🕓 সংবাদ শিরোনাম

ইভ্যালিসহ দেশের ই-কমার্সে আরেকটা ‘ডেসটিনি চিত্র’র শঙ্কা রাব্বানীরসুবর্ণচরে স্বামীকে বেঁধে গৃহবধূকে ধর্ষণ, জড়িতদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধনটাঙ্গাইলে চুরিকৃত স্বর্ণালঙ্কারসহ আসামি আটকনোয়াখালীতে ২৪ ঘন্টায় ১১৫ জনের দেহে করোনা, শনাক্তের হার ২৮.৬ শতাংশসৌদিতে অবৈধভাবে প্রবেশ করলে ১৫ বছরের জেল ও জরিমানার ঘোষণামাদারীপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত শ্রমিকলীগ সভাপতির মৃত্যুভয়ংকর হচ্ছে খুলনা বিভাগ, একদিনেই রেকর্ড ৩২ জনের মৃত্যুটাঙ্গাইলে নতুন করে ১৪৯ জন করোনায় আক্রান্ত, ৩ জনের মৃত্যুইভ্যালিসহ ১০ ই-কমার্সে কেনাকাটায় নিষেধাজ্ঞা দিলো ব্র্যাক ব্যাংকনওমুসলিম ওমর ফারুক হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন-সংবাদ সম্মেলন, ৬ দফা দাবি

  • আজ বুধবার, ৯ আষাঢ়, ১৪২৮ ৷ ২৩ জুন, ২০২১ ৷

কুড়িগ্রামে পুকুর পূণঃখনন প্রকল্পে অনিয়ম, তদন্তের দাবী প্রকৃত ঠিকাদারদের


❏ সোমবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৭ দেশের খবর, রংপুর

ফয়সাল শামীম, নিজস্ব প্রতিবেদক-  কুড়িগ্রামের রাজারহাটে ‘রংপুর বিভাগে মৎস্য উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় পুকুর পূণঃখনন কাজের কোটেশনে ঘাপলার অভিযোগ উঠেছে।

অত্যন্ত গোপনীয়তার সাথে ভূয়া কোটেশন দেখিয়ে প্রকল্পের আওতায় কর্মরত ছিনাই ইউনিয়নের সম্প্রসারণ কর্মীকে পুকুর পূণঃখননের কাজ দেওয়া হয়েছে। এতে প্রতিযোগিতা করে কাজ পাওয়া থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ অপচয় হবে বলে অভিযোগ করেছেন প্রকৃত ঠিকাদারগণ।

indexএদিকে এই কোটেশনের বিষয়ে একেক কর্তৃপক্ষ একেক রকম বক্তব্য দিয়েছেন। তারা এ বিষয়ে একে অপরকে দায়ী করেছেন।

প্রকল্প পরিচালক ও জেলা মৎস্য কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন, কোটেশন উপজেলা মৎস্য অফিস থেকে করা হয়েছে। অপরদিকে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার দাবি, কোটেশন প্রকল্প পরিচালকের কার্যালয় থেকে করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে রংপুর বিভাগে মৎস্য উন্নয়ন প্রকল্পটি বিগত ২০১৫ সালে শুরু হয়েছে। আগামী ২০১৮ সালে এর কার্যক্রম শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। এ অবস্থায় ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরে এই প্রকল্পের আওতায় রাজারহাট উপজেলার আবাসন পুকুর ও উকিলের ছড়া বিল পূণঃখনন কাজের অনুমোদন আসে।

অভিযোগ উঠেছে, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বিষয়টি গোপন রেখে রংপুর বিভাগের আওতায় রাজারহাট উপজেলা মৎস্য অফিসের ছিনাই ইউনিয়ন সম্প্রসারন কর্মী শাহ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান রিজু খন্দকারের সাথে যোগসাজস করে তার নামে ভূয়া কোটেশন তৈরী করে তাকে কাজের নির্দেশ প্রদান করেছেন। উক্ত ব্যাক্তি এরই মধ্যে আবাসন পুকুর পূনঃখনন কাজ শুরু করলেও বর্ষার কারনে তা বন্ধ হয়ে যায়। অথচ কাজ ছাড়াই বিল উত্তোলনের পায়তারা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঠিকাদার সফিউর রহমান, লিয়াকত আলী বাবু ও আজাদ অভিযোগ করেন, পুকুর পূণঃ খননের কাজটির কোটেশন অত্যন্ত সঙ্গোপনে করা হয়েছে। এরফলে তারা প্রতিযোগিতা করে কাজ পাওয়া থেকে বঞ্চিত হওয়ার পাশাপাশি সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ অপচয় হবে বলে জানান।

এ ঘটনায় প্রকৃত ঠিকাদারদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। একাধিক ঠিকাদার অভিযোগ করেন, সরকারী নীতিমালা উপেক্ষা করে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ভূয়া কোটেশনের মাধ্যমে প্রকল্পে অস্থায়ী ভিত্তিতে কর্মরত কর্মী শাহ মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে রিজু খন্দকারকে পুকুর খননের কাজ দেওয়া হয়েছে। এই কর্মী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার নিকটাত্মীয়। তারা এর তদন্ত দাবী করেন।

উপজেলা মৎস্য কমিটির সদস্য আমজাদ হোসেন জানান, পুকুর পূণঃখননের কোটেশন বিষয়ে কিছু জানেন না। এ বিষয়ে কোন সভায় তাকে ডাকা হয়নি।

অপর সদস্য যোগেন্দ্র নাথ জানান, উকিলের ছড়া বিলটি মৎস্য চাষের জন্য তিনি লিজ নিয়েছেন। বিলটি পূণঃখননের কাজ প্রসঙ্গে তাকে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কাজগুলো মন্ত্রণালয় থেকে রিজু খন্দকার এনেছেন। সেই করবে। এরপর কবে কোটেশন করা হয়েছে জানি না।

কমিটির সদস্য উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মোঃ সাইদুর রহমান জানান, অনেক মিটিংয়ের চিঠিই তো আসে। সব মিটিংয়ে যাওয়া হয় না। তবে এ বিষয়ে কোন চিঠি পাননি। কোন সভাতেও যাননি।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল হাশেম জানান, কোটেশনের বিষয়ে কিছু জানেন না। তবে কয়েকদিন আগে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা তাকে আবাসনের পুকুর পূণঃখননের কাজ দেখাতে নিয়ে গিয়েছিলেন।

এ বিষয়ে রাজারহাট উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মাহমুদুন্নবী মিঠু বলেন, রংপুরে অবস্থিত পিডি অফিস থেকেই সবকিছু ডিল হয়। কোটেশন হয়েছে রংপুর থেকে। কাজ পেয়েছে রিজু। কত টাকার কাজ তার কাগজপত্র পিডি অফিসে আছে। সেখানে যোগাযোগ করুন। তাছাড়া রিজু’র খালাতো ভাই জয়েন্ট সেক্রেটারী-আগে জেলা মৎস্য অফিসার ছিলেন। তাকে দিয়ে কাজ করে নেয় আর কি।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ জিল্লুর রহমান জানান, এই প্রকল্পের কার্যক্রম পিডি অফিস থেকে সরাসরি উপজেলা অফিসের মাধ্যমে করা হয়। তারপরও জেনেছি, আবাসন পুকুর পূনঃখনন প্রকল্পের বরাদ্দ ৫ লাখ এবং উকিলের ছড়া বিল পূণঃখননের বরাদ্দ ৬ লাখ মোট ১১ লাখ টাকা।

এ বিষয়ে প্রকল্প পরিচালক মোঃ নজরুল ইসলামের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, দু’টি পুকুর পূণঃখনন কোটেশন রাজারহাট উপজেলা অফিস থেকেই হওয়ার কথা। এখন অফিসের কাজে ঢাকায় আছি। ফেরার পর কাগজপত্র দেখে বিস্তারিত তথ্য দেবো।