ফের চুপিসারেই দেশে ফিরে অনন্য এক সম্মাননা পেতে চলেছেন চির সবুজ অভিনেত্রী শাবানা


বিনোদন প্রতিবেদক, সময়ের কণ্ঠস্বর- কিংবদন্তি নায়িকা শাবানা প্রায়ই দেশে বেড়িয়ে যান নিঃশব্দেই । এই আসা-যাওয়ার খবর সাধারণত গণমাধ্যম পর্যন্ত গড়ায় না, প্রতিবারই সীমাবদ্ধ থাকে তার পরিবারের মধ্যেই। গত ২০১৫ সালে শেষবারের মত তিনি বোনের ছেলের বিয়ে উপলক্ষে দেশে এসেছিলেন। তারপর গনমাধ্যমে খবর বেরুতেই নিঃশব্দেই চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে।

এদফায় প্রায় দুবছর পর ফের চুপিসারেই সোমবার (২২ মে) ঢাকাই ছবির চিরসবুজ নায়িকা শাবানা এসেছেন ঢাকায়।

এবার দেশে ফেরার খবরটিও হয়তো গোপন রাখতেই চেয়েছিলেন গুণী এই অভিনেত্রী। তবে লাখো হৃদয়ে অম্লান থাকা এই অভিনেত্রীর খবর পৌছে গেছে গতানুগতিক ভাবেই।

এবার চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদান রাখায় আজীবন সম্মাননা পেতে যাচ্ছেন গুণী অভিনেত্রী শাবানা। সশরীরে প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে পুরস্কার নেবেন তিনি, এমনটাই চাইছেন ভক্তরা। অবশ্য ওই অনুষ্ঠানের আগেই এফডিসিতে আসছেন শাবানা।

এর আগে ২০০০ সালের পর চলচ্চিত্র ছেড়ে সপরিবার যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান এক সময়ের জনপ্রিয় নায়িকা শাবানা। ব্যক্তিগত কাজে দু’ একবার দেশে এলেও চলচ্চিত্র অঙ্গনের মানুষদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেননি। এবার জননন্দিত এই তারকা হাজির হচ্ছে এফডিসিতে।

শাবানার দেশে ফেরার খবরটি নিশ্চিত করে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার বলেন, ‘২৫ মে চিত্রপরিচালক সমিতির উদ্যোগে স্বাধীনতা যুদ্ধের পটভূমিতে নির্মিত প্রথম ছবি ‘ওরা ১১ জন’র কলাকুশলীদের সংবর্ধনা দেয়া হবে। ওই অনুষ্ঠানে হাজির হওয়ার জন্য শাবানাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। আশা করছি তিনি উপস্থিত থাকবেন।’

গুলজার আরও জানান, ‘শাবানা দেশে থাকবেন এক মাস। ঈদের আগেই আবার যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যাওয়ার ইচ্ছা আছে তার।’

প্রায় দেড় যুগ আগে অভিনয় ছেড়েছেন শাবানা। কিন্তু দর্শকরা এখনও তাকে ছাড়েননি, ভক্তদের হৃদয়ের মণিকোঠায় রয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেত্রী। শাবানা দেশ ছেড়ে আমেরিকায় স্থায়ী হয়েছেন। এর আগে এই অভিনেত্রী বাংলাদেশে এসেছিলেন ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে। উপলক্ষ ছিল শাবানার বোনের ছেলের বিয়ে। গত ১৬ সেপ্টেম্বর বারিধারা ডিওএইচএসের একটি কমিউনিটি সেন্টারে এই বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা হয়।

ঢালিউডের বিউটি কুইনখ্যাত জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবানা এখন ইসলামের পরিপূর্ণ অনুসারী। বড় পর্দার শাবানার সাথে বাস্তবের শাবানার এখন কোনো মিল নেই। ফুলহাতা কামিজ ও হিজাব সেই শাবানাকে সম্পূর্ণ পাল্টে দিয়েছে। এখন তার দেখা পাওয়া সাধারণ মানুষের পক্ষে তো বটেই, কোনো সাংবাদিকের পক্ষেও প্রায় অসম্ভব। স্বামী ওয়াহিদ সাদিক, দুই মেয়ে সুমী ও উর্মি এবং একমাত্র পুত্র নাহিনকে নিয়ে তিনি এখন বসবাস করছেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সিতে। গুণী এই অভিনেত্রী এখন অনেকটাই লোকচুক্ষুর আড়ালে। এখন তিনি আত্মীয়স্বজন ছাড়া কারো সাথে দেখা দেন না, কথাও বলেন না।

কোটি দর্শকের স্বপ্নের নায়িকা হিজাবপরা শাবানাকে এখন দেশে-বিদেশে দেখলে তার পরিচিতরা অবাক হন। একজন শীর্ষস্থানীয় নায়িকা হঠাৎ পর্দার অন্তরালে নিজেকে এভাবে লুকিয়ে রাখবেন এটা তারা ভাবতেও পারেন না।

শাবানা তার ঘনিষ্ঠদের জানিয়েছেন, হজ করার পর তিনি আর ছবি না করে পর্দা করার সিদ্ধান্ত নেন। তাছাড়া এখন পরিবার-পরিজন নিয়ে সাধারণ জীবন-যাপন তার খুব ভালো লাগছে। এই দূর প্রবাসে সংসার, সন্তান, নাতি-নাতনি নিয়েই একান্ত সময় কেটে যায় শাবানার। তিনি এখন প্রবাসে একটা বুটিক হাউস দেয়ার চিন্তা করছেন।

একনজরে শাবানা

শাবানার আসল নাম রত্না। মাত্র ৯ বছর বয়সে ১৯৬২ সালে ‘নতুন সুর’ ছবিতে ছোট্ট মেয়ের চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে শাবানার চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু। তার পৈতৃক বাড়ি চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার ডাবুয়া গ্রামে। তার বাবা ফয়েজ চৌধুরী একসময় চিত্র পরিচালক ছিলেন। এরও আগে তার আর্থিক অবস্থা ভালো না থাকায় মেয়েকে ফিল্মে দিয়ে এবং নিজে চলচ্চিত্রে জড়িয়ে ভাগ্য গড়ার চেষ্টা চালাতে থাকেন। একদিন তার সে আশা পূরণ হয়েছিল। শাবানা তখন রত্না নামে ‘নতুন সুর’ ছবিতে অভিনয়ের পরে তালাশ, সাগর, ভাইয়াসহ আরও কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করলেন।

১৯৬৬ সাল থেকে তার উত্থান ঘটতে শুরু হয়। সে বছরই ‘আবার বনবাসে রূপবান’-এ সুলতানা জামানের কন্যা সোনাভানের চরিত্রে অভিনয় করে নায়িকা হিসেবে রত্না প্রথম দর্শকের মন কাড়লেন। এরপর ‘জংলি মেয়ে’ এবং ‘চকোরি’ ছবি দুটিতে প্রধান নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করার পর শাবানাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি।

শাবানা তার অভিনয়ের প্রথম দিককার সম্পর্কে একবার বলেছিলেন, ১৯৬৭ সালে ‘চকোরি’ রিলিজের পর থেকে আমার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ল ঢাকার বাইরে লাহোর ও করাচিতে। ১৯৬৮ সালে নায়িকা হিসেচে চাঁদ আওর চাঁদনি, ভাগ্যচক্র এবং কুলিতে; ১৯৬৯ সালে-দাগ, মুক্তি; ১৯৭০ সালে ‘পায়েল, সমাপ্তি, ছদ্মবেশী, বাবুল, মধু মিলন ও একই অঙ্গে এত রূপ’-এ অভিনয় করলাম। রাজ্জাক-সুচন্দা জুটির অসম্ভব জনপ্রিয়তার সময় কাজী জহিরের ‘মধুমিলন’-এ অভিনয় দেখে দর্শক প্রশংসা শুরু করল আমাকে নিয়ে। দ্বৈত অনুরাগের সংঘাত ও পরিণতির ওপর ভিত্তি করে নির্মিত এ ছবি দর্শকের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন তোলে। আমার তো মনে হয়, ‘মধু মিলন’ ছবিতে সম্ভবত প্রথম হৃদয়স্পর্শী অভিনয় দেখাতে সক্ষম হয়েছিলাম।

স্বাধীনতার পর আবার ছবি নির্মাণ শুরু। শাবানা আগের জনপ্রিয়তা নিয়ে ১৯৭২ সালেই ৮টি ছবির নায়িকা ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ছবি ‘ওরা এগারো জন’ আর কাজী জহিরের ‘অবুঝ মন’ করে সারা বাংলাদেশে জানান দিলেন ঢাকার ফিল্মে শাবানার তুলনা হয় না। অন্যান্য ছবি যেমন- সমাধান, ছন্দ হারিয়ে গেল, এরাও মানুষ, মুন্না আওর বিজলি, চৌধুরী বাড়ি আর স্বীকৃতিও সফল হয়েছিল।

শাবানা মোট ১০ বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৭৭ সালে তিনি প্রথম এই পুরস্কার পান ‘জননী’ সিনেমার জন্য। এরপর ১৯৮০, ১৯৮২, ১৯৮৩, ১৯৮৪, ১৯৮৭, ১৯৯০, ১৯৯১, ১৯৯৩ এবং ১৯৯৪ সালেও তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। তার অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে আছে ১৯৯১ সালে প্রযোজক সমিতি পুরস্কার, ১৯৮২ ও ১৯৮৭ সালে বাচসাস পুরস্কার, ১৯৮৪ সালে আর্ট ফোরাম পুরস্কার, ১৯৮৮ সালে আর্ট ফোরাম পুরস্কার, ১৯৮৮ সালে নাট্যসভা পুরস্কার, ১৯৮৭ সালে কামরুল হাসান পুরস্কার, ১৯৮২ সালে নাট্য নিকেতন পুরস্কার, ১৯৮৫ সালে ললিতকলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৮৪ সালে সায়েন্স ক্লাব পুরস্কার, ১৯৮৯ সালে কথক একাডেমী পুরস্কার এবং জাতীয় যুব সংগঠন পুরস্কার।

শাবানা ১৯৭৩ সালে ওয়াহিদ সাদিককে বিয়ে করেন। তখন সাদিক ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা। শাবানার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এস এস প্রোডাকশনের দেখাশোনার ভার তার স্বামীর ওপর পড়ে। ১৯৯৭ সালে শাবানা দীর্ঘ ৩৪ বছর কাজ শেষে হঠাৎ চলচ্চিত্র-অঙ্গন থেকে বিদায় নেয়ার ঘোষণা দেন। এরপর তিনি আর নতুন কোনো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেননি। ২০০০ সালে তিনি সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান।

◷ ৮:০৩ অপরাহ্ন ৷ মঙ্গলবার, মে ২৩, ২০১৭ বিনোদন, স্পট লাইট
দেশে ঘূর্ণিঝড়ের পূর্বাভাস

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১

শাহবাগে মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, আহত ১৫

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১

এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা ঘোষিত সময়ে হচ্ছে না

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১

বুবলীকে গাড়িচাপা দিয়ে হত্যাচেষ্টা!

⊡ শুক্রবার, ফেব্রুয়ারী ২৬, ২০২১