সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ডিমলায় পুলিশের মোটর সাইকেল বানিজ্য

৩:৪০ অপরাহ্ন | বুধবার, ফেব্রুয়ারী ৮, ২০১৭ দেশের খবর, রংপুর

sd


মাজহারুল ইসলাম লিটন,ডিমলা(নীলফামারী):

নীলফামারীর ডিমলায় রাতের আধারে মোটর সাইকেল আটক করে রমরমা বানিজ্যের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। সরকারী ঘোষনা অনুযায়ী রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেল আটকানোর অভিযান পরিচালিত হচ্ছে প্রতিদিনের যে কোন এক সময়। অভিযোগ উঠেছে রাতে মোটর সাইকেল ছেড়ে দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে ৩ – ৫ হাজার টাকা পয্যন্ত।

মোটর সাইকেল আটকের সময় একজন উপ-পরিদর্শক থানার কথা থাকলে মোটর সাইকেল অভিযানের সময় এএসআই দিয়ে চালানো হচ্ছে এসব অভিযান। সন্ধ্যায় অভিযানের পর রাত ২ টায় দিকে নগদ ৩ হতে ৫ হাজার টাকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেল। কৌশল খাটিয়ে মোটর সাইকেল মালিকদের নিকট কয়েকদিনের মধ্যে রেজিষ্ট্রেশন করে নিবে মর্মে অঙ্গিকার নামায় স্বাক্ষর নিয়ে তা ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। বনিময়ে নেয়া হচ্ছে টাকা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে  এক এসআই বলেন, ওসি স্যারের নির্দেশ অনুযায়ী রেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেলগুলি আটক করা হয়। অনেক সময় স্থানীয় পরিচিত লোকজনদের সাথেও অনেক খারাপ আচরন করে গাড়ী থানার ভিতরে এনে রাখি।

আর ওসি স্যার রাতের আধারে অভিযান পরিচালনাকারী কর্মকর্তা কিংবা আমাদের সাথে বিন্দুমাত্র পরামর্শ না করেই টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন কৌশলে গাড়ীগুলি ছাড়িয়ে দিচ্ছেন। এলাকার কিছু লোক যারা থানায় প্রতিনিয়ত দালালী করেন তাদের তদবিরে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন গাড়ী ছেড়ে দেওয়ায় এলাকার সাধারন গাড়ী মালিকেরা পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলছে। আইনের সঠিক প্রয়োগ না করে ওসি সাহেব দালালের মাধ্যমে আসা লোকজন ছাড়া আমাদের সাথে ঠিকমতো কথা না বলে দূব্যবহার করেন।

গত এক সপ্তাহেরেজিষ্ট্রেশন বিহীন মোটর সাইকেল ডোমার উপজেলার মেলাপাঙ্গা হাজ্বীপাড়া রফিকুল ইসলামের পুত্র নুরুজ্জামানের একটি বাজাজ সিটি ১০০ সিসি ও ডিমলা উপজেলার খগাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের চুকানীটারী গ্রামের মমিনুর ইসলামের পুত্র গোলাম রব্বানীর ডায়াং-৫০ সিসি একটি মোটর সাইকেল আটক করে। দালালদেও মাধ্যমে তা ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ডিমলা থানার এসআই খোরশেদ আলম বলেন, যারা মোটর সাইকেল রেজিষ্ট্রেশন করেনি তাদেরকে সময়সীমা বেধে দিয়ে মোটর সাইকেল ছেড়ে দেয়া হয়।

আগামী ৭ দিনের মধ্যে কাগজপত্র তৈরি না করলেও পুর্নরায় আটক হলে ছেড়ে দেয়া হবে না মর্মে জানান। ডিমলায় সাধারন মানুষের অভিযোগ এসআই খোরশেদ আলমের বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমার ও মোটর সাইকেলের বিষয়ে যা ইচ্ছে তাই করার ভুরিভুরি অভিযোগ জমিয়ে রেখেছেন। যা তারা ওসি সাহেবকে অভিযোগ না করে। ওপেন হাউস ডে’র দিনে সরাসরি পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ তুলে ধরার অপেক্ষায় রয়েছেন জানান।

ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, গাড়ীর মালিক পরিচিত হওয়ার কারনে অঙ্গিকার নামায় স্বাক্ষর নিয়ে রেজিষ্ট্রেশন বিহীন কিছু মোটর সাইকেল দালালদের তদবিরের কারনে ও চুক্তিকরা টাকা ভাগাভাগী করে তা ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। আর যারা দালাল মাধ্যমে বাদে সরাসরি গাড়ীর বিষয়ে যাচ্ছেন। তাদেরকে গাড়ীতো দেয়া দূরের কথা। সৌজন্য মূলক আচরন টুকুও করেন না তিনি। ডিমলা থানার ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন, উৎকোচ নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করলেও। বিভিন্ন সময় আটককৃত মোটর সাইকেল ছেড়ে দেয়ার কথা স্বীকার করে।