নোয়াখালী সেনবাগে ৩ সপ্তাহে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়েছে ৩ গৃহবধু ও ২ শিক্ষার্থী

৩:৫৪ অপরাহ্ন | শুক্রবার, ডিসেম্বর ১, ২০১৭ আলোচিত বাংলাদেশ, চট্টগ্রাম, দেশের খবর

মো: ইমাম উদ্দিন সুমন, স্টাফ রিপোর্টার :
নোয়াখালী সেনবাগ উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে গত ৩সপ্তাহে পরকীয়া প্রেমে আসক্ত হয়ে সোনার সংসার ও ছেলে সন্তান রেখে প্রেমিকে হাত ধরে পালিয়েছে ৩ গৃহবধু। এর মধ্য সেনবাগ থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে দাগুনভুঞা থেকে ২ গৃহবধুকে উদ্ধার করেছে।

আরেক গৃহবধুকে উদ্ধারের চেষ্ঠা চালাচ্ছে। সুত্রে জানা যায়,গত ১১ নভেম্বর উপজেলা ৪নং ইউপির জামালপুর গ্রাম থেকে ২৪বছর বয়সী প্রেমিক দুলালের হাত ধরে দুটি সন্তান রেখে পালিয়েছে গৃহবধু রেহান আক্তার রুমী (৩৫)।

দীর্ঘ ১৯দিন পালিয়ে ঘর সংসার করার পর রুমীকে ২৭নভেম্বর রাতে দাগুনভুঞার একটি বাসা থেকে উদ্ধার করেছে সেনবাগ থানা পুলিশ। রুমী ১১ বছরের সংসার ফেলে, সন্তানকে স্কুলে দিয়ে ১১ নভেম্বর পালিয়ে যায়। রুমির প্রেমিক দুলাল পাইপ ফিল্টার মেস্ত্রী, সে সেনবাগ পৌরসভার বিন্নাগুনি গ্রামের জাকের পুত্র। আর রুমী কাদরা ইউপির জামালপুর গ্রামের হাই স্কুল শিক্ষক মিজানের স্ত্রী ও নবীপুর ইউপির গোপালপুর গ্রামের সাহাব উািদ্দনের মেয়ে।

অপরদিকে গত ৩ নভেম্বর উপজেলার ৭নং ইউপির দঃ রাজারামপুর গ্রাম থেকে পালিয়েছে প্রাসীর স্ত্রী শারমিন আক্তার(২৫)। সে দঃ রাজারামপুর গ্রামের কামাল উদ্দিনের কন্যা। শারমিন বেগমগঞ্জের লতিফপুর গ্রামের প্রবাসী খোরশেদ আলমের স্ত্রী। গত ৩ নভেম্বর সে পিতার বাড়ি থেকে মার্কেটিং করা কথা বলে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যায় সে। গত ২৪ নভেম্বর ২১দিন পর দাগুনভুঞার একটি বাসা থেকে তাকে উদ্ধার করে সেনবাগ থানা পুলিশ।

এদিকে সেনবাগ পৌরসভার দঃ অর্জুনতলা পিতার বাড়ি থেকে থেকে শ্বশুর বাড়ি যাওয়া পথে পালিয়েছে গৃহবধু বিবি কুলসুম (২৪)। সে দ.অর্জুনতলা নুরনবীর মেয়ে ও ৩নং ইউপির হোমনাবাদ শ্রীপুর গ্রামের মহিন উদ্দিনে স্ত্রী। ৬ বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে একটি কণ্যা সন্তান রয়েছে। গত ২৭ নভেম্বর বিকেলে পিতার বাড়ি থেকে শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার কথা বলে এক কন্যা সন্তানকে নিয়ে প্রেমিক রনির হাত ধরে পালিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ রির্পোট লেখার আগ পর্যন্ত তার খোঁজ পাওয়ানি। মেয়েটি ঢাকা থাকার সুবাদে রনি নামের এক টেইলার্সের দোকানে জামা সিলাই করতো। সেই থেকে টেইলার্স রনি মোবাইলে তার সর্ম্পক গড়ে তোলে। প্রেমিক রনির বাড়ি চাটখিল বদল কোট গ্রামের মধ্যপাড়া।

এ ছাড়া নবীপুর ইউপির কলেজের শিক্ষার্থী সেলিনা-নজরুলও প্রেমের টানে পালিয়েছে গত ২৪ নভেম্বর। জে.এস.সি পরীক্ষা চলাকালিন পরীক্ষার হল থেকে পালিয়েছে ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রী।