• আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কালিয়াকৈরে এপেক্স হোল্ডিং লিমিটেডের শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন নিয়ে মিথ্যাচার

৬:৫৯ অপরাহ্ন | সোমবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৭ ঢাকা, দেশের খবর

আলমগীর হোসেন, কালিয়াকৈর প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার এপেক্স হোল্ডিং লিমিটেডের শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের বিরুদ্ধে একটি গ্রুপ মিথ্যাচার করছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সংগঠনটির সভাপতি মোঃ হাবীবুর রহমান জানান, এ কারখানার সাবেক সিনিয়র অপারেটর ও সংগঠনের সাবেক সিনিয়র যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক মোঃ গোলাম মোস্তফা (৩৩), নুরুজ্জামান (৩৮), সুজন মিয়া (২৮)সহ অজ্ঞাত নামা ২০ থেকে ২৫ জন মিলে গোপনে এ্যাপেক্স হোল্ডিংস এর নামে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করে শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি করে আসছিল। বিষয়টি কোম্পানী বুঝতে পেরে তাকে চাকুরীচ্যুত করে।

এরই মধ্যে তাকে চাকুরীচ্যুত করার পর এপেক্স হোল্ডিং লিমিটেডে এর নিজস্ব লগো ব্যবহার করে একটি ফেজবুক আইডি ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের উস্কানীমূলক বক্তব্য ও মন্তব্য পোষ্ট করে। বিষয়টি কোম্পানির নজরে আসলে প্রথমে তাকে ডেকে এনে মৌখিক ভাবে সতর্ক করে দেয়া হয়। কিন্তু সে বিষয়টি কর্ণপাত না করে আরো বেশী পোষ্ট করতে থাকে। পরে কোম্পানীর পক্ষ থেকে তথ্য প্রযুক্তি সংশোধনী আইন ২০১০ এর ৫৭(১) ফেজবুকে মিথ্যা ও উস্কানীমূলক বক্তব্য প্রচার কারার কারনে একটি মামলা নং (৩২) দায়ের করেন।

মামলার বিষয়টি শুনে গোলাম মোস্তফা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে গত ৩০-১২-২০১৬ইং তারিখে গাজীপুর উপজেলা পরিষদের সামনে ওই গার্মেন্টসের চাকুরীচ্যুত ও নির্যাতনের শিকার শ্রমিক-কর্মচারীরা ইউনিয়নের সভাপতির বিরুদ্ধে নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

তিনি আরো জানান, মোস্তফা এ কারখানায় চাকুরী নেয়ার সময় তথ্য গোপন করে। সে তার জাতীয় পরিচয়পত্রে বাবার নাম মোঃ আনছার আলী দেখায়। কিন্তু তার শিক্ষা সনদে বাবার নাম মোহাম্মদ ওসমান গনি। এছাড়া মোস্তাফা এই কারখানার শ্রমিকদের নিয়ে একটি সমবায় সমিতি চালু করে। ওই সমিতির জমানো টাকাও আত্মসাৎ করে এবং ইউনিয়নের সদস্যদের স্বাক্ষর নকল করে তাদের বেতনের টাকা আত্মসাৎ করেছে। ইউনিয়নের সদস্য এবং শ্রমিকদের স্বাক্ষর নকল করে তাদের বেতনের টাকা আত্মসাৎ করে। পরে ওই শ্রমিক ও সদস্যরা ইউনিয়নে লিখিত অভিযোগ জানায়।

ইউনিয়নের সাংগঠনিক নিয়ম আনুযায়ী তাকে ইউনিয়ন থেকে বহিস্কার করা হয়। গোলাম মোস্তফা ইউনিয়নে সদস্য হয় ২০১৪ইং সালের ডিসেম্বর মাসে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সকল সাংগঠনিক কাজে উপস্থিত থাকেতে হবে। সে আনুপাতে গত ২৫-৩-২০১৫ইং তারিখের পর থেকে মোস্তফা ৭-১১-২০১৬ইং তারিখ পর্যন্ত অনুপস্থিত থাকায় তার সদস্য ও কার্যকরী কমিটি থেকে বাতিল হয়।

এছাড়া ওই মানববন্ধনের প্রত্যেক শ্রমিক ছিল তার ভাড়াটে। সে মানববন্ধনের মাধ্যমে সাংবাদিকদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে ভুল সংবাদ পরিবেশন করিয়েছে। আমি মিথ্যা ওই মানববন্ধনের প্রতিবাদ জানাচ্ছি।