দুই মামলায় আগাম জামিন পেলেন আসিফ নজরুল

১:৫৩ অপরাহ্ন | মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৮, ২০১৭ Breaking News, আলোচিত বাংলাদেশ, স্পট লাইট

সময়ের কণ্ঠস্বর: তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭(২) ধারায় এবং মানহানির মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুলকে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ জামিন আদেশ দেন। আদালতে উপস্থিত হয়ে আসিফ নজরুল আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন জানান। আদালতে তার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ আসাদউজ্জামান। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ এ কে এম মনিরুজ্জামান কবীর।
.
পরে আইনজীবী মনিরুজ্জামান জানান, মানহানির মামলায় আদালত আসিফ নজরুলকে ১০ সপ্তাহের এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলায় পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল না করা পর্যন্ত আগাম জামিন দিয়েছেন।

গতকাল সোমবার মাদারীপুর সদর থানায় আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলাটি করেন নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ভাগ্নে সৈয়দ আসাদউজ্জামান মিনার। আর গত ২৪ নভেম্বর নৌমন্ত্রীর চাচাতো ভাই মাদারীপুর জেলা পরিষদের সদস্য খান ফারুক মাদারীপুর মুখ্য বিচারক মো. জাকির হোসেনের আদালতে তার বিরুদ্ধে মানহানি মামলা করেন।

অবশ্য গত ২১ নভেম্বর তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা দায়েরের জন্য নৌমন্ত্রীর ভাগ্নে আসাদউজ্জামান জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আবেদন করেন। তবে আদালত মামলাটি গ্রহণ করেননি।

এরপর ২৩ নভেম্বর তিনি আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মাদারীপুর সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। আর গতকাল সোমবার সকালে এটি মামলা হিসেবে নেওয়া হয়।

৫৭ ধারার মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসিফ নজরুল তার ফেসবুক পেজে চট্টগ্রাম বন্দরে লস্কর পদে (জাহাজের রশি বাঁধা ও পাহারা দেওয়াই যাদের মূল কাজ) নিয়োগ নিয়ে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের বিরুদ্ধে অসত্য তথ্য দিয়েছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, গত ১৮ নভেম্বর আসিফ নজরুল চট্টগ্রাম বন্দরে লস্কর পদে নিয়োগ নিয়ে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের বিরুদ্ধে স্ট্যাটাস দেন। সেখানে বলা হয়, এই পদে নিয়োগ দেওয়া ৯২ জনের মধ্যে ৯০ জনই মাদারীপুর জেলার বাসিন্দা।

বিবরণে আরও বলা হয়, নৌমন্ত্রীকে নিয়ে যে স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছে, তা ভিত্তিহীন। এখানে মোট ৮৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, যাদের মধ্যে মাদারীপুর জেলার মাত্র ৮ জন রয়েছেন।

একই ঘটনায় গত ২৪ নভেম্বর আসিফ নজরুলের বিরুদ্ধে মানহানি মামলা করেন নৌমন্ত্রীর চাচাতো ভাই খান ফারুক। তবে অধ্যাপক আসিফ নজরুল জানিয়েছেন, নৌমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকের যে আইডিতে এই পোস্ট করা হয়েছে, সেটি তার না। তিনি আরও জানান, ফেসবুকের এই ভুয়া অ্যাকাউন্টের বিষয়ে তিনি বিভিন্ন সময়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন।