ঐতিহাসিক শোলাকিয়ায় সৈয়দ আশরাফের দ্বিতীয় জানাজায় লাখো জনতা

৯:০৫ অপরাহ্ন | রবিবার, জানুয়ারী ৬, ২০১৯ ঢাকা

এ.এম.উবায়েদ, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের নামাজে জানাজায় অংশ নিতে তার নিজ জেলা কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দান জনসমুদ্রে পরিণত হয়। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ছাড়াও দেশের নানান প্রান্ত থেকে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ যোগ দিয়েছেন এই জানাজায়।

সংসদ ভবনে প্রথম জানাজা শেষে হেলিকপ্টারযোগে রোববার দুপুর সোয়া একটার দিকে তাঁর মরদেহ কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে আসে। এখানে আশরাফের নির্বাচনী এলাকাসহ জেলা আওয়ামী লীগ ও সর্বস্তরের জনতার অংশগ্রহণে দ্বিতীয় জানাজা জানাজা সম্পন্ন হয়। সকাল থেকেই শোলাকিয়া ময়দানে জনসমাগম বাড়তে থাকে। বেলা ১২টা নাগাদ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় শোলাকিয়া ময়দান। শোলাকিয়ায় আগত শোকাহত নেতা-কর্মীরা জানান, তারা প্রিয় নেতাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এবং তার জানাজায় অংশ নিতে এসেছেন। প্রিয় নেতার স্মরণে কিশোরগঞ্জ জেলায় কালো ব্যাজ ধারণ করেছেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ প্রিয় এই নেতার শুভানুধ্যায়ীরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ স¤পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, কিশোরগঞ্জ -৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, জেলা প্রশাসক সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ, সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের একমাত্র মেয়ে সৈয়দা রীমা ইসলাম, তিন ভাই মেজর জেনারেল অব. সৈয়দ শাফায়াতুল ইসলাম, ড. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, ড. সৈয়দ শরীফুল ইলাম, দুই বোন ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি ও সৈয়দা রাফিয়া নূর রুপাসহ পরিবারেরঅন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় প্রথম নামাজে জানাজা স¤পন্ন হয়।  জানাজা শেষে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামেকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়। পরে তার মরদেহে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স সংসদ ভবন চত্বরে আনা হয়।  সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জানাজায় রাষ্ট্রপতি ছাড়াও অংশ নেন আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা।