• আজ রবিবার। গ্রীষ্মকাল, ৫ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৮ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। বিকাল ৩:১০মিঃ

চলে গেলেন খ্যাতিমান অভিনেতা বিনোদ খান্না

২:২২ অপরাহ্ন | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৭, ২০১৭ বিনোদন, স্পট লাইট

বিনোদন ডেস্ক- ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে হেরে গেলেন বলিউডের খ্যাতিমান অভিনেতা ও রাজনীতিবিদ বিনোদ খান্না। ৭০ বছর বয়সে আজ বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ের এক হাসপাতালে তিনি মারা যান।

Vinod-khanna-deathএনডিটিভির খবরে বলা হয়, কয়েক সপ্তাহ আগে হঠাৎ করেই পানিশূন্যতা দেখা দিলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তখন গুঞ্জন শোনা যায় ব্লাডারের ক্যান্সারের চিকিৎসা করাতেই তিনি হাসপাতাল গেছেন।

তবে বিনোদ খান্নার ছেলে রাহুল খান্না তখন জানিয়েছিলেন, পানিশূন্যতার কারণেই বাবাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি বলেন, ‘ভয়াবহ পানি শূন্যতা দেখা দিলে বাবাকে শুক্রবার হাসপাতারে ভর্তি করা হয়। অবস্থা দ্রুত নিয়ন্ত্রণ করা হয়। তখন তিনি সুস্থ হয়ে উঠেছিলেন। চিকিৎসকরা শিগগির ছেড়ে দেওয়ার কথাও বলেন। হাসপাতালে যে যত্ন নেওয়া হয় বাবার সেটির কোনো তুলনা নেই, তাঁর প্রতি সবারই মঙ্গলকামনা ছিল।’

এপ্রিলের প্রথম দিকে হাসপাতালে থাকাকালে অসুস্থ ও শীর্ণ বিনোদ খান্নার একটি ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। প্রিয় তারকার এই শারীরিক অবস্থার ছবি প্রকাশ নিয়ে ভক্তদের মধ্যে তখন ক্ষোভ দেখা যায়।

1493278044সত্তর ও আশির দশকের জনপ্রিয়তার চূড়া স্পর্শ করেন বিনোদ খান্না। ১৯৬৮ সালে ‘মান কি মিত’ ছবি দিয়ে বলিউডে পা রাখেন তিনি। সেখানে সুনীল দত্তের বিপরীতে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করেন বিনোদ। এরপর খলচরিত্রেই অভিনয় করে যাচ্ছিলেন তিনি, এরপর সত্তরের দশকের ‘পুরাব আউর পাশ্চিম’ ও ‘মেরা গাঁও মেরা দেশ’-এর মতো ছবিগুলোতে পার্শ্বচরিত্রে অভিনয় করে যাচ্ছিলেন বিনোদ। ১৯৭১ সালে ‘হাম তুম অউর ওহ’ ছবিতে মূল চরিত্রে কাজ করার সুযোগ পান বিনোদ। এরপর গুলজার পরিচালিত ‘মেরে আপনে’ ছবিতেও মূল ভূমিকায় অভিনয় করেন তিনি।

বিনোদ খান্না শুধুই বলিউডের একজন অভিনেতা ছিলেন না। তিনি একজন রাজনীতিবিদও ছিলেন। তিনি বিজেপিকে সমর্থন করতেন এবং ভারতের পার্লামেন্টের গুরদাসপুর পাঞ্জাবের লোকসভার সদস্যও ছিলেন।

তিনি একশরও বেশি বলিউডের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ২০১৬ এর শেষের দিকে তার শারিরীক অবস্থার অবনতির খবর পাওয়া যায়। মৃত্যুর সময় তার পাশে স্ত্রী কবিতা খান্না, পুত্র রাহুল, অক্ষয় ও সাক্ষী এবং কন্যা শ্রদ্ধা খান্না ছিলেন।