বাঘা পৌরসভা নির্বাচন: ৭৯ জনের মনোনয়নপত্র জমা

৯:২১ অপরাহ্ন | সোমবার, নভেম্বর ২৭, ২০১৭ দেশের খবর, রাজশাহী

মোঃ শাহানুর আলম বাবু,বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি: আগামি ২৮ ডিসেম্বর রাজশাহীর বাঘা পৌরসভার নির্বাচন। ঘোষিত তফশিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন আজ সোমবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত এই মনোনয়নপত্র জমা দেন প্রার্থীরা। মেয়র পদে ৫ জনসহ সাধারণ ও সংরক্ষিত আসনে মোট ৭৪ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, মেয়র পদে যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তারা হলেন, বর্তমান মেয়র ও জেলা আ’লীগের সদস্য আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী মো: আক্কাছ আলী, বিএনপি মনোনিত প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বাঘা পৌর জামায়াতের আমির প্রভাষক সাইফুল ইসলাম,বাঘা পৌর বিএনপির সভাপতি কামাল হোসেন ও ব্যবসায়ী লিটন ভূঁইয়া । মেয়র পদ ছাড়াও সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর পদে ১৮ জন ও সাধারণ আসনের কাউন্সিলর পদে ৫৬ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

মনোনয়নপত্র জমাদানকালে আ’লীগ মনোনিত মেয়র প্রার্থী মো: আক্কাছ আলী বলেন, মেয়র নির্বাচীত হয়ে পৌরসভার নাগরিকদের জীবনযাত্রার মান ও এলাকার ব্যাপক উন্নয়নসহ পৌরসভাকে প্রথম শ্রেণীতে উন্নীত করেছেন তিনি। সেই আস্থার ভিত্তিতে ভোটাররা আবারও ভোট দিয়ে বিজয়ী করবেন বলে আশা করছেন তিনি।

আ’লীগ কর্মীরা মনে করছেন, উপজেলার রাজনীতিতে সাধারন মানুষের আস্থার নেতা আক্কাছের আলাদা একটি অবস্থান রয়েছে। দলের মধ্যে ছোটখাটো সমস্যা থাকলেও আক্কাছের জয়ের ব্যাপারে এখন সবাই একাত্বা। পৌরসভার ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মি থেকে শুরু করে উপজেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দও তার সঙ্গে রয়েছে। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠায় এবারও দল ও সাধারন মানষের ভোটে তিনি জয়যুক্ত হবেন।

অপরদিকে আসন্ন নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি এই পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত মেয়র ছিলাম। আমি মেয়র থাকাকালীন সময়ে পৌরসভার রাস্তাঘাটসহ ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। দীর্ঘ বার বছর পর জনগন আবার পৌরসভার ভোট ফিরে পেয়েছে। আমার বিশ্বাস, আগামি নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে সবাই আমার সততার মূল্যায়ন করে আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াত নেতা প্রভাষক সাইফুল ইসলাম বলেন, বিগত উপজেলা নির্বাচনে, আ’লীগ দলীয় প্রার্থীকে পরাজিত করে জামায়াত থেকে নির্বাচিত হন মাওলানা জিন্নাত আলী। বাঘা উপজেলা ও পৌরসভায় জামায়াতের একটি শক্ত অবস্থান আছে এবং ব্যক্তিগতভাবে পৌরসভার সকল নাগরিকের মাঝে আমার গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে। তাই আমি মনে করি আগামি নির্বাচনে সকল শ্রেণীর ভোটারের ভোটে আমি জয়লাভ করব ইনশাল্লাহ।

এই নির্বাচনে আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী বাঘা পৌর বিএনপির সভাপতি কামাল হোসেন বলেন, আমি দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলাম। কিন্তু দল আমাকে মনোনিত না করায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি বিএনপি করলেও পৌরসভার সকলধরনের ভোটারের মাঝে আমার একটি গ্রহনযোগ্যতা আছে। জয়ের ব্যাপারে আশাবাদি এই প্রার্থী আরও বলেন, সকলের দোয়ায় আমি নির্বাচনে আছি, নির্বাচনে থাকব ।

এ প্রসঙ্গে মনোনয়ন পত্র জমাদানে আগত বিএনপি নেতাকর্মির মতামত জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতা বলেন, যদি জামায়াত নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল এবং বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল কে নিয়ে বিএনপি সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যার্থ হয় তাহলে আমাদের প্রার্থীর জন্য নির্বাচনে জয়লাভ করা অত্যন্ত কঠিন হয়ে যাবে।

এদিকে শেষ দিনে নিজেকে মেয়র প্রার্থী ঘোষনা করে স্বতন্ত্র হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দানকারি মো: লিটন ভূঁইয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে তা সম্ভব হয়নি।
পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ২৭ হাজার ৭৮৯। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ১৪ হাজার ১৭ ও নারী ভোটার ১৩ হাজার ৭৭২।
সবমিলিয়ে পৌরবাসিদের মতামত ও ভোট জরিপ থেকে যা বোঝা গেছে, সর্বশেষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর মধ্যেই হবে হাড্ডাহড্ডি লড়াই।