নরসিংদীতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে গলাটিপে হত্যা: তাঁতীলীগের আহব্বায়ক আটক


মো. হৃদয় খান, স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদীর মাধবদীতে যৌতুকের বলি হয়েছেন ফারজানা ইয়াসমিন জেরিন (২২) নামে এক গৃহবধূ। নির্যাতনের এক পর্যায়ে স্বামী গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে আত্মহত্যার নাটকের চেষ্টা চালায় বলে অভিযোগ করেছেন নিহতের পরিবার।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা নাম উল্লেখ করে ৪ জনের বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় হত্যার অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ তাঁতী লীগের আহবায়ক শাহিনুর মিয়াকে আটক করেছে।

মামলার আসামিরা হলো -নিহত ফারজানা ইয়াসমিন জেরিনের স্বামী শামীম মিয়া, তার ভাসুর তাঁতী লীগের আহবায়ক শাহিনুর মিয়া, শাহীনুরের স্ত্রী মনি বেগম, মা সালেহা বেগম।

নিহতের বাবা ও মামলার বাদী জয়নাল আবেদিন ভুঁইয়া বলেন, বিয়ের পর থেকেই স্বামী শাহীন যৌতুকের জন্য জেরিনকে নির্যাতন করত। মেয়ের সুখের কথা ভেবে এই পর্যন্ত তার স্বামীকে ৫ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। পরে জানতে পারলাম তার নিকটাত্মীয় অন্য স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি আমার মেয়ে জেনে যায়। এ নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত।

নিহতের বাবা জানান, গত শুক্রবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে মেয়ের স্বামী শাহীন আমাকে ফোন দেয়। তখন সে যৌতুক হিসেবে আরও ২ লাখ টাকা দেয়ার জন্য দাবি করেন। একইসঙ্গে টাকা না দিলে মেয়েকে মেরে ফেলা হবে বলে আমাকে হুমকি দেয়। তখন আমার মেয়েকে আমার কাছে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলি। একইসঙ্গে আমার হাতে টাকা এলে মেয়ে ও টাকা একসঙ্গে নিয়ে যাওয়ার কথা বলি।

‘এরই মধ্যে শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টায় আমাকে মেয়ের শ্বশুরবাড়ি থেকে ফোন দিয়ে জানায়, মেয়ের অবস্থা ভালো নয়। তাকে আমরা ঢাকা মেডিকেল নিয়ে যাচ্ছি, আপনারা আসেন।’

‘সকালে ঢাকা এসে দেখি আমার মেয়ে আর নেই। এই বিষয় নিয়ে শাহাবাগ থানায় একটি জিডি করেছি।’

মাধবদী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামাল হোসেন বলেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। ইতিমধ্যেই যৌতুকের দাবিতে হত্যার একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। সেখানে স্বামী, ভাসুর তার স্ত্রীসহ ৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। এর মধ্যে ভাসুর শাহীনকে শাহাবাগ থানা পুলিশ আটক করেছে।

◷ ৮:২৪ অপরাহ্ন ৷ শনিবার, নভেম্বর ২৫, ২০১৭ আলোচিত বাংলাদেশ, ঢাকা, দেশের খবর