সংবাদ শিরোনাম

রোহিঙ্গা শিশু অপহরণের পর হত্যার ঘটনায় নারীসহ দু’জন গ্রেপ্তারবেলকুচিতে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে গেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান !জামালপুরে মাদ্রাসা ছাত্রীকে রাতভর ধর্ষণ, গ্রেফতার মাদ্রাসার শিক্ষক‘করোনাকালের নারী নেতৃত্ব: গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’বগুড়ায় শিক্ষা প্রনোদনা পেতে প্রত্যয়নের নামে টাকা নেয়ার অভিযোগজামালপুরে ধর্ষণ মামলায় ধর্ষকের যাবজ্জীবনপাবনায় অবৈধ অস্ত্র তৈরির কারখানায় অভিযান, চারটি আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতার-২উপজেলা আ.লীগের সভাপতিকে ‘পেটালেন’ কাদের মির্জা!কে কত বড় নেতা, সবাইকে আমি চিনি: কাদের মির্জাঅনুদান দেওয়া হবে, তবে প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে নয়: শিক্ষা মন্ত্রণালয়

  • আজ ২৪শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘আগামী নির্বাচনে তুমুল আন্দোলন হবে যা প্রধানমন্ত্রী ভাবতেই পারছেন না’

৩:০৭ অপরাহ্ন | শুক্রবার, ডিসেম্বর ৮, ২০১৭ Breaking News, জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর- প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, আগামী নির্বাচনে সহায়ক সরকারের দাবিতে তুমুল আন্দোলন হবে যা প্রধানমন্ত্রী ভাবতেই পারছেন না।

তিনি বলেন, আগামীতে যে আন্দোলন হবে সেটি বিএনপি বা ২০ দলের নয়, জনগণের আন্দোলন হবে। নির্বাচন হবে আমরাও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। কিন্তু সেই নির্বাচনে আপনি (শেখ হাসিনা) সরকার প্রধান থাকতে পারবেন না।

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার পরিষদ আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি প্রফেসর রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এবং মহাসচিব আ স ম মোস্তফা কামালের সঞ্চালনায় এ সময় আরও বক্তব্য দেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের রহমত উল্লাহ, জিনাফ সভাপতি মিয়া আনোয়ার, ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক আব্দুস ছাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে ‘বাংলাদেশের বর্তমান মানবাধিকার পরিস্থিতি’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

শামসুজ্জামান দুদু বলেন, বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন সবকিছুই ছাত্র আন্দোলনের মাধ্যমে রচিত হয়েছে। স্বাধীনতা যুদ্ধ, ভাষা আন্দোলন কোন কিছুই আন্দোলন ছাড়া অর্জিত হয়নি। সেই আন্দোলন ছাড়া আমরা চলমান সংকটের মীমাংসা চাচ্ছি। আমরা চাচ্ছি একটা ভোটের পরিস্থিতি সৃষ্টি হোক, আমরা ভোট কেন্দ্রে গিয়ে সরকারকে উপযুক্ত জবাব দেই।

প্রধানমন্ত্রী আপনার মাথায় তো অনেক বুদ্ধি আপনি তো বঙ্গবন্ধুর কন্যা। আপনার এত ভয় কিসের? আপনি তো অনেক উন্নয়ন করেছেন। একটি সুষ্ঠু নির্বাচন দিয়ে আপনার জনপ্রিয়তা যাচাই করুন যোগ করেন দুদু।

বিএনপির নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বেগম জিয়ার জেল হবে কি হবে না এটা নিয়ে একটা আলোচনা আছে। আমরা কেউ কেউ মনে করছি জেল হয়ে গেলে দেশে তোলপার হয়ে যাবে। সরকারও এটা চিন্তা করে। আমরা রাস্তায় না নামলে তোলপার হবে কি করে? ফ্যাসিবাদের কাজ হচ্ছে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে দেয়া। ফ্যাসিবাদের কৃতিত্ব আর যাই বলি তাদের কাজ হল মানুষকে ঘরের বাহিরে না আনা। এটাকে ভাঙতে হবে। এই ভাঙতে পারা মানেই হলো নির্বাচনে জয়লাভ করা।

গতকাল দেয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের জবাবে কৃষক দলের এই সাধারণ সম্পাদক বলেন, গতকাল প্রধানমন্ত্রী বক্তৃতা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী যে ভঙ্গিতে কথা বলেছেন তাতে বুঝা গেছে দেশে ভাল নির্বাচনের সুযোগ নাই। ধারণা করা হচ্ছে তিনি আবারও ৫ জানুয়ারি মার্কা আরেকটি নির্বাচন করবেন।

সবকিছুতে সরকারের সংবিধানের দোহায় দেয়ার তীব্র সমালোচনা করে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী খুব ভালবাসেন সংবিধান। আওয়ামী লীগ খুব ভালবাসে সংবিধান এত ভালবাসা অন্য কিছুতে আছে কিনা সেটা জানা নেই। কিছু বুদ্ধিজীবী আছেন যারা আওয়ামী ঘরানার তাদেরও প্রেম সংবিধানকে ঘিরে। বর্তমানে সকল সমস্যার মূলে রয়েছে বর্তমানের এই সংবিধান। এই সংবিধান দিয়ে বাংলাদেশে ভাল কিছু করা সম্ভব না। এটার প্রধান অন্তরায় হচ্ছে একটি সুষ্ঠু এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা।