• আজ ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নতুন মন্ত্রিসভা নিয়ে যা বললেন তোফায়েল আহমেদ


সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে একাদশ জাতীয় সংসদে ৪৭ সদস্যের নতুন মন্ত্রিপরিষদ গঠন করা হচ্ছে।

আজ সোমবার (৭ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাদের শপথ বাক্য পাঠ করাবেন। তাদের মধ্যে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী, ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন।

এবারের মন্ত্রিসভায় আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ ও মতিয়া চৌধুরীর মতো আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট নেতারা জায়গা পাননি। সেই সঙ্গে ঠাঁই হয়নি রাশেদ খান মেনন, হাসানুল হক ইনু, আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর মতো শরীক দলের সিনিয়র রাজনীতিকদেরও।

রোববার মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম নতুন মন্ত্রিসভার যে তালিকা প্রকাশ করেছেন তাতে বিদায়ী মন্ত্রিসভার ৩৬ জনই বাদ পড়েছেন। অপরদিকে এবারই প্রথম মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পাচ্ছেন ২৭ জন। তারা মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন।

নতুন মন্ত্রিসভা নিয়ে রোববার বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী উনার পছন্দমত যোগ্য, সৎ ও আদর্শবান ব্যক্তিদের নিয়েই কেবিনেট করেন। আমার মনে হয় তিনি সেজন্যই করেছেন ও ভালোই করেছেন’।

প্রবীণ এই আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘আমি ৭২ সাল থেকে প্রতিমন্ত্রী, ৯৬ সালে মন্ত্রী ছিলাম। নির্বাচনকালীন সরকারে শিল্প ও গৃহায়ন এবং পরে আবার বাণিজ্যমন্ত্রী ছিলাম। সুতরাং আমরা যারা পুরনো নতুনদের তো জায়গা দিতে হবে। একসময় তো যেতে হবে’।

বিদায়ী মন্ত্রিসভার এই সিনিয়র সদস্য বলেন, ‘আমার মনে হয় উনি সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নতুন যারা কেবিনেটে জায়গা পেয়েছেন তারা সবাই যোগ্য, আমি মনে করি প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে তারা ভালোভাবেই সরকার পরিচালনা করে দেশকে অগ্রগতির দিকে নিয়ে যাবেন’।

আরও পড়ুন-

নতুন মন্ত্রিসভার শপথ আজ

সময়ের কণ্ঠস্বর :: কেমন হবে এবারের মন্ত্রিসভা, কে পাচ্ছেন কোনো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব? নতুন মন্ত্রিসভা নিয়ে গত দুদিন দেশজুড়ে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষের মধ্যে আলোচনার বিষয় ছিল এটাই। অবশেষে রোববার সব গুঞ্জনের অবসান ঘটল মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের দেওয়া চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের মাধ্যমে। ২৪ মন্ত্রী, ১৯ প্রতিমন্ত্রী ও ৩ উপমন্ত্রীকে নিয়ে গঠিত হয়েছে নতুন মন্ত্রিপরিষদ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন সরকার শপথ গ্রহণ করবে আজ সোমবার। আজ বিকেল সাড়ে তিনটায় তাদের শপথ পাঠ করাবেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ। শপথ নেওয়ার জন্য ইতোমধ্যে তারা টেলিফোনে ডাক পেয়েছেন। তবে এবারই প্রথম শপথ গ্রহণের আগে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী হিসেবে যারা শপথ নেবেন তাদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিবের ঘোষণা থেকে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর অধীনে যে ছয় মন্ত্রণালয় থাকছে সেগুলো হলো- মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এ ছাড়া অন্যান্য দফতর নিয়ে ২৪ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন যারা তারা হলেন আ ক ম মোজাম্মেল হক-মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়, ওবায়দুল কাদের-সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়, মো. আবদুর রাজ্জাক-কৃষি মন্ত্রণালয়, আসাদুজ্জামান খান কামাল-স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মো. হাছান মাহমুদ-তথ্য মন্ত্রণালয়, আনিসুল হক-আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, আ হ ম মোস্তফা কামাল-অর্থ মন্ত্রণালয়, তাজুল ইসলাম-স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, ডা. দীপু মনি-শিক্ষা মন্ত্রণালয়, একে আবদুল মোমেন-পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, এমএ মান্নান-পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়, নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন-শিল্প মন্ত্রণালয়, গোলাম দস্তগীর গাজী-বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়, জাহিদ মালেক-স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, সাধন চন্দ্র মজুমদার-খাদ্য মন্ত্রণালয়, টিপু মুনশী-বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, নুরুজ্জামান আহমেদ-সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, শ ম রেজাউল করিম-গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, মো. শাহাবুদ্দিন-পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়, বীর বাহাদুর উ শৈ শিং-পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, সাইফুজ্জামান চৌধুরী-ভূমি মন্ত্রণালয়, মো. নুরুল ইসলাম সুজন-রেলপথ মন্ত্রণালয়, স্থপতি ইয়াফেস ওসমান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, মোস্তাফা জব্বার- ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়। তবে শেষের দুজন টেকনোক্র্যাট কোটায় শপথ নিতে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

আবার প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন যে ১৯ জন তারা হলেন কামাল আহমেদ মজুমদার-শিল্প মন্ত্রণালয়, ইমরান আহমেদ প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, জাহিদ আহসান রাসেল-যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়, নসরুল হামিদ-বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়, আশরাফ আলী খান খসরু-মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, মুন্নুজান সুফিয়ান-শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী-নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, জাকির হোসেন-প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়, শাহরিয়ার আলম-পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জুনায়েদ আহমেদ পলক-তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, ফরহাদ হোসেন-জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, স্বপন ভট্টাচার্য্য- স্থানীয় সরকার পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, জাহিদ ফারুক-পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, মুরাদ হাসান-স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, শরীফ আহমেদ-সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়, কেএম খালিদ-সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়, ডা. মো. এনামুর রহমান- দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, মো. মাহবুব আলী- বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়, শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ- ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

উপমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন বেগম হাবিবুন নাহার-পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়, একেএম এনামুল হক শামীম-পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় এবং মহিবুল হাসান চৌধুরী পেয়েছেন-শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এবারের মন্ত্রিসভায় অনেক নতুন মুখের পাশাপাশি ২০০৮ সালের নির্বাচনের পর গঠিত মন্ত্রিসভায় ছিলেন এমন অনেকেও স্থান পেয়েছেন। এবারের মন্ত্রিসভায় ৩১ জন নতুনভাবে এসেছেন।

এদিকে নতুন মন্ত্রিপরিষদের চূড়ান্ত তালিকা অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে নতুন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের স্ব স্ব এলাকায় তাদের অনুগত নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মিষ্টি বিতরণসহ আশা-প্রত্যাশার নানান আলোচনায় মেতে উঠেছেন।

◷ ১১:১০ পূর্বাহ্ন ৷ সোমবার, জানুয়ারী ৭, ২০১৯ জাতীয়