‘ভোটের চেয়ে পেট বড় বাহে’!


❏ বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৮ রংপুর

অনিল চন্দ্র রায়, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: সারা দেশের মতো কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে উৎসব মূখর পরিবেশে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে প্রার্থী ও সমর্থকরা সাধারণ মানুষ ও ভোটাদের কাছে গিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।

তবে নির্বাচনের কোন প্রভাব পড়েনি এলাকার সাধারণ খেটে-খাওয়া নিম্ন শ্রেণী মানুষদের উপর। নানা পেশার কর্মজীবী মানুষ নানা কাজে তাদের দিন পার করছেন। তেমনি ফেরিওয়ালারা জীবন-জীবিকার তাগিদে দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে এসেছে ফুলাবাড়ীতে। ফেরিওয়ালারা পরিবারের সদস্যদের মুখে দু-বেলা খাবার তুলে দেওয়ার লক্ষ্যে কেউ পাঁয়ে হেঁটে বিক্রি করছেন বাদাম, চানাচুর ও বই। কেউ সাইকেলে করে বিক্রি করছেন কসমেট্রিক সামগ্রী, তৈজস পত্র, আবার অনেকেই তৈরীকৃত লেপ-তোষক ও গরমের কাপড় ফেরি করছেন। তাদের কাছে ভোটের চেয়ে পেট বড়। তাই তারা উপার্জনকে সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন।

ফেরিওয়ালা রফিকুল ইসলাম (৪২)। বাড়ী লালমনিরহাট সদরের সবুজ পাড়া। তিনি প্রতিদিন বিভিন্ন কসমেট্রেস উপজেলার প্রতন্ত অঞ্চলে ফেরি করে।  তিনি বলেন, গরীব মানুষ এসব ফেরি করে জীবন বাঁচাই। ভোটের দিন ভোট দিবো। তবে ভোটের চেয়ে পেট বড়।

দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার বাশিদাপুর গ্রামের ফেরিওয়ালা আনিচুর রহমান (৫০)। তিনি এই কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলায় বাদাম বিক্রি করে সংসার চালান। তিনি বলেন, জীবন-জীবিকার তাগিতে দশ বছর ধরে এ অঞ্চলে বাদাম বিক্রি করছি। দশ বছর ধরে এ উপজেলা আছি একটা বারের জন্যেও আমাদের এলাকার কেউ খোঁজ খবর নেয়নি। ভোট আসলে কি হবে? গরীবের খোঁজ খবর কেউ রাখে না! সারাজীবন এভাবেই চলতে হবে। যেহেতু আমি একজন বাংলাদেশী নাগরিক। তাই ভোট দেওয়ার অধিকার আমার আছে। যত কষ্টও হোক না কেন। দেশের বাড়ী গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকেই ভোট দিবো। তবে গরীবের ভোটের চেয়ে পেট বড় বাহে।