সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে মির্জাপুরে দোয়া মাহফিল

৫:৫৯ অপরাহ্ন | শুক্রবার, জানুয়ারী ৪, ২০১৯ দেশের খবর

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের (সাবেক) সাধারণ সম্পাদক মরহুম সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বাদ জুম্মা মির্জাপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও থানা মসজিদে এ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মোনাজাত পরিচালনা করেন মাওলানা ফরিদুল ইসলাম।

মোনাজাতে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের রাজনৈতিক কর্মজীবনে স্মৃতিচারণ করে আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ১৫ আগস্ট নিহতদের স্মরণে, জাতীয় চার নেতা ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মার মাগফেরাতও কামনা করা হয়।

মির্জাপুর উপজেলা ছাত্রলীগ কর্তৃক আয়োজিত দোয়া ও মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন, টাঙ্গাইল জেলা পরিষদ সদস্য সাইদুর রহমান খান বাবুল, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি হাজী আবুল হোসেন, উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম-আহ্বায়ক আবিদ হোসেন শান্ত, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো. সাদ্দাম হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সিয়াম, পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি আবুবকর সিকদার, সাধারণ সম্পাদক ওয়াকিল আহম্মেদ, মির্জাপুর কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি মোবারক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মারুফ হোসেনসহ ধর্মপ্রাণ মসল্লিগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বনী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে যে কথা জানানো হয়।

সেখানে বলা হয়, স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সৈয়দ নজরুল ইসলামের সুযোগ্য পুত্র আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের মৃত্যুতে জাতি আজ গভীর শোকে আচ্ছন্ন। মরহুমের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তলন পরর্বর্তী সকল কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পরিবারের পরম শ্রদ্ধাভাজন অগ্রজ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে আগামীকাল/অথ্যাৎ আজকে সকল সাংগঠনিক ইউনিটকে বাদ জুম্মা মিলাদ ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হলো।

গতকাল বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সাড়ে ৯টার সময় ফুসফুস ক্যাসারে আক্রান্ত হয়ে সৈয়দ আশরাফ থাইল্যান্ডের বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।