পীরগঞ্জে নিখোঁজের ১যুগ পর সালমাকে ফিরে পেল তার পরিবার !

৮:৫৩ অপরাহ্ন | শনিবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৭ দেশের খবর

আব্দুল করিম সরকার,পীরগঞ্জ(রংপুর)প্রতিনিধি: রংপুরের পীরগঞ্জে নিখোঁজ হওয়ার ১ যুগ পরে সালমার সন্ধান পেয়েছে তার বাবা মা। সালমা পীরগঞ্জ উপজেলার মদনখালী ইউনিয়নের খয়েরবাড়ী শ্যামপুর গ্রামের সাহাদৎ হোসেনের কনিষ্ট কন্যা।

জানা গেছে, বিগত ২০০৭ সালে সংসারে অভাব অনাটনের কারনে মাত্র ৭ বছর বয়সে ছালমাকে তার বড় ভাই সাইফুল ইসলাম ও নিকট আতœীয় রাশেদুজ্জামান তাদের পূর্ব পরিচিত ঢাকার উত্তরার ব্যবসায়ী জামান মিয়ার বাসায় কাজের জন্য রেখে আসেন। সেখানে সে ২০০৯ সাল পর্যন্ত ৩ বছর কাজ করেন।

ঐ বছরের ১৪ ই আগষ্ট সালমা উত্তরার জামান মিয়ার বাসা থেকে নিখোঁজ হয় । বিষয়টি জামান মিয়া সালমার পরিবারকে জানানোর পর সালমার পরিবারের লোকজন ঢাকায় গিয়ে ছালমাকে অনেক খোঁজাখুজির পর ব্যর্থ হয়ে তার বড় ভাই সাইফুল ইসলাম উত্তরা মডেল থানায় একটি সাধারন ডাইরী করেন যাহার নং- ৭৯৪।

সালমা খাতুন জানান, উত্তরার বাসা থেকে পালানো পর সে দিকবিদিক ভুলে টঙ্গী বাজারে চলে যায় ও কান্না কাটি করতে থাকেন। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ৯ বছর। পথচারী ও স্থানীয় লোকজন তার নাম পরিচয় জানতে চাইলে সে শুধু তার নাম ছালমা, বাবার নাম সাহাদৎ, মায়ের নাম ছানোয়ারা ও বাড়ী রংপুরের শ্যামপুর ছাড়া কিছুই বলতে পারে না।

তখন লোকজন ছালমাকে স্থানীয় আব্দুল আজিজ মেম্বারের বাসায় রেখে আসেন । আজিজ মেম্বার মেয়েটিকে তার নিকট রেখে তার আপনজনকে খুঁজতে থাকেন। দীর্ঘ ৪ বছরেও সালমার আপনজনকে খুজে না পেয়ে তারই পরিচিত টঙ্গীর আবু তাহের মোল্লার বাসায় কাজের জন্য পাঠান। সেখানে সে ৫ বছর কাজ করেন। বর্তমানে সালমার বয়স ১৮ বছর।

আব্দুল আজিজ মেম্বারে মনে আবারও ইচ্ছা জাগে মেয়েটিকে তার পরিবারের নিকট পৌছে দিবেন। তিনি সালমাকে সাথে নিয়ে বেরিয়ে পড়েন তার পরিবারকে খুজতে দীর্ঘ ১০ দিন রংপুর, সৈয়দপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রামের যেখানেই শ্যামপুর গ্রামের কথা শুনেছেন সেখানেই খুজেছেন অবশেষে রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার মদনখালী ইউনিয়নের খয়েরবাড়ী শ্যামপুর গ্রামে গত ১৫ই নভেম্বর আব্দুল আজিজ মেম্বারে খুঁজে পান ছালমার বাবা মাকে। তিনি সালমাকে তুলেদেন তার বাবা মার কাছে।

প্রায় একযুগ পর মেয়েকে ফিরে পেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন সালমার পরিবারের লোকজন । তারা যেন ফিরে পেয়েছে হারিয়ে যাওয়া ধন্। জামান মিয়ার কথা বলতেই সালমা কেঁদে কেঁদে বলেন, ওরা অমানুষ। ওদের নির্যাতন সয্য করতে না পেরে এক মহিলার সহযোগীতায় আমি তার বাসা থেকে পালিয়েছিলাম। আজিজ মেম্বারের মত মানুষ হয় না, তিনি তাকে নিজের মেয়ের মত দেখেছেন ।