‘বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতিতে খালেদা জিয়াসহ দলের নেতারা উন্মাদের প্রলাপ বকছেন’

◷ ৪:৫৭ অপরাহ্ন ৷ সোমবার, নভেম্বর ২৭, ২০১৭ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি লাভের পর থেকে বিএনপি নেতাদের গা‌ত্রদাহ হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

সোমবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই মন্তব্য করেন তিনি।

হাছান মাহমুদ বলেন, ইউনেস্কো এ স্বীকৃতি দেওয়ার পর থেকেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ দলের নেতারা উন্মাদের প্রলাপ বকছেন। তারা এতোদিন এই ভাষণ প্রচারে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছেন, এনিয়ে তারা ইতিহাস বিকৃত করেছেন। আজ সেটা বিশ্ব দলিলে অন্তর্ভূক্ত হওয়ায় তাদের গা‌ত্রদাহ হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ নিরস্ত্র বাঙালি সশস্ত্র জাতিতে রূপান্তরিত করেছিলো।

বিএনপি রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকাকালে রাষ্ট্রীয় প্রচারযন্ত্রে ৭ মার্চের ভাষণ বাজানো নিষিদ্ধ ছিল দাবি করে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বলেন, এই স্বীকৃতি আওয়ামী লীগের অর্জন নয়, এটা জাতির অর্জন, রাষ্ট্রের অর্জন। সে কারণেই জাতির বিভিন্ন স্তরের মানুষ, রাষ্ট্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বাগত জানাচ্ছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ইউনেস্কো ৭ই মার্চের ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্য দলিল হিসেবে স্বীকৃতি দিয়ে তাদের ওয়েবসাইডে লিখেছে এই ভাষণই কার্যত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করা হয়েছিলো।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ইউনেস্কোর স্বীকৃতির জন্য মানুষ অভিনন্দন জানাচ্ছে, উল্লাস করছে। আশা করি এ বিষয়ে বিএনপিরও বোধোদয় হবে।

বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ বিএনপি নেতাদের ২৫ মার্চের সমাবেশ নিয়ে সমালোচনার জবাবে হাছান মাহমুদ বলেন, ওইদিন আওয়ামী লীগের দলীয় কোনো সমাবেশ ছিলো না। যেহেতু রাষ্ট্রীয় ভাবে স্বীকৃতি পেয়েছে, তাই প্রজাত‌ন্ত্রের কর্মচারীরা উল্লাস করেছে। আর সরকার প্রধান হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্য রেখেছেন।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ যে ভাষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন, তা সম্প্রতি ‘বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য’ হিসেবে ইউনেস্কোর ‘মেমোরি অফ দা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারে’ যুক্ত হয়েছে।

এই স্বীকৃতি উদযাপনে গত শনিবার সরকারের পক্ষ থেকে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পাশাপাশি জেলা ও উপজেলায় শোভাযাত্রা-সমাবেশের কর্মসূচি পালিত হয়, যাতে অংশ নিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্দেশনা দেওয়া হয় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে।

তবে সরকারি উদ্যোগে ৭ মার্চের ভাষণের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির এই উদযাপনকে রাজনৈতিক কর্মসূচি আখ্যায়িত করে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তাতে অংশ নিতে বাধ্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রিজভীর বক্তব্যের সমালোচনায় আওয়ামী লীগ নেতা হাছান মাহমুদ বলেন, উনার ইদানিংকালের কথাবার্তা শালীনতা হারিয়েছে। তিনি অশালীনভাবে প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্কে যে কথা বলেন, আমরা তীব্র নিন্দা জানাই। তার কথাগুলো বদ্ধ উন্মাদের প্রলাপের মত।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম ও উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া।