সংবাদ শিরোনাম

বয়স ১০০ ছুঁইছুঁই, দুলি খাতুনের ভাগ্যে কবে জুটবে বয়স্ক ভাতা?ওয়ান শুটারগান ও গুলিসহ আনোয়ারার গেট্টু নাছির গ্রেপ্তারপ্রয়োজনে আরও ভ্যাকসিন কেনা হবে: প্রধানমন্ত্রীটাঙ্গাইলে যৌন হয়রানি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরখাস্তজামালপুরে বাগানে মিলল তরুণীর ঝুলন্ত লাশ, মৃত্যু নিয়ে রহস্যসুবর্ণচরে ধর্ষণের শিকার হয়ে স্কুলছাত্রীর আত্নহত্যাভোটের অধিকার আদায়ে প্রয়োজনে আন্দোলনে নামবে জাতীয় পার্টি: বাবলুরাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশে যেতে তাবিথকে ‘বাধা’গাজীপুরে সকল ট্রেনের যাত্রাবিরতির দাবিতে অবস্থান ধর্মঘটচমেকে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, ব্যাপক ভাঙচুর

  • আজ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনে অনিয়মের প্রতিবেদন জমা দিলেন ধানের শীষের ১২০ প্রার্থী

১২:৫৮ পূর্বাহ্ন | শুক্রবার, জানুয়ারী ১১, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর:একাদশ সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী ১২০ জন প্রার্থী নির্বাচনে বিভিন্ন অনিয়মের তথ্য বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জমা দিয়েছেন। বিএনপির কার্যালয়ের সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবেদনে নির্বাচনের আগে যেসব নেতাকর্মী গ্রেফতার, সহিংসতায় আহত, নিহত হয়েছেন তাদের তালিকার সঙ্গে নির্বাচনের আগের রাতে এবং ভোটের দিন যেসব ভোট কেন্দ্রে অনিয়ম হয়েছে তার ভিডিও এবং লিখিত বর্ণনাও রয়েছে।

গত ৩ জানুয়ারি বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে প্রত্যেক প্রার্থীকে ৮টি ক্যাটাগরিতে নির্বাচনের ‘অনিয়মের’ তথ্য সাত দিনের মধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। এখন পর্যন্ত ১২০ জন প্রার্থী সেই প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

ক্যাটাগরি অনুযায়ী প্রার্থীদের নিজের ও পরিবারের অবরুদ্ধ হয়ে পড়া কিংবা হামলায় আহত, সহায় সম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার তথ্য ও ছবি, নিজ নিজ সংসদীয় এলাকায় সংঘটিত অনিয়ম, ভোট জালিয়াতি, সহিংসতা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের তাণ্ডব এবং সন্ত্রাসের একটি সচিত্র প্রতিবেদন ইত্যাদি চাওয়া হয়।

এ বিষয়ে রুহুল কবির রিজভী বলেন, এখন পর্যন্ত ১২০ জন প্রার্থী সেই প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন। ডাক যোগে চিঠি পাঠানোর কারণে অনেক প্রার্থী দেরিতে চিঠি পেয়েছেন, এই কারণে সব প্রার্থী এখনও প্রতিবেদন জমা দেননি। আশা করি ১-২ দিনের মধ্যে সবাই জমা দিয়ে দেবেন।
সব প্রতিবেদন জমা হলে তার ওপর ভিত্তি করে একটি চূড়ান্ত প্রতিবেদন তৈরি করা হবে। এরপর এগুলো সংবাদ সম্মেলনে করে গণমাধ্যমে তুলে ধরা হবে। এরপর ঢাকায় নিযুক্ত বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে তুলে ধরা হবে। এছাড়া দেশি-বিদেশি সংস্থাগুলোকে জানানো হবে।

জানা যায়, একাদশ সংসদ নির্বাচনে সব প্রার্থী নির্বাচনি ট্রাইব্যুনালে মামলা করার সিদ্ধান্ত ইতোমধ্যে নেওয়া হয়েছে। মামলার সময় প্রার্থীরা নিজ নিজ আসনের প্রতিবেদনের পাশাপাশি ভোটের সামগ্রিক চিত্র নিয়ে সব আসন নিয়ে তৈরি করা পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদনও জমা দেবেন।

এই বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম বলেন, আগে সব প্রতিবেদন জমা হোক। তারপর আমরা চিন্তা-ভাবনা করবো এইগুলো কোন কাজে লাগাবো।