আমতলীতে আরপাঙ্গাশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান হাজতে


এম এ সাইদ খোকন, বরগুনা প্রতিনিধি,আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম নুরুল হক তালুকদারকে নির্বাচনী সহিংসতা মামলায় বৃহস্পতিবার জেল হাজতে পাঠিয়েছে আমতলীর বিচারিক আদালতের হাকিম মো: হুমায়ুন কবির।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০০১৬ সালের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের সময় আমতলীর আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিনের ঘোড়া প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী একেএম নুরুল হক তালুকদার ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো: হুমায়ুন কবিরের বড় ভাই সুলতান হাওলাদারের আরপাঙ্গাশিয়া গ্রামের বাড়ি ঘড়ে হামলা কুপিয়ে ও পিটিয়ে ৬-৭জনকে আহত করার ঘটনা ঘটে ।

এঘটনায় পরের দিন ২২ মার্চ আমতলী থানায় মামলা হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হন আমতলী থানার এসআই মো: শহীদুল ইসলাম। মামলার তদন্ত শেষে চেয়ারম্যান নুরুল হকসহ ১০ জনকে অভিযুক্ত করে আমতলীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে অীভযোগ পত্র দাখিল করেন তদন্ত কারী কর্মকর্তা।

মামলার বাদী এ অভিযোগ পত্রের বিরুদ্ধে ২ আগস্ট নারাজি পত্র দাখিল করলে আদালতের বিচারক ৯ নভেম্বর নারাজি পত্র আমলে নিয়ে মামলার তদন্ত ভার দেন বরগুনার ডিবির ওসি শেখ মো: আবদুল্লার উপর। ডিবির ওসি শেখ আবদুল্লাহ দীর্ঘদিন তদন্ত শেষে একেএম নুরুলহকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অীভযোগ পত্র গঠন করে ১০ অক্টোবর আদালতে দাখিল করেন। ২৯ নভেম্বর ছিল এ মামলায় আসামীদের হাজিরার দিন। কিন্ত আসামীরা হাজির না হলে আদলতের বিচারক ১১ জনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

বৃহস্পতিবার এমামলার প্রধান আসামী একেএম নুরুল হক, মিরাজ তালুকদার ও হারুন তালুদার হাজির হলে দীর্ঘ শুনানি শেষে আদালতের বিঞ্জ বিচারক মো: হুমায়ুন কবির মিরাজ ও হারুন তালুকদারের ২ হাজার টাকার মুচলেকায় ৭ দিনের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। মামলার প্রধান আসামী আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম নুরুল হক তালুকদারের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ প্রদান করেন।#

আমতলীতে ডাকাতি, আহত-৬

বরগুনার আমতলী উপজেলার কুকুয়া ইউনিয়নের কৃষ্ণনগর গ্রামে সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ কাছেম হাওলাদারের বাড়ীতে ডাকাতি সংঘঠিত হয়েছে। এ সময় ডাকাতের অস্ত্রের আঘাতে গৃহকর্তাসহ ৬ জন গুরু ত্বর আহত হয়েছে।

জানাগেছে, উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের কাছেম হাওলাদারের বাড়ীতে বুধবার (২৯ নভেম্বর) গভীর রাতে ১৪/১৫ জনের একটি ডাকাত দল আগ্নে অস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আসে। পরে ঘরের জানালা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে ঘরের সবাইকে জিম্মি করে ফেলে। এ সময় বাড়ীতে থাকা লোকজন ডাক চিৎকার করলে ডাকাতরা গৃহকর্তা কাছেম হাওলাদার (৬৫), তার স্ত্রী তাসলিমা বেগম (৩০), শ্বাশুরী আলেয়া বেগম (৭০), কন্যা উর্মি আক্তার (১৭), ভাই হাসেম হাওলাদার (৫৮) ও তার ভাইয়ের স্ত্রী পারভীন বেগমকে (৪০) কুপিয়ে মারাতœক জখম করে। পরে ডাকাতরা ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে ৩ ভরি স্বর্নালংকার নিয়ে পালিয়ে যায়।

গুরুতর আহত গৃহকর্তা কাছেম হাওলাদারকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা প্রেরণ করেন। অপর আহতদের পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গৃহকর্তা কাছেম হাওলাদারের ছোট ভাই হাসেম হাওলাদার বলেন, ১৪/১৫ জন ডাকাত গভীর রাতে আগ্নে অস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ঘরের জানালা ভেঙ্গে বসত ঘরে প্রবেশ করে সবাইকে জিম্মি করে ফেলে। ডাকাতরা ঘরে থাকা টাকা পয়সা ও স্বর্ণালংকার দিতে বললে আমরা তা দিতে অস্বীকার করায় আমাদের এলোপাতারি কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। এ সময় বাড়ীর আসবাবপত্র ভাংচুর করে ৩ ভরি স্বর্নালংকার নিয়ে ডাকাতরা পালিয়ে যায়।

আমতলী থানার ওসি মোঃ শহিদ উল্যাহ বলেন, খবর শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তিনি ডাকাতির বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন অন্য কোন ঘটনা থাকতে পারে। অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আমতলীতে ৬০ কেজি জাটকা জব্দ

আমতলী চৌরাস্তা সংলগ্ন মাছ বাজারে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় অভিযান চালিয়ে ৬০ কেজি জাটকাসহ মো: নুরুল ইসলাম নামে এক বিক্রেতাকে আটক করে ভ্রামান আদালতের মাধ্যমে ৩ হাজার টাকা জরিমান করেন আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও আমতলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: রেজাউল করিম।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সরোয়ার হোসেনের নির্দেশে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় আমতলীর চৌরাস্তা সংলগ্ন মাছ বাজারে মৎস্য কর্মকর্তা রবীন্দ্র নাথ মন্ডলের সহযোগিতায় আমতলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: রেজাউল করিমের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে ৬০ কেজি জাটকাসহ নুরুল ইসলাম নামে এক বিক্রেতাকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ৩ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জব্দকৃত মাছ উপজেলা পরিষদের সামনে এনে এতিমখানা ও গরীবদের মধ্যে বিতরন করা হয়।

বিজয় দিবস পালনের প্রস্ততি সভা অনুষ্ঠিত

আমতলীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালনের জন্য বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সরোয়ার হোসেন এর সভাপতিত্বে এক প্রস্ততি মূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন আমতলী পৌর মেয়র মো: মতিয়ার রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো: রেজাউল করিম, ভাইস চেয়ারম্যান মো: মজিবুর রহমান, নারী ভাইস চেয়ারম্যান মাকসুদা আকতার জোসনা, ইউপি চেয়ারম্যান মো: মোতাহার উদ্দিন মৃধা প্রমুধ।

সহকারী প্রধান শিক্ষক সৈয়দ মো: আব্দুর রউফ

আমতলী এমইউ বালক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সৈয়দ মো: আব্দুর রউফ (৫৫) বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার সময় হৃদ যন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেন। (ইন্নালিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহে রাজেউন)। তিনি মৃত্যু কালে স্ত্রী ১ ছেলে ও ১ মেয়ে রেখে যান। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় আমতলী এমইউ বালক মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে মরহুমের লাশ দাফন করা হয়। সৈয়দ মো: আব্দুর রউফ মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন আমতলী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম দেলওয়ার হোসেন ও পৌর মেয়র মো: মতিয়ার রহমান।

◷ ৫:৫২ অপরাহ্ন ৷ বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ৩০, ২০১৭ দেশের খবর