• আজ সোমবার। গ্রীষ্মকাল, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ। ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ। সন্ধ্যা ৭:০৭মিঃ

অভিবাসনের সর্বোচ্চ ব্যয়সীমা বেঁধে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার

৫:০৫ পূর্বাহ্ন | সোমবার, মে ১, ২০১৭ অর্থনীতি, প্রবাসের কথা, সাফল্যের বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক,প্রবাসের কথা,সময়ের কণ্ঠস্বরঃ জনশক্তি রফতানি খাতে শ্রমিক অভিবাসনের ব্যয় নিয়ন্ত্রণে সর্বোচ্চ ব্যয়সীমা বেঁধে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের দেওয়া তথ্য মতে, দেশভেদে অভিবাসনের এ ব্যয়সীমা দাঁড়াবে একজন কর্মীর তিন-পাঁচ মাসের বেতনের সমপরিমাণ।

probasi kolyan vobon

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যমতে, জানা গেছে, প্রতিবেশী ভারত বা নেপালের একজন শ্রমিকের বিদেশে যেতে যত ব্যয় হয়, বাংলাদেশের একজন শ্রমিকের ব্যয় হয় তার চেয়ে কয়েক গুণ বেশি। বড় অংকের এ ব্যয়ের প্রায় তিন-চতুর্থাংশই যায় মধ্যস্বত্বভোগী দালালদের পকেটে। অন্যদিকে বিদেশে গিয়ে এ অভিবাসনের খরচ তুলতেই কর্মীদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যায়।

ফলে প্রতি বছর কয়েক লাখ কর্মী বিদেশে পাড়ি দিলেও জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন হচ্ছে না অধিকাংশেরই। এ অবস্থার পরিবর্তনে অভিবাসনের সর্বোচ্চ ব্যয়সীমা বেঁধে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, অভিবাসনের অত্যধিক ব্যয়কে নিয়ন্ত্রণে আনতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের মধ্যপ্রাচ্যসহ সব গন্তব্যেই সর্বোচ্চ ব্যয় নির্ধারণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ ব্যয় নির্ধারণ করা হবে এসব দেশে চাকরি নিয়ে যাওয়া শ্রমিকের বেতনের ভিত্তিতে। সেক্ষেত্রে দেশভেদে একজন শ্রমিকের সর্বোচ্চ অভিবাসন ব্যয় দাঁড়াবে কর্মীর তিন-পাঁচ মাসের বেতনের সমপরিমাণ।