লালমনিরহাটে বিএনপির ৭৯ জন নেতাকর্মীর মধ্যে ১৯ জনকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ


❏ বুধবার, ডিসেম্বর ২৬, ২০১৮ রংপুর

মোঃ ইউনুস আলী, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাট-১ আসনে ধানের শীষ প্রতিকের নির্বাচনী ‘উঠান বৈঠক’ থেকে বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের আটক ৭৯ জন নেতাকর্মীর মধ্যে ১৯ জনকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। তবে অধিক বয়সের বিষয়টি বিবেচনা করে ৭৯ জনের মধ্যে ১৯ জনকে ছেড়ে দেয়া হয় বলে পুলিশ জানায়।

মঙ্গলবার (২৫ ডিসেম্বর) বিকেল পাঁচটার দিকে ৭৯ জনকে থানায় নিয়ে আসা হয়। এবং ১৯ জনকে রাত ১০টার দিকে ছেড়ে দেয়া হয়। এ বিষয়ে পুলিশ বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

এর আগে হাতীবান্ধা থানার ওসি ওমর ফারুক সাংবাদিকদের জানান, ‘সীমান্ত এলাকার একটি গ্রামে বৈঠক চলছে-বিষয়টি বিজিবির সন্দেহ হলে তাদের ঘিরে রেখে পুলিশকে খবর দেয়। পরে তাদের থানায় নিয়ে আসা হয়েছে’। পরে প্রেসবিজ্ঞপ্তি বা সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

লালমনিরহাট-১ (হাতীবান্ধা-পাটগ্রাম) আসনের বিএনপি প্রার্থী ব্যারিস্টার হাসান রাজীব প্রধান দাবি করেন, ‘দুপুরের দিকে ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ছাতুর দিঘী বাজারের পাশে জনৈক আমিনের বাড়িতে ধানের শীষের উঠান বৈঠক চলছিল। সে সময় বিজিবি বাড়িটি ঘিরে ফেলে। পরে সেখান থেকে বিএনপির ৭৯ জন নেতাকর্মীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে’। আটককৃতদের কারও বিরুদ্ধেই কোনো ধরণের গ্রেপ্তারী পরোয়ানা নেই বলে দাবি করেন বিএনপির ওই প্রার্থী।

আটককৃতদের মধ্যে ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি রাফিউদ্দারাজ রানু মিয়া ও সম্পাদক বাদলসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতাকর্মী আছে বলে জানা গেছে।

থানায় আটক নেতাকর্মীদের ছাড়িয়ে নিতে বিকেল থেকে রাত অবধি বিএনপি প্রার্থী হাসান রাজীব প্রধান, উপজেলা বিএনপির আহবায়ক, সদস্য সচিব, যুবদল সভাপতি ও সম্পাদককে থানা চত্তরে বসে থাকতে দেখা যায়। পরে রাত ১০ টার দিকে থানা থেকে ছেড়ে দেয়া ১৯ জনকে নিয়ে চলে যেতে দেখা যায়।