এবারের বই মেলায় রাজীব মীরের ভিন্নধর্মী এক সৃষ্টি ‘প্রেমে পড়েছে পাথর’ !

৩:৪০ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারী ৯, ২০১৭ শিল্প-সাহিত্য

শারমীন, স্টাফ রিপোর্টার, সময়ের কণ্ঠস্বর. স্বাধীন বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী মেলাগুলোর অন্যতম অমর একুশে গ্রন্থমেলা। ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দের ফেব্রুয়ারি মাসের ২১ তারিখ বাংলা ভাষার জন্য আত্মোৎসর্গের যে করুণ ঘটনা ঘটে, সেই স্মৃতিকে অম্লান রাখতেই এই মাসে আয়োজিত এই বইমেলার নামকরণ করা হয় ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। আপনার আমার আমাদের সখের আহ্লাদের ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’। সারা বছরের জমানো বইয়ের তালিকা যেন রাখাই হয় অমর একুশে গ্রন্থমালা কবে আসবে তারই অপেক্ষায়। বাঙালিদের  আত্মার এক মিলন মেলা । এই একমাস বাংলা একাডেমী ও সোহরাওয়াদি উদ্যান থাকে বই প্রেমীদের দখলে । সন্ধ্যা নামতেই থাকে প্রেমের ঢল মানে প্রেমীদের উপচে পড়া ভীড় ।

Capture.PNGrajib

বইয়ের সাথে পাঠকদের ভালবাসা বাড়াতেই যেন লেখকেরা ব্যস্ত সবসময়। তাইতো নতুন ধারায় নতুন নতুন বই উপহার দিয়ে যাচ্ছেন নবীন-প্রবীন লেখকেরা। এবারের মেলায় বই প্রেমীদের সাথে কথা বলে জানা যায় কবিতার বইয়ের প্রতি তাঁদের আগ্রহ একটু বেশিই । কবিতা দিয়ে মানুষ মানুষকে তার মরে যাওয়া চেতনা ফিরে পেতে সাহায্য করে বলেই সবাই কবিতা লেখে-পড়ে। তাই এই চাহিদার জন্য কবিতার বই এগিয়ে। পাঠকদের আশা ছন্দ-মাত্রা মিলিয়ে সুখ-দুখের মিশেলে কবিতায় ফিরবে প্রাণ।কবিতা কখনো হয়েছে আবেগ কেন্দ্রিক , কখনো অনুভূতিপ্রবণ মনের বহিঃপ্রকাশ, কখনো সমকালের মুখপাত্র, কখনো শাব্দিক ঝংকার, কখনো বেদনাবিধুর হৃদয়ের কান্না, কখনো শোকাহত হৃদয়ের আর্তনাদ, কখনো সংগ্রামী স্বশস্ত্র সৈনিক, কখনোবা অধিকার বঞ্চিত শ্রমজীবি মানুষের মুখপাত্র । কবিতার জন্য কবিতার সৃষ্টি; আর কারো জন্য নয়।

তারই ধারাবাহিকতায় নিত্য দিনের তথা কথিত প্রথা ভেঙে নতুন আলোকিত পৃথিবীর স্বপ্ন নিয়ে এ বছর অমর একুশে গ্রন্থ মেলায় বের হয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক রাজীব মীরের অন্যতম এক কবিতার বই ‘প্রেমে পড়েছে পাথর’ (অনন্যা প্রকাশনা থেকে)।  কবির এক সর্বোত্তম ভাবের সর্বোত্তম শব্দের সর্বোত্তম প্রকাশ ‘প্রেমে পড়েছে পাথর’। লেখাটি সমকালের স্মৃতি বা স্বপ্নকে তুলে আনতে সক্ষম এবং একই সাথে সমকালকে অতিক্রের যোগ্যতা রাখে। আঙ্গুলের কোমল রঙে লেপে সবুজ খামে কোন প্রজাপতিকে লেখা এক চিঠি যেন!  যেন কাঠ বিড়ালী ঘাস আঙুলে খুলে খুলে এই চিঠি পড়ে ! লেখকের অনেক কবিতার মধ্যে একটি কবিতা উল্লেখ না করে পারছি না !

 প্রেমের সদাই

[কাব্যগ্রন্থ: প্রেমে পড়েছে পাথর]

আজ শাঁখারিবাজারে যখন যাই তখন পকেটে পয়সা ছিল না
তবু তোমার জন্য নীল টিপ চাইতেই দোকানী সোজা না করে দিলো,
নীল টিপ হয় না
বহুদিন থেকে গাঢ় সবুজ আলতা খুঁজছি, তোমার পা রাঙ্গাবো-
নেই
সেই একই রঙের সিঁদুর আলতা আর টিপ থেকে ওরা কখন বের হবে
কেউ বলতে পারে না

একবার মনে হলো ঘুড়ি কিনি ,ভাবলাম কি হবে কিনে
তুমি উড়াবে না
মা মিষ্টান্নতে চোখ দিলাম, ছানা বিরিয়ানি নেব
তুমি বলবে ওটা পূজোর ছানা, বিরিয়ানী না
এরকম ভাবতে ভাবতে হেঁটে চলি , রুপা সোনা
আর তোমার লাল নীল প্রেমে পার হই দীর্ঘ গলি

যদিও টাকা যখন থাকে আর হাঁটা হয় না
প্রেমের সদাইপাতি কিনব-
মনেই থাকে না !

বাস্তবিক ভাবনার রঙে চমৎকার শব্দ চয়নে এক কথায় সাধারণ ভাষায় অসাধারণ বহিঃপ্রকাশ । এখানে এমন সব কবিতারা লেখা হয়ে আছে! এখানে আধেক জীবন ভোর ,আকাশ নীলা বরষা , এখানে নারীর মত একহাত ঘোমটা দিয়ে সারি কলা গাছ ! কবি যেন লাল কালিতে অজস্র ভালবাসার প্রেমপত্র পঙ্কটি মালা করেছে । সৌন্দর্যের ছন্দোময় অপার এক সৃষ্টি! পাঠকের মনে হবে এ যেন তারই সর্বোত্তম চিন্তা যা ক্রমশ ভেসে উঠছে তার স্মৃতিতে।

এদিকে তাম্রলিপি প্রকাশনা কিশোর উপযোগী মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস নিয়ে মোট ৬৪ জেলার কিশোর ইতিহাসের সিরিজ আকারে বই বের করেছে। তারমধ্যে রাজীব মীরের মুক্তিযুদ্ধের কিশোর ইতিহাস,‘ভোলা জেলা’ একটি পূর্ণাঙ্গ বই।

কবি ও গবেষক রাজীব মীরের পুরো নাম মীর মোশারেফ হোসেন। জন্ম ১৯৭৬ সালে, ভোলা জেলায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর শেষ করেন। পেশা জীবনে তিনি বৃটিশ কাউন্সিলে কিছু দিন কাজ করার পর চট্ট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন ছিলেন। বর্তমানে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন।

rajib-mir

এ পর্যন্ত তার প্রকাশিত গ্রন্থ জেন্ডার সাংবাদিকতা, কাব্যগ্রন্থ শুধু তোমার জন্য লিখি, মুক্তির ভাষা,সংবাদপত্রে শাহবাগ, মুক্তিযুদ্ধের কিশোর ইতিহাস, ভোলা জেলা ও প্রেমে পড়েছে পাথর। সামনের দিন গুলোতে বই প্রেমিদের জন্য আরও নতুন নতুন বই বের করা হবে বলে জানিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কবি ও গবেষক রাজীব মীর।