নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের ঠিকানায় পৌঁছে যাবে গাড়ি

৬:৩৫ অপরাহ্ন | রবিবার, জানুয়ারী ৬, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনে ২৯৮ আসনের মধ্যে ২৫৭টিতে জয় পেয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। জোটগতভাবে তারা পেয়েছে ২৮৮ আসন। অন্যদিকে তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপি ও তাদের জোট পেয়েছে মাত্র সাতটি আসন।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এমপিরা ছাড়া গত বৃহস্পতিবার নবনির্বাচিত এমপিরা শপথ নেন। জয়ের পর টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট, টানা তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হতে চলেছেন শেখ হাসিনা।

নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথ নেয়ার পর আজ রোববার নতুন মন্ত্রী পরিষদের নামও ঘোষণা করা হয়। সে অনুসারে সোমবার শপথ নিতে যাওয়া মন্ত্রিসভার সদস্যদের জন্য গাড়ি প্রস্তুত করা হয়েছে। নতুন মন্ত্রীদের ঠিকানায় চলে যাবে এসব গাড়ি।

এদিকে পরিবহন পুলে গাড়িগুলো শেষ মুহূর্তের ধোয়ামোছার কাজ শেষ করা হয়েছে। রোববার নিশ্চিত করেছেন জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহম্মদ।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমাদের যথেষ্ট গাড়ি প্রস্তুত রাখা আছে। চালকও প্রস্তুত। মন্ত্রীদের ঠিকানা পেলেই আমরা গাড়ি পৌঁছে দিতে পারব। আমি গত পরশু ভিজিটও করেছি। গাড়ি যা লাগবে সবই দেওয়া যাবে। সংখ্যাটা বলছি না।’

পরিবহন পুলে টয়োটা হাইব্রিড গাড়ি সারি-সারি প্রস্তুত রাখা হয়েছে। মন্ত্রিসভার সদস্যদের বঙ্গভবনে যাওয়ার জন্য এসব গাড়ি বরাদ্দ থাকবে, সেগুলোতে জাতীয় পতাকার স্ট্যান্ডও যুক্ত করা হয়েছে।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর, ১২ জানুয়ারি ৪৯ সদস্যের মন্ত্রিসভা গঠন করে যাত্রা শুরু হয়েছিল সরকারের। তাদের মধ্যে ২৯ জন মন্ত্রী, ১৭ জন প্রতিমন্ত্রী ও দুজন উপমন্ত্রী। শেষ পর্যন্ত ওই মন্ত্রিসভার সদস্য ছিলেন ৫৩ জন। তবে ভোটের আগে পদত্যাগ করেন চার টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী। শেষ পর্যন্ত সংখ্যাটি দাঁড়ায় ৪৯।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম আজ রোববার বিকাল সাড়ে চারটার দিকে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নতুন মন্ত্রিপরিষদের তালিকা আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেন।

সোমবার নতুন মন্ত্রিসভার ২৪ মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী শপথ নিতে যাচ্ছেন।

রাষ্ট্রপতি বঙ্গভবনে প্রথমে প্রধানমন্ত্রীর শপথ পড়াবেন। এরপর মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের শপথ পড়াবেন রাষ্ট্রপতি। শপথের পর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে দফতর বণ্টন করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

নতুন মন্ত্রিসভা শপথ নিলে তারাই হবে দেশের নতুন সরকার। শপথ নেয়া পর্যন্ত আগের মন্ত্রিসভা বহাল থাকবে। নতুন মন্ত্রিসভা শপথ নিলে আগের মন্ত্রিসভা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাতিল হয়ে যাবে।