নরসিংদীতে হাসপাতালে ঘুষ কেলেংকারির দু’দিনেও আটক কর্মচারীদের বরখাস্ত করছেন না সিভিল সার্জন


মো. হৃদয় খান, স্টাফ রিপোর্টার: নরসিংদী জেলা হাসপাতাল থেকে ঘুষের এক লাখ টাকাসহ গ্রেফতারকৃত প্রধান সহকারী আশরাফুল ইসলাম পাঠান, প্যাথলজি টেকনোলজিস্ট (ল্যাব) রেজাউল করিমকে জেলে পাঠানো হয়েছে। গ্রেফতারের পর দুদকের মামলায় তাদেরকে কোর্টে চালান দিলে বিজ্ঞ আদালত তাদেরকে নরসিংদী কারাগারে পাঠানের নির্দেশ দেন।

এর আগে দুদকের পক্ষ থেকে গ্রেফতারকৃত প্রধান সহকারী আশরাফুল ইসলাম পাঠান ও টেকনোলজিস্ট রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে দন্ডবিধির ১৬১ ধারা ও সরকারী কর্মচারী হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার, অপরাধজনক বিশ্বাস ভঙ্গ ও অসদাচারনের দায়ে ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫’র ২ ধারা এবং মানিলন্ডারিং আইন, ২০১২ এর ৪(২) ধারায় একটি মামলা রুজু করা হয়।

এ ব্যাপারে মামলার বাদী দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মোঃ ফজলুল বারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আসামীদেরকে এখনো কোন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি। তাদেরকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ হবে আজ বৃহস্পতিবার। এই তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে তাদের রিমান্ডের আবেদন করবেন।

এদিকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে এই ঘুষ কেলেংকারীর ঘটনা জাতীয় ও স্থানীয় প্রচার মাধ্যমে প্রচারিত হবার পর নরসিংদী স্বাস্থ্য বিভাগসহ সরকারী বেসরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। লোকজন বলাবলি করছে ঘুষের টাকাসহ গ্রেফতারকৃত আশরাফুল ইসলাম পাঠান নরসিংদীর সিভিল সার্জন সুলতানা রাজিয়ার খুবই আস্থাবাজ কর্মচারী ছিলেন। সিভিল সার্জন সুলতানা রাজিয়া যেখানেই যেতেন, সেখানেই এই আশরাফুলের প্রশংসা করতেন। সিভিল সার্জন বিভিন্ন হাসপাতালে গিয়ে তাকে উন্নত মানের খাবার দেয়া, কাপড়-চোপড় উপহার দেয়ার জন্য কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে ইঙ্গিত করতেন। যারা তাকে খুশী করতে পারতো না তাদের ব্যাপারে বক্রোক্তি করতেন। এই আশরাফুল ইসলাম সিভিল সার্জনের কথা বলেই ঠিকাদারসহ বিভিন্ন লোকদের নিকট থেকে মোটা অংকের ঘুষ গ্রহণ করতো।

একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, গ্রেফতারের আগের দিন আশরাফুল ইসলাম সিভিল সার্জনের কথা বলে মনোহরদীর স্বাস্থ্য কর্মীদের নিকট থেকে মোটা অংকের টাকা উঠিয়ে নিয়ে আসে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল নরসিংদী সিভিল সার্জন সুলতানা রাজিয়া তার অফিসে যাননি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তার আস্থাভাজন কর্মচারী আশরাফুল ইসলামকে তার চাকুরী থেকে বরখাস্ত করেননি। এ নিয়েও সর্ব মহলে আলোচনা সমালোচনা চলছে। খোদ স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মচারীরাও সিভিল সার্জন সুলতানা রাজিয়ার কার্যকলাপে বিরক্তি প্রকাশ করেছে।

◷ ২:৫০ অপরাহ্ন ৷ বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৭ Breaking News, আলোচিত, ঢাকা, দেশের খবর