মহিলা কমিশন। তার মুখ থেকেই টানা তিন মাসের ঘটনার বিবরণ শুনে চমকে যান কমিশনের সদস্যেরা।

ঘটনার সূত্রপাত গত বছরের অক্টোবরে। ছত্তিশগড়ে এক আত্মীয়ের বাড়ি যাবে বলে ট্রেনে উঠেছিল ১৫ বছরের ওই কিশোরী। ভুল করে দিল্লিগামী ট্রেনে উঠে পড়ে। দিল্লিতে যখন গিয়ে পৌঁছয় তখন বেশ রাত। অচেনা মুখের মাঝে ভীষণ অসহায় লাগছিল। ভয় লাগছিল। কী করবে বুঝে উঠতে পারছিল না। শেষে প্ল্যাটফর্মের এক জল বিক্রেতা তার দিকে এগিয়ে আসে।

vul trener masul

সব শুনে তাকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যায়। বলেছিল পরের দিন সকালে ঠিক ট্রেনে তুলে দেবে। কিন্তু হয় ঠিক তার উল্টো। বাড়িতে নিয়ে গিয়েই তাঁর উপর নির্যাতন শুরু করে দেয় জল বিক্রেতা আরমান। সারা রাত তাঁকে ধর্ষণ করে।

কিশোরী জানিয়েছে সকাল হতে ৭০ হাজার টাকায় পাপ্পু যাদব নামে একজনের কাছে বেচে দেয়। এই পুরো ঘটনায় নাকি আরমানকে সঙ্গ দিয়েছিল তার স্ত্রী হাসিনা।

এর পর পাপ্পু তাঁকে বিয়ে করবে বলে ফরিদাবাদে নিয়ে চলে যায়। পরের তিনটে মাস সেখানেই কাটে তার। রোজ তার উপর মানসিক এবং শারীরিক নির্যাতন করত পাপ্পু। কয়েক দিন আগেই পাপ্পুর অনুপস্থিতিতে সুযোগ পেয়ে ঘর ছেড়ে পালিয়ে আসে মেয়েটি। ফরিদাবাদের হজরত নিজামুদ্দিন স্টেশনে পৌঁছে যায়।

কিন্তু ভাগ্য সঙ্গ দেয়নি। স্টেশনেই দেখা হয়ে যায় আরমানের স্ত্রী হাসিনার সঙ্গে। ওষুধ মেশানো পানীয় খাইয়ে অজ্ঞান করার পর তাঁকে স্টেশনের বাইরে মহম্মদ আফরোজ নামে আর এক যুবকের কাছে ফের তুলে দেয় হাসিনা। স্টেশনের কাছেই এক অন্ধকার জায়গায় তাঁকে ধর্ষণ করে আফরোজ। হুঁশ ফিরলে কোনওক্রমে আফরোজের নাগাল থেকে পালায় ওই কিশোরী।