পাবনায় সাংবাদিকদের উপর ভূমিমন্ত্রীর ছেলের নেতৃত্বে হামলা! আহত ৪

৮:৪২ অপরাহ্ন | বুধবার, নভেম্বর ২৯, ২০১৭ আলোচিত, দেশের খবর

আব্দুল লতিফ রঞ্জু, পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার ঈশ্বরদীতে স্থানীয় সাংবাদিকদের উপর হামলা চালিয়েছে ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর ছেলে ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি সিরহান শরীফ তমালের নেতৃত্বাধীন একদল ক্যাডার বাহিনী। এসময় চার সাংবাদিক আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে গুরুতর আহত দুইজনকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তির জন্য পাঠানো হয়েছে। আজ বিকেল সোয়া চারটার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, পাবনায় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার আগমন উপলক্ষ্যে নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ করতে মাইকিংসহ প্রচারাভিযান চালাচ্ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সহ-সম্পাদক ও বাংলাদেশ সুপ্রীমকোর্টের আইনজীবী এ্যাডভোকেট রবিউল আলম বুদু। এসময় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর ছেলে ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি সিরহান শরীফ তমালের নেতৃত্বাধীন একদল ক্যাডারবাহিনী এ প্রচারাভিযানে বাধা দেয় এবং হামলা চালায়।

সাংবাদিকরা এ ঘটনার তথ্য সংগ্রহ ও ভিডিও স্থির চিত্র ধারণ করতে গেলে ক্যাডাররা তাদের উপরও হামলা চালায়। এতে এটিএন বাংলার রিজভী জয়, সময় টিভির সৈকত আফরোজ আসাদ, ডিবিসির পার্থ ও এটিএন নিউজের ক্যামেরাপারসন মিলন আহত হন। গুরুতর আহত রিজভী ও সৈকতকে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাবনা সদরে পাঠানো হয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছে হামলাকারীরা এসময় সাংবাদিকদের ক্যামেরা ও ল্যাপটপ ছিনিয়ে নেয়।

তিনদফা কর্মসূচি ঘোষনা

এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে আহত সাংবাদিকদের দেখতে যান পাবনায় কর্মরত সাংবাদিকরা। পরে হাসপাতাল চত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন সাংবাদিকরা।

বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক আব্দুল হামিদ সড়কের ট্রাফিক মোড় অবরোধ করে প্রতিবাদ সভা করে। এ সময় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে বক্তব্য দেন, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি ও বিটিভি প্রতিনিধি আব্দুল মতীন খান, সংবাদের ষ্টাফ রিফোর্টার হাবিবুর রহমান স্বপন, সম্পাদক আঁখিনুর ইসলাম রেমন, এনটিভি ও সমকালের এবিএম ফজলুর রহমান, জনকণ্ঠের কৃষ্ণ ভৌমিক, মাছরাঙা টিভির উৎপল মির্জা, দৈনিক সিনসা সম্পাদক এসএম মাহবুব আলম, দৈনিক বিশ্ববার্তা সম্পাদক শহীদুর রহমান শহীদ প্রমুখ। সমাবেশ থেকে সাংবাদিকদের আহতের প্রতিবাদে কালোব্যাজ ধারণ ও ভূমি মন্ত্রীর সকল সংবাদ বয়কটের ঘোষণা এবং প্রধানমন্ত্রীর পাবনায় আগমের আগেই হামলাকারীদের গ্রেফতারের জোর দাবী জানানো হয়। ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি লোকমুখে শুনেছি। তবে অভিযোগ পাইনি। তথ্য উদঘাটনের চেষ্টা করছে পুলিশ।