সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘যারা ৭ মার্চের ভাষণ নিষিদ্ধ করেছিল, তারা এখন কোথায় মুখ লুকাবে?’

৫:২৮ অপরাহ্ন | শনিবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৭ Breaking News, ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘৭ মার্চের ভাষণই ছিল স্বাধীনতার মূলমন্ত্র’ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একটা সময় এই ভাষণ প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। এই ভাষণ যারা প্রচার করেছে তাদের মামলা-হামলা করে হয়রানি করেছে। এই স্বীকৃতির পর যারা এই ভাষণ নিষিদ্ধ করেছিল, তারা এখন কোথায় মুখ লুকাবে?

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি উদযাপনের অংশ হিসেবে শনিবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারের হত্যার পর থেকে তার ৭ মার্চের ঐতিহাসিক সেই ভাষণ এদেশের প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। দুর্ভাগ্য, প্রজন্মের পর প্রজন্ম সঠিক ইতিহাস জানতে পারে নাই। তারা ইতিহাস মুছে ফেলতে চেয়েছিল। কিন্তু তার জানে না— ইতহাস মুছে ফেলা যায় না।’

বক্তব্যের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া পঁচাত্তরে নিহত জাতীয় চার নেতা, মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ, সম্ভ্রম হারানো দুই লাখ নারীর প্রতিও শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়া বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় ইউনেস্কো এবং এর সাবেক মহাসচিবসহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘এই জায়গায় দাঁড়িয়ে আমার মনে পড়ছে সেই ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের কথা। আমরা এসেছিলাম। বক্তৃতাও শুনেছিলাম। বারবার মনে পড়ে সেই দিনের কথা।’

শেখ হাসিনা বলেন, “এই ময়দানে জাতির পিতা সেই ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়েছিলেন, যে ভাষণে তিনি অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন। সেই ভাষণেই তিনি বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে বলেছিলেন। তিনি আরও বলেছিলেন, ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তুলতে। এমনকি জাতির পিতা জানতেন এই ভাষণের পর তাকে গ্রেফতার করা হতে পারে। সেজন্য তিনি বলেছিলেন, ‘আমি যদি হুকুম দিবার নাও পারি তোমাদের যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করবে।’ তিনি বলেছিলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।”

জাতির পিতা এদেশের মানুষকে অর্থনৈতিক মুক্তি ও রাজনৈতিক স্বাধীনতা দিতে চেয়েছিলেন একথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাজনৈতিক স্বাধীনতা তিনি আমাদের দিয়ে গেছেন। অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য কাজও শুরু করেছিলেন। মাত্র সাড়ে ৩ বছরে তিনি দেশকে অনেক এগিয়ে নিয়েছিলেন, কিন্তু শেষ করতে পারেননি। ‘

শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার মন্ত্রে বাঙালি জাতিকে উদ্বুদ্ধ করেন। বাংলার মানুষের সঙ্গে জাতির পিতার আত্মিক সম্পর্ক এ ভাষণে ফুটে ওঠে। তিনি অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন। তিনি গেরিলা যুদ্ধের নির্দেশনা দিয়েছিলেন। এত দূরদর্শিতা, এত দিক-নির্দেশনা পৃথিবীর কোনো ভাষণে পাওয়া যায় না। আজকে আমরা আনন্দিত। এ ভাষণ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে। ৪৬ বছর আগের এ ভাষণকে স্বীকৃতি দেয়ায় ইউনেস্কো, তার সাবেক পরিচালক, যারা ভোট দিয়েছেন এবং সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

রবি