🕓 সংবাদ শিরোনাম

কারাগারে বাড়তি নিরাপত্তায় বাবুল আক্তারসাংবাদিক রোজিনাকে হয়রানি ও হেনস্থার প্রতিবাদে রাঙামাটি প্রেসক্লাবের মানববন্ধনসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নির্যাতনের প্রতিবাদে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের মানববন্ধনঝালকাঠিতে জমি নিয়ে বিরোধে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা,আটক-২মাত্র ২০ ঘন্টায় ১০ লক্ষ দর্শক পেল“ তাকে ভালোবাসা বলে” নাটকটিবিয়ের কথা বলে প্রেমিকাকে তুলে নিয়ে রাতভর ধর্ষণভারতে করোনায় একদিনে মারা গেলেন ৫০ চিকিৎসকদেশে বিশেষ অভিযান চালাবে ইন্টারপোলসাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নেওয়া হলো আদালতেতুমুল সমালোচনার মুখে ‘জেরুজালেম প্রেয়ার টিম’পেজ সরিয়ে নিল ফেসবুক কর্তৃপক্ষ

  • আজ মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ ৷ ১৮ মে, ২০২১ ৷

নৌকার পালে হাওয়া, হাত পাখার বাতাসে উড়ছে ধান


❏ শুক্রবার, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৮ বরিশাল

বরগুনাপ্রতিনিধি: বরগুনা-১ (বরগুনা সদর-আমতলী-তালতলী) আসনের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার পালে হাওয়া লেগেছে। আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী বর্তমান সাংসদ ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভূর নৌকা প্রতীকের আলোচনা সর্বত্র বিরাজমান। অন্যদিকে হাত পাখার বাতাসে উড়ছে ধানের শীষ। শহর থেকে গ্রামান্তরের সর্বত্র বিরাজ করছে নির্বাচনের আমেজ। ত্রিমুখী লড়াইয়ে বড় ফ্যাক্টর হবে প্রমত্তা পায়রা নদীর পূর্ব পাড় আমতলী-তালতলীর উপজেলার ভোট। সকল প্রার্থী পায়রার পূর্ব পাড়ের ভোটারদের আকৃষ্ট করতে প্রানপণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

বরগুনা - ১ (সদর-আমতলী-তালতলী) আসনে সাত জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও মূল প্রতিদ্বন্দিদ্বতা হবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাংসদ এড.ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও বিএনপি মনোনিত প্রার্থী সাবেক সাংসদ আলহাজ্ব মোঃ মতিয়ার রহমান তালুকদার এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী বরগুনার কেওড়াবুনিয়া পীর আলহাজ্ব মাওলানা মাহমুদুল হোসাইন ওলিউল্লাহ’র মাঝে। ত্রিমুখী লড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীক। শুরুতে ধানের শীষ প্রতীকের প্রতি ভোটারদের আস্থা থাকলেও তাদের প্রচার প্রচারনায় ভাটা পড়ায় ভোটাররা সেই আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। ফলে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাত পাখার বাতাসে উড়ছে ধানের শীষের প্রতীক। ভোটাররা তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

এদিকে বরগুনা-১ (সদর-আমতলী-তালতলী) আসন তিনটি উপজেলা নিয়ে গঠিত। এ তিন উপজেলার মাঝখানে রয়েছে একটি চার কিলোমিটারের প্রশস্থ প্রমত্তা পায়রা নদী। এ নদীর দু’পাড়ের মানুষের মাঝে রয়েছে বৃহৎ বিভাজন। বিএনপির আলহাজ্ব মোঃ মতিয়ার রহমান তালুকদার পায়রা নদীর পূর্ব পাড়ের প্রার্থী। পায়রা নদীর পশ্চিম পাড়ের প্রার্থী হিসেবে চিহিৃত বর্তমান সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ পূর্ব পাড়ের প্রার্থী হিসাবে আঞ্চলিকতার টানকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচনী বৈতারনী পার হতে চান মো. মতিয়ার রহমান তালুকদার।

আমতলী-তালতলী উপজেলায় দুই লক্ষ চৌদ্দ হাজার আর বরগুনা সদরে এক লক্ষ ৯৬ হাজার ভোট। এক লক্ষ ৯৬ হাজার ভোটের মধ্যে দুইজন প্রার্থী এবং দুই লক্ষ চৌদ্দ হাজার ভোটের মধ্যে একজন প্রার্থী। বরগুনা সদরে দুই প্রার্থী হওয়ায় একটু বেকায়দায় তারা। তবে উভয় প্রার্থীর জয় পরাজয় নিশ্চিত হবে পায়রা নদীর পূর্ব পাড় আমতলী-তালতলী উপজেলার সাধারণ ভোট দিয়ে। যে এ দু’উপজেলার ভোট বেশী পাবে তিনিই জয়ী হবেন এমনটাই ধারনা সাধারণ মানুষের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের একটি জরিপে ৯১ জনের মতামতে দেখা গেছে ৫০ জন নৌকায়, ১৬ জন ধানের শীষ , ২২ জন হাতপাখা এবং ৩ জন নিরপেক্ষ রয়েছে।
আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী এ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাধ শম্ভু প্রবীন রাজনীতিবিদ ও অভিজ্ঞ পার্লামেন্টিয়ান। পাঁচ বার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়ে চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বিএনপি মনোনিত প্রার্থী সাবেক সাংসদ সদস্য আলহাজ মতিয়ার রহমান তালুকদার ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে প্রতিদ্বন্দিদ্বতা করে হেরে যান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ আসন ছেড়ে দিলে উপ-নির্বাচনে সাবেক বরগুনা -৩ (আমতলী-তালতলী) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এ ছাড়াও তিনি জাতীয় পার্টির শাসনামলে সংসদ সংদস্য ছিলেন। ওই সময়ে মতিয়ার রহমান তালুকদার আমতলী-তালতলীতে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। তার উন্নয়নের চিত্র সাধারণ মানুষের মাঝে রেখাপাত করেছে। আওয়ামীলীগ ও বিএনপি দু’প্রার্থীই অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ। অপর দিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ প্রার্থী আলহাজ মোঃ মাহমুদুল হোসাইন ওয়ালিউল্লাহ নতুন প্রার্থী।

৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান সাংসদ ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটে হেরে যান বিএনপি প্রার্থী আলহাজ মতিয়ার রহমান তালুকদার। একাদশ জাতীয় নির্বাচনে আবার এ দু’জনই মুল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অবতীর্ণ হয়েছেন। বিএনপি প্রার্থী মতিয়ার রহমান তালুকদার আওয়ামী লীগ প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে হারিয়ে ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হেরে যাওয়ার প্রতিশোধ নেয়ার পালা। আর আওয়ামী লীগ প্রার্থী পুনরায় নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করা। অপর নতুন প্রার্থী মোঃ ওয়ালিউল্লাহর বাবা মাওলানা আবদুর রশিদের হারানো সম্মান পুনরুদ্ধারের পালা।
এ তিন লক্ষ্য নিয়ে তিন প্রার্থীই প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। গ্রাম, হাট , বাজার, শহর ও বন্দরের প্রতিটি সাধারণ ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। অস্তিতের লড়াইয়ে তিন’জনই নিমগ্ন। কাউকে কেউ হারিয়ে যেতে নারাজ।

তবে সাধারণ ভোটারদের মাঝে রয়েছে বিভ্রান্তি। কেউ বলেছে ভোট নষ্ট করে লাভ কি? আওয়ামীলীগইতো ক্ষমতায়। আবারও তারাই হবে। আবার কেউ কেউ বলেছে ভাল প্রার্থীকে ভোট দেব। আওয়ামী লীগ আর বিএনপি বুঝি না যে এলাকার উন্নয়নে বেশি ভূমিকা রেখেছে তাকেই ভোট দেব।

বিএনপি মনোনিত প্রার্থী মতিয়ার রহমান তালুকদার বলেন, আমার আমলে আমতলী-তালতলীতে ব্যাপক উন্নয়ন করেছি। ওই উন্নয়নের কথা বিবেচনা করে মানুষ আবারো আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে।
আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী এ্যাড.ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু জয়ী হওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সকলে নৌকায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে।