কালকিনিতে রুটির সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে দুই ভাইকে হত্যার চেষ্টা

৩:২০ অপরাহ্ন | রবিবার, জুলাই ২২, ২০১৮ ঢাকা, দেশের খবর

এইচ এম মিলন, কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি- পূর্বশত্রুতার জের ধরে মাদারীপুরের কালকিনিতে রুটি পড়ার সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে আপন দুই ভাইকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তাদের দুজনকে গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনা নিয়ে ওই এলাকায় দুপক্ষের মাঝে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। তবে এ বিষয় আজ রোববার সকালে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী ও অভিযোগ সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার পূর্বএনায়েতনগর এলাকার পূর্বআলীপুর গ্রামের রহিম সরদারের মেয়ে তামান্না বেগমের ঘর থেকে সম্প্রতি কিছু স্বর্ণলংঙ্কার হারিয়ে যায়। পরে এ স্বর্ন হারোনোর ঘটনায় রহিম সরদারের স্ত্রী খুরশিদা বেগম একজন কবিরাজের কাছ থেকে রুটি পরা এনে খাওয়ানোর আয়োজন করেন।

কিন্তু পূর্ব শত্রুতার জের ধরে সেই রুটি পরার সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে জোরপূর্বক চাঁপ প্রয়োগ করে গত বৃহস্পতিবার সকালে খাওয়ানো হয় একই এলাকার আপন দুই ভাই এনামুল সরদার ও বাবুল সরদারকে। এতে করে তারা দুই ভাই গুরুতর অসুস্থ হয়ে মাটিতে লুটে পরে। স্থানীয় লোকজন তাদের দুজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে কালকিনি সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

কিন্তু আজ রোববার সকালে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় তাদের দুইজনের করুন অবস্থা। তারা এখনও অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছেন। এ ঘটনায় কালকিনি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী বাবুলের স্ত্রী কুলসুম বেগম।

ভুক্তভোগী বাবুলের স্ত্রী কুলসুম বেগম বলেন, খুরশিদা বেগমের সঙ্গে আমাদের পূর্বশত্রুতা চলে আসছে। তাই আমার স্বামী ও দেবরকে হত্যার উদ্দেশ্যে রুটির সঙ্গে বিষাক্ত চেতনা নাশক খাওয়ানো হয়েছে।

অভিযুক্ত খুরশিদা বেগম বলেন, আমাদের স্বর্ণ হারানো গেছে তাই আমরা রুটি পড়া খাওয়াইছি।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে (আরএমও) ডাক্তার রেজাউল করিম বলেন, রুটি পড়া বলতে আসলে কিছু নেই। এটা একটা কু-সংস্কার প্রথা। তবে তাদেরকে খাবারের সঙ্গে বিষক্রিয়া কিছু খাওয়ানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার ওসি কৃপা সিন্ধ বালা বলেন, এ বিষয় অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।